বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমানের ৪৯তম শাহাদাৎ বার্ষিকী আজ

সাইমুন মুবিন পল্লব::

পশ্চিম পাকিস্তানি শৃঙ্খল ভেঙে নতুন দিগন্তের উন্মোচন করতে বাংলা মায়ের ছেলেরা যুদ্ধে বিজয় নিয়ে আসে। আর এই বিজয়ের পেছনে যাদের অবদান অনস্বীকার্য তাদের মধ্যে অন্যতম একজন বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমান

বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমানের ৪৯ তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ। তিনি ১৯৫৩ সালের ফেব্রুয়ারি বর্তমানে ঝিনাইদহ জেলার খদ্দ খালিশপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৭১ সালের ২৮ অক্টোবর শ্রীমঙ্গলের ধলই সিমান্ত লাগোয়া পাকিস্তানি ক্যাম্পে আক্রমন করার পরিকল্পনা করে মুক্তি বাহিনী৷আক্রমনের শুরুতেই পাকিস্তানি বাহিনী মুক্তি বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে ভারি মেশিন গানের গুলি ছুড়তে শুরু করে। কোন উপায় না দেখে সিদ্ধান্ত হয় গ্রেনেড দিয়ে মেশিনগান বাঙ্কার উড়িয়ে দেওয়ার। আর এই কাজের দ্বায়িত্ব সেচ্ছাই গ্রহন করে ১৮ বছর বয়সী এক তরুণ।

বুকে ভর দিয়ে পাকিস্তানি ক্যাম্পের খুব কাছে এসে লক্ষবস্তুতে গ্রেনেড ছুড়েন হামিদুর রহমান৷ এসময় একটি গুলি এসে তার বুকে লাগে। তিনি অবস্থায় বাঙ্কারে ডুকে মল্লযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে মেশিনগানের গুলি বন্ধ করতে সক্ষম হয়। সুযোগে মুক্তি বাহিনী দখলে নেই ক্যাম্পটি। যুদ্ধ শেষে তার লাশ খুঁজে পায় তার সহযোদ্ধারা।

তার সহযোদ্ধারা তাকে ভারতীয় সিমান্তবর্তী একটি যায়গায় কবর দেয় । ২০০৭ সালের ২৭শে অক্টোবর বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার হামিদুর রহমানের দেহ বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয়।সেই অনুযায়ী ২০০৭ সালের ১০ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ রাইফেলসের একটি দল ত্রিপুরা সীমান্তে হামিদুর রহমানের দেহাবশেষ গ্রহণ করে, এবং যথাযোগ্য মর্যাদার থে কুমিল্লার বিবিরহাট সীমান্ত দিয়ে শহীদের দেহাবশেষ বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয়। ১১ই ডিসেম্বর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমানকে ঢাকার বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

 আলী যাকেরের মৃত্যুতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক

ডেস্ক রিপোর্ট:: সুপরিচিত সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও বিশিষ্ট নাট্য অভিনেতা আলী যাকেরের মৃত্যুতে ...