অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের খামখেয়ালি, আমানতকারী গ্রাহক ক্ষুব্ধ

রবীন্দ্র নাথ পাল।

655555গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীন অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের ১৮ই আগষ্ট ১৬ইং একটি চিঠির প্রেক্ষিতে ডাক বিভাগের ডিজি’র পাঠানো আদেশে পোষ্ট অফিসে স্থায়ী আমানত কারীরা বিপাকে পড়েছেন। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের সহকারী সচিব মো:ইমাম হোসেন ১৮ই আগষ্ট’১৬ইং চিঠিটি স্বাক্ষর করে মহাপরিচালক,ডাকবিভাগ সহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অনুলিপি দিয়ে তা বাস্তবায়নের নির্দেশ দেন।

এ চিঠির বরাত দিয়ে যখন গ্রাহকদের জানানো হয় স্বয়ংক্রিয়ভাবে ৩ বছর মেয়াদী সঞ্চয়ী হিসাব এক মেয়াদে(৩বছর) বাড়ানোর আদেশ স্থগিত করা হলো,তখন গ্রাহকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। মেয়াদী আমানতে যারা টাকা রাখেন, তারা পরিবারের বিশেষ প্রয়োজনে যেমন ছেলে-মেয়ের বিয়ে, লেখাপড়া, বৃদ্ধ বয়সে চিকিৎসা,আপদে বিপদে প্রয়োজন মত ব্যবহারের ছাড়াও অবসরে সংসার চালানো জন্যই রেখে থাকেন। এটি দীর্ঘদিন যাবৎ পোষ্টঅফিসের ৩ বছর মেয়াদী হিসেব স্বয়ংক্রিয়ভাবে আরেক মেয়াদে পুন:বিনিয়োগ হয়ে থাকে।

অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের চিঠির বরাতে সমপ্রতি ডিজি ডাক বিভাগ স্বাক্ষরিত একটি চিঠি যার স্মারক নং ০৮,০০,০০০০,০৪১, ২২, ০০১,৯৯-১৫৭-২৬৮,তারিখ ১৮/৮/১৬ইং দিয়ে বলা হয়, যারা পোষ্ট অফিসে ৩ বৎসরের জন্য স্থায়ী আমানত রেখেছেন যা ৩ বছর পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে আরো ৩ বছর বেড়ে মোট ৬ বছর হয়, তা ৮ই মে ২০১৩ থেকে বাতিল করা হলো।ঐ চিঠিতে আরো বলা হয়,পোষ্ট অফিস সেভিংস রুলস এর রুলস ৩৬(বি)এর ক্লস (বি) এর যার ক্লস (।।।)  অনুসারে মেয়াদী হিসাব এক মেয়াদের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে পুন:বিনিয়োগ হিসাবে গন্য মর্মে অভ্যন্তরীন বিভাগ কর্তৃক ৫/৮/১৩ইং তারিখ জারীকৃত স্পষ্টীকরন সংক্রান্ত ০৮,০৩৬,০২২,০২, ০৩,০০১,১৯৯৯-১৯৪ নম্বর স্মারকটি নির্দেশক্রমে স্থগিত করা হলো।ইহা ৫/৮/১৩ইং হতে কার্যকর করা হলো।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মো:ইমাম হোসেন,সহকারী সচিব,তারিখ১৮/৮/২০১৬ইং। এ আদেশের অনুলিপি দেয়া হয়, মহাপরিচালক,ডাক বিভাগ, মহা পরিচালক জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তর, সিনিয়র সচিব অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগ,অতিরিক্ত সচিব,অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগ,যুগ্ম সচিব,অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগ ও বিভিন্ন প্রধান ডাকঘরে। ২১/৮/১৬ইং ডাকবিভাগের মহাপরিচালক উক্ত চিঠির প্রেক্ষিতে বিভিন্ন ডাকঘরে এ সংক্রান্ত পুন:বিনিয়োগ স্থগিতের চিঠি পাঠিয়ে সত্বর ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। প্রায় সোযা ৩ বছর আগের পিছনের তারিখে এমন বাতিলের সংবাদে এর মেয়াদী সঞ্চয় গ্রাহকরা শুধু ক্ষুব্ধ নয়, রীতিমত বিপাকে পড়েছেন।

সূত্র জানায়, ডাক বিভাগে দীর্ঘদিন যাবৎ জনপ্রিয় একটি স্কীম হলো স্থায়ী বা মেয়াদী আমানত। যে কেউ প্রাপ্ত বয়স্ক বাংলাদেশী নাগরিক এ হিসাবে টাকা রাখতে পারেন।ঐ হিসাবে যৌথভাবে বা একক ভাবে কত টাকা রাখা যায় তা উল্লেখ করা আছে। সাধারণ মানুষ ফটকা ব্যবসায়ী বা এমএলএম এর কালো হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য ডাক বিভাগের স্থায়ী আমানতে সমস্ত নিয়ম কানুন মেনে টাকা জামা রাখছেন। স্থায়ী বা মেয়াদী আমানতে প্রাথমিক ভাবে ৩ বছরের জন্য একক বা যৌথ হিসাব খুলে টাকা রাখা যায়। পরবর্তীতে মেয়াদান্তে টাকা না উঠালে তা আরো ৩ বছর বেড়ে যায়। তবে কোনভাবেই ৬ বছরের অধিক রাখা যাবেনা। এভাবেই সাধারণ মানুষ সরকারের ডাক বিভাগের প্রতি আস্থা রেখে স্থায়ী বা মেয়াদী আমানতে টাকা রেখে আসছেন ছেলে-মেয়ের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে। হয়তো বা কেউ অবসরের পর জমানো টাকায় জীবনযাপন করবেন ভেবে টাকা পোষ্ট অফিসের স্থায়ী আমানতে টাকা জমা রেখেছেন। অনেকের ৩ বছর হয়ে গেছে। বর্ধিত মেয়াদের ৩ বছর ছুঁই ছুঁই অবস্থা।এমন সময় ডাক বিভাগের মহাপরিচালক অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের চিঠির প্রেক্ষিতে কোন রকম আগামবার্তা  না দিয়ে চিঠি দিয়ে জানায় ৩ বছরের পর যে সমস্ত স্থায়ী আমানত রাখা আছে, তাদের মুনাফা দেয়া হবেনা।

উল্লিখিত আদেশ যা সম্প্রতি দেয়া হয়েছে, তা ৮/৫/১৩ইং থেকে বাতিল বলে গণ্য হবে। প্রায় সোয়া ৩ বছর আগে যদি বাতিল করা হবে, তার চিঠি ২০১৬ সনের শেষ দিকে পাঠিয়ে গ্রাহকদের কাঁধে চাপিয়ে প্রতারণা করা হচ্ছে, না ঠকানো হচ্ছে, তা বোধগম্য নয়। সাধারণত নিয়ম হলো, যখন আইন হবে, তখন থেকেই তা বলবৎ হবে। এর আগে সে আইন বাস্তবায়ন হবে না। এখন অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগের চিঠির বলে আইনের প্রতি তোয়াক্কা না করে  পিছনের তারিখে বাস্তবায়নের চিঠি দিয়ে সাধারণ গ্রাহকদের ঠকানোর কৌশল নিয়েছেন, তা বোধগম্য হচ্ছে না। তাহলে যাদের স্থায়ী আমানত প্রথম ৩ বছর পার হয়ে পরবর্তী ৩ বছর ছুঁই ছুঁই অবস্থা তারা  মুনাফা থেকে বঞ্চিত হবেন পিছনের তারিখে ইস্যু করা চিঠির পেক্ষিতে।

এ চিঠি আর যাই হোক বর্তমান সরকারে সঞ্চয়ের মাধ্যমে সাবলম্বী হবার প্রচেষ্টা শুধু বিঘ্নিতই হবে না,জনবান্ধব সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হবে সন্দেহ নেই। একটা কথা অবশ্যই সরকারকে মনে রাখতে হবে, মেয়াদী হিসেবে টাকা রেখে গ্রাহকরা একটি সুপরিকল্পনা করেই ভবিষৎ এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এমন একটি সিদ্ধান্ত যদি বাস্তবায়ন হয়,তবে সরকারের জনপ্রিয়তা কিছুটা হলেও ক্ষতিগ্রস্থ হবে। বিপাকে পড়বে সাধারন গ্রাহকদের পরিকল্পনা।

যদি পুন:বিনিয়োগ বাতিল করতেই হয়,তবে পিছনের তারিখ দিয়ে নয়, যেদিন থেকে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের আদেশ বলে ডাক বিভাগের মহাপরিচালক চিঠি দিয়ে স্থগিত করেছেন,সেদিন থেকেই যে গ্রাহক মেয়াদী আমানতে টাকা রাখবেন সেদিন থেকেই তা  বাস্তবায়ন করতে পারেন। পিছনের তারিখে তা বাস্তবায়ন পলায়ন মনোবৃত্তি প্রকাশ পাবে। একটি সাধারন খামখেয়ালী সিদ্ধান্তে গ্রাহকরা যদি ক্ষতিগ্রস্থ হয়,তবে তা সাধারন মানুষের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হতে পারে। পিছনের তারিখ দিয়ে কোন আইন বলবৎ করা হয়,এমন নজির আছে বলে সাধারন গ্রাহকরা মনে করেন না।

এ ব্যাপরে ময়মনসিংহ প্রধান ডাকঘরের এপিএমজি এ কে এম সালেমূল হক জানান, ডিজি মহোদয়ের চিঠির ব্যাখ্যা আমরাও বুঝিনি। পিছনের তারিখে তা বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয়ায় গ্রাহকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে। প্রতিদিনই গ্রাহকদের সাথে এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হচ্ছে।তাই পিছনের তারিখের চিঠি দিয়ে গ্রাহকদের ৩ বছরের অধিক সময়ের মুনাফা থেকে বঞ্চিত হবে বিধায় ডাক বিভাগের গ্রাহকদের ক্ষোভের কারণে ডিজি বরাবর চিঠি দিয়ে ব্যাখা চেয়েছি। এখনো সে চিঠির জবাব আসেনি।

পিছনের তারিখে দেয়া চিঠি দিয়ে এখন বাস্তবায়ন করা সঠিক কোন প্রসেস কিনা, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ডিজি মহোদয়ের কাছে দেয়া চিঠির উত্তর না আসা পর্যন্ত আমি কিছু বলতে পারছিনা। তবে নিয়মানুযায়ী যখন আইন হবে ,তখন থেকেই বাস্তবায়নের কথা। পিছনের তারিখ দিয়ে (৩ বৎসর) আগের তারিখ দিয়ে এখন বাস্তবায়ন হলে গ্রাহকরা পোষ্ট অফিসের প্রতি আস্থা হারাবে, তাতে সন্দেহ নেই।

সরকারের অভ্যন্তরীন সম্পদ বিভাগ বিষয়টি’র একটি সুষ্ঠু ব্যাখ্যা দিবেন এবং এ আদেশ বাতিল করে,যে তারিখে মহামান্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে পুন:বিনিয়োগ স্থগিত করেছেন,সে তারিখ থেকে তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়ে সাধারন গ্রাহকদের সঞ্চয় বিমুখ করা থেকে বিরত থাকতে একটি আইনানুগ ও সুষ্ঠু সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবেন, এটাই প্রত্যাশা।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শিশুদের মনস্তাত্ত্বিক ভিক্তি পর্যবেক্ষেণেই কর্মমুখী শিক্ষার প্রয়োজন

শিশুদের মনস্তাত্ত্বিক ভিত্তি পর্যবেক্ষেণেই কর্মমুখী শিক্ষার প্রয়োজন

নজরুল ইসলাম তোফা:: বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা ইংরেজ আমল থেকে আরম্ভ করে আজঅবধি চলে ...