ব্রেকিং নিউজ

আপনি কি পারিবারিক বা ঘরোয়া সহিংসতার শিকার?

ডাঃ তাজকিয়াতুল ইসলাম মহুয়া

ডাঃ তাজকিয়াতুল ইসলাম মহুয়া :: রাতের নির্জন রাস্তা, অফিস বা কর্মস্থল নয়৷ দু:খজনক হলেও এ রাজ্যে মেয়েরা বাড়িতেই সবথেকে বেশি নির্যাতনের শিকার হয়।অনেকের কাছে বাড়ি, গাড়ি, টাকা, প্রেম ইত্যাদি একটি স্বস্তির জায়গা।তবে অনেকের জন্য এসব একটি কারাগার থেকে কম কিছু নয়।মহিলাদের বিরুদ্ধে সহিংসতার শারীরিক আগ্রাসন বা হুমকি, যৌন নির্যাতন, মানসিক নির্যাতন, নিয়ন্ত্রণ বা কর্তৃত্ব, ভয় দেখানো, লাঞ্ছনা, গোপনীয় নির্যাতন এবং অর্থনৈতিক বঞ্চনাসহ অনেকগুলি রূপ রয়েছে।বিয়ের পরে তো বটেই, বিয়ের আগে বাবার বাড়িতেও মেয়েদের নানা নির্যাতনের শিকার হতে হয়৷

এই হিংসাত্মক ক্রিয়াগুলি এতটা উদ্বেগজনকভাবে বেড়ে যাচ্ছে যে ৩ এর মধ্যে ১ বা প্রায় ৩৫% মহিলারা এই নির্যাতনের শিকার।দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলির মধ্যে, বাংলাদেশে ঘরোয়া সহিংসতার হার বেশি যা দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে।

 আপত্তিজনক সম্পর্কের মধ্যে থাকা ব্যক্তিরা বিভিন্ন কারণে তাদের সঙ্গীকে ছেড়ে যেতে পারেন না, যেমন –

>আত্মবিশ্বাসের অভাব

>যাদের আত্মসম্মান সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস হয়ে যায় এবং তারা অনুভব করে যে তারা কখনও অন্য কোন ব্যক্তির সাথে থাকতে পারবেনা।

>বিবাহ, বাচ্চা, ঘরবাড়ি এবং অর্থ হলো একটি বড় কারণ। নির্যাতনের শিকার হয়েও তারা ছেড়ে যেতে পারেনা।

>অনেক সময় অনেকেই বুজতে পারেনা যে তারা সত্যিই কোনও আপত্তিজনক সম্পর্কের মধ্যে রয়েছে কারণ তারা মনে করেন এটাই স্বাভাবিক।

>পর্যাপ্ত শিক্ষা এবং জ্ঞানের অভাব।

 কখন বুজবেন আপনি নির্যাতনের শিকার –

>আপনার সঙ্গী অতীত নিয়ে আপনাকে আঘাত করছে, আপনার গায়ে হাত তুলছে বা আপত্তিজনক কথা বলছে বা কিছু নিয়ে হুমকি দিচ্ছে।

> আপনার উপর অতিরিক্ত নজর রাখছে বা সন্দেহ করছে।

>আপনাকে বাজে কথা বলে ক্ষিপ্ত করে তুলছে।

>জোর পূর্বক আপনার উপর কিছু চাপিয়ে দিচ্ছে।

>আপনাকে বিশ্বাসঘাতক বলে অভিযোগ করছে বা আপনাকে পরিবার বা বন্ধুবান্ধব থেকে বিচ্ছিন্ন করছে।

>আপনার সঙ্গী যদি আপনাকে নিচু করে বা আপনাকে মানসিকভাবে আক্রমণ করে।

>আপনার সঙ্গী আপনাকে বা আপনার পরিবারকে কিছু নিয়ে হুমকি দেয়।

>আপনার পরিবারকে সবসময় ছোট করে বা সবসময় আর্থিক ভাবে সাহায্যের জন্য চাপ প্রয়োগ করে।

>আপনার সঙ্গী যদি আপনাকে শারীরিক এবং যৌন নির্যাতন করে।

>যদি শারিরিকভাবে আঘাত করে অথবা জোর পূর্বক কোন প্রকার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করে বা উত্তেজনার তৈরি করতে চায়। তবে তাকে রেপ বোলে গণ্য করা হয়।

 ঘরোয়া সহিংসতার প্রভাব-

যে মহিলারা ঘরোয়া সহিংসতা বা নির্যাতন সহ্য করছে তাদের পরবর্তী মানসিক স্বাস্থ্যের বিভিন্ন অবস্থার পরে আঘাতজনিত স্ট্রেস ডিসঅর্ডার (পিটিএসডি), হতাশা, উদ্বেগ এবং আত্মহত্যার ঝুঁকি থাকে।

 শিশুদের উপর প্রভাব –

>যেসব শিশুরা ঘরোয়া সহিংসতায় প্রভাবিত হয় তাদের গুরুতর আচরণগত, উন্নয়নমূলক বা একাডেমিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

>তাদের মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্থ হতে পারে।

>আশানুরূপ ভালো ফলাফল করতে না পারা।

>আত্মহত্যার প্রবনতা বেশি হওয়া।

>অপরাধ ও যৌন নিপীড়নের প্রবণতা বেশি থাকা।

>খ্যাতি এবং আত্মমর্যাদা বৃদ্ধির জন্য মানুষকে অপব্যবহার করা।

> বাজে ব্যবহার বা গালিগালাজ দেয়া।

>মাদকদ্রব্য সেবনের ঝোঁক বেশি থাকা।

যদি আপনি বুঝতে পারেন যে আপনার সঙ্গী মানসিকভাবে অসুস্থ তবে একজন মনোবিজ্ঞানী বা মনোচিকিৎসকের সাহায্য নিন। পরিবারের সদস্য বা নিকটস্থ ব্যক্তিদের কাছ থেকে সহায়তা চান।যদি পরিস্থিতি আরও খারাপ হয় পুলিশের সাহায্যে নিন।পারিবারিক সহিংসতা (প্রতিরোধ ও সুরক্ষা) আইন, ২০১০ সালে পাশ হয়েছে। কেবল ঘরে বসে আপনার ভাগ্যকে দোষ দিবেন না।যদি কোনও কিছু কার্যকর না হয় তবে এসব সম্পর্ক থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন।অন্যায় সহ্য করাও একটি অপরাধ। অন্যদের এমন নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচাতে সাহায্য করুন এবং সচেতনতা ছড়িয়ে দিন সবার মাঝে।

 

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দুর্যোগে শীর্ষ ১০ দেশের তালিকায় বাংলাদেশ নবম

ডেস্ক রিপোর্ট: চলতি শতকের ২০ বছরে বিশ্বের যে ১০টি দেশ সবচেয়ে বেশি ...