ডেস্ক রিপোর্ট::  দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘের অভিযোগে কুষ্টিয়ার কুমারখালী পৌরসভার মেয়র সামছুজ্জামান অরুণসহ পাঁচজনকে শোকজ করা হয়েছে।

বুধবার (২০ ডিসেম্বর) তাদেরকে শোকজ নোটিশ পাঠিয়েছেন নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটি। আচরণবিধি লঙ্ঘনে সবাইকে বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) আদালতে হাজির হয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

যাদের শোকজ করা হয়েছে তারা হলেন, কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালি-খোকসা) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও নৌকার প্রার্থী ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জের সমর্থক কুমারখালী পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সামছুজ্জামান অরুণ, কুমারখালী পৌরসভার প্যানেল মেয়র হারুন অর রশীদ হারুন, কুষ্টিয়া-৩ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী পারভেজ আনোয়ার তনু, কুষ্টিয়া-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাহবুব উল আলম হানিফের সমর্থক সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিলন মন্ডল, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম।

নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটি সূত্রে জানা গেছে, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রউফের কর্মী-সমর্থকদের হুমকি প্রদান করায় কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালি-খোকসা) আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য ও নৌকার প্রার্থী ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জের চাচা, কুমারখালী পৌরসভার মেয়র সামছুজ্জামান অরুণ, প্যানেল মেয়র হারুন অর রশীদ হারুনকে শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে। কুষ্টিয়া-৪ আসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান ও কুষ্টিয়া আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ এম. এ. আজহারুল ইসলাম এ নোটিশ পাঠিয়েছেন।

এছাড়া কুষ্টিয়া-৩ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী পারভেজ আনোয়ার তনুর বিরুদ্ধে পৌরসভার গাড়ী ব্যবহার এবং কর্মচারীদের নির্বাচনী কাজ করতে বাধ্য করার অভিযোগে তাকে শোকজ করা হয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী পারভেজ আনোয়ার তনুর ঈগল প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণার কাজে কর্মীদের বাধা ও মারধর করায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাহবুব উল আলম হানিফের সমর্থক সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিলন মন্ডল ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমকে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়।

বুধবার দুপুরে নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান কুষ্টিয়া যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ ২য় আদালতের বিচারক মুহাম্মাদ মাজহারুল ইসলাম স্বাক্ষরিত কারণ দর্শানোর নোটিশ তাদেরকে প্রেরণ করা হয়। বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির হয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে কুমারখালী পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সামছুজ্জামান অরুণ ও কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালি-খোকসা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রউফের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তারা রিসিভ করেননি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কুষ্টিয়া-৪ আসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান এবং কুষ্টিয়া আদালতের সিনিয়র সহকারী জজ এম. এ. আজহারুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে জানান, কুমারখালী পৌরসভার মেয়র সামছুজ্জামান অরুণ ও প্যানেল মেয়র হারুনকে শোকজ করা হয়েছে। শিষ্টাচার বহির্ভূত ও উসকানিমূলক ভাষা প্রয়োগ করে প্রকাশ্যে কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালি-খোকসা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুর রউফের কর্মী-সমর্থকদের হুমকি প্রদান করায় শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here