ব্রেকিং নিউজ

আজও বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি খুঁজছেন শিল্পী অনিমা দে

রাজু দে, নাটোর প্রতিনিধি :: যাত্রা মঞ্চ নাটক এবং কণ্ঠসঙ্গীতের একসময়ের কিংবদন্তি এক শিল্পীর নাম অনিমা দে। দরাজ অভিনয়ের মাধ্যমে আন্দোলিত করেছেন অনেকের হৃদয়। স্বামী দিলীপ কুমার দে তিনিও ছিলেন একজন বড় মাপের অভিনেতা । পিতা যোগেশচন্দ্র দে তিনি ছিলেন একজন বড় ওস্তাদ’। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় আগরতলা থেকে চলে যান দার্জিলিং গৌহাটি শিলচর শিলং প্রভৃতি জায়গায় । মঞ্চ নাটক যাত্রাপালা কণ্ঠসঙ্গীত এর মাধ্যমে বিভিন্ন জায়গায় শো করে আহত মুক্তিযোদ্ধা ও শরণার্থীদের জন্য তহবিল সংগ্রহের কাজ করছিলেন ।

বঙ্গবন্ধুকে অনেক দূর থেকে অনেকবারই দেখেছেন অনিমা দে কিন্তু কাছে গিয়ে কথা বলার মতো কখনো সুযোগ হয়ে ওঠেনি । স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে চট্টগ্রাম নেভি ক্লাবের সামনে নেভিদের উদ্যোগে নাটক চলতে থাকে । সেবার তিনি জয়দুর্গা অপেরাতে ছিলেন । মালিক ছিলেন কানাইলাল চক্রবর্তী । নেভি ক্লাবে নাটক চলাকালীন সময়ে হঠাৎ করে একদিন কানাইলাল চক্রবর্তী এসে শিল্পীদের সবাইকে বললেন বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগে নাটক করতে হবে বাংলাদেশ বেতার ঢাকায় । শিল্পীরা শোনামাত্র মহা খুশি ।

অনিমা দে বললেন যাকে দূর থেকে এতবার দেখেছি সেই বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগে আমরা নাটক করবো এত স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি । মালিক কানাইলাল চক্রবর্তী শিল্পীদেরকে বলেন আগামী কালকে আমাদের রওনা দিতে হবে বাংলাদেশ বেতার ঢাকা তে । পরেরদিন নেভি ক্লাব থেকে বিদায় নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিল জয়দুর্গা অপেরা । বাংলাদেশ বেতার ঢাকা তে পৌঁছাতেই সেখানে দেখা হয়ে গেল পিত্র সমতুল্য বিশিষ্ট সুরকার গীতিকার বর্তমান মাইলস ব্যান্ডের শাফিন আহমেদের প্রয়াত পিতা কমল দাশগুপ্তের সাথে । দেখা হতেই কমল দাশগুপ্ত কে প্রণাম করেন অনিমা দে । কারণ অনিমা দের পিতা যোগেশচন্দ্র দে এবং কমল দাশগুপ্ত একই গুরুর শিষ্য ছিলেন । শুরু হলো এক মিলন মেলা । কমল দাশগুপ্ত বললেন আগামীকাল বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগে তোমাদেরকে নাটক করতে হবে ।

ইতিমধ্যে সেখানে বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক এবং বঙ্গবন্ধু স্বয়ং হাজির হয়ে যান । বঙ্গবন্ধুকে দেখামাত্রই প্রণাম করেন অনিমা দে । বঙ্গবন্ধু বলেন তোমাদের গল্প আমি শুনেছি যাও বিশ্রাম সেরে তোমরা আগামীকালকে নাটকের জন্য প্রস্তুতি নাও আমি সম্পূর্ণ নাটক দেখব । পরেরদিন বাংলাদেশ বেতার ঢাকা এর ভিতরে মঞ্চস্থ করা হয় নাটকটি । মূলত নন্দ রানীর সংসার যাত্রাপালা টিকে বৌদি নামকরণ করে নাটক আকারে মঞ্চস্থ করা হয় । প্রায় সাড়ে সাতটা দিকে শুরু হয় নাটকটি । মঞ্চের প্রথম সারিতে সোফাতে বসা ছিলেন বঙ্গবন্ধু স্বয়ং নিজে এবং বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক সেইসাথে কমল দাশগুপ্ত ।

সেদিন রেসকোর্স ময়দানে বড় পর্দার মাধ্যমে প্রদর্শন করা হচ্ছিল নাটকটি সরাসরি বেতারের মধ্য থেকে । সেখানে হাজারো মানুষের ঢল নেমেছিল ।শুধু তাই নয় সরাসরি কলকাতা পর্যন্ত নাটকটি রিলে করা হয়েছিল । সবথেকে স্মরণীয় বিষয়টি হলো নাটকটি চলাকালীন সময়ের এক ঘন্টা পর মহাপরিচালক এসে বলেন সংক্ষিপ্ত করার জন্য কিন্তু বঙ্গবন্ধু বলেন আমি শেষ পর্যন্ত নাটকটি দেখে যাবো । চলতে থাকে নাটকটি ।

প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা যাবত একটানা বসে বঙ্গবন্ধু নাটকটি দেখেন এবং শিল্পীদের কে প্রশংসিত করেন সেইসাথে অনিমা দে কে ফুলের শুভেচ্ছা ও মেডেল প্রদান করেন ।বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক অনিমা দের স্বামী দিলীপ কুমার দে কে প্রিন্স উপাধিতে ভূষিত করেন । নাটক শেষে শিল্পীদের সাথে বঙ্গবন্ধু একসাথে খাওয়া দাওয়া করেন । তিনি অনিমা দের অনেক প্রশংসা করেন । কমল দাশগুপ্ত এবং অনিমা দে র পিতা যোগেশচন্দ্র দে একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে থাকেন আর কবে দেখা হবে সেটাও তারা জানেন না । সেদিন কলকাতা থেকেও অনেকেই প্রশংসিত করেছেন শিল্পীদেরকে প্রশংসিত করেছেন শিল্পী অনিমা দে কে ।

বঙ্গবন্ধু বলেন আমি শিল্পীদের খুবই ভালোবাসি সংস্কৃতি মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে । পরেরদিন বেতার বাংলা নামে একটি স্মরণিকা ছোট আকারে প্রকাশিত হয় এবং সারা ঢাকা শহর সহ বাংলাদেশ ও ভারতে আলোড়ন সৃষ্টি করে । সেই স্মরণিকা তে বঙ্গবন্ধু সহ শিল্পী অনিমা দের ছবি এবং অন্যান্য সকল শিল্পীর ছবি ও তথ্য-কণিকা গুলো ছিল । সময়ের স্রোতে অনিমা দের জীবন থেকে হারিয়ে গিয়েছে দুই দুইটি সন্তান । কিন্তু আজও সেই স্মরণিকার সন্ধান চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি ।কারণ সেটাতেই ছিল সকল তথ্য । অনিমা দে আরো বলেন বঙ্গবন্ধু সত্যি এক অসাধারণ মহামানব ছিলেন যিনি নিজের কথা কখনোই ভাববেন না । সব সময় তিনি ভেবেছেন সাধারণ মানুষের কথা ।

তিনি যদি আজ বেঁচে থাকতেন আমার অবস্থা এমন থাকতো না এটা দুর্ভাগ্যের পরিহাস । প্রায় বেশ কিছুদিন পূর্বে শাফিন আহমেদের মেসেঞ্জারে এই তথ্যের জন্য মেসেজ করেছেন তাকে কিন্তু কোন উত্তর আসেনি । বর্তমানে অনিমা দে মন্দিরে কীর্তন এর মাস্টারি করে জীবন যাপন করছেন । তিনি আজও ভুলতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর সেই স্মৃতি । আজও খুঁজে চলেছেন বেতার বাংলা নামের সেই স্মরণিকা বা ছোট্ট ম্যাগাজিনটি কারণ সেটাতেই লিপিবদ্ধ আছে সকল তথ্য । সময়ের স্রোতে জীবন থেকে সবকিছু হারিয়ে গেলেও হারাইনি সেই স্মৃতির অনুসন্ধান ।স্বাধীনতার এত বছর পরে আজও বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি খুঁজে চলেছেন শিল্পী অনিমা দে ।

Print Friendly, PDF & Email
0Shares

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

দিলারা মেসবাহ’র গল্প ‘সপ্তপর্ণী রাত’

দিলারা মেসবাহ :: আশ্বিন থেকে বাঁক নেয়া কার্তিকের মোহ আমার সুন্দরতম  ঋতুস্পর্শ! আহা ...