৯২১ খাল ও ১৬১১ পুকুর পুনঃখনন করা হবে

 ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণে সরকার ৫৬টি জেলায় ৯২১টি খাল ও ১৬১১টি পুকুর পুনঃখনন করবে। এ জন্য ১ হাজার ৩৩৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে হবে।স্টাফ রিপোর্টার :: দেশের ৬৪ জেলায় জেলা সমাজসেবা কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে। এজন্য প্রথম পর্যায়ে ২২টি জেলায় ভবন নির্মাণ করার জন্য ৩২৯ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

বৈঠকে জানানো হয়েছে, সমাজসেবা অধিদফতরের জেলা পর্যায়ে নিজস্ব কোনো ভবন না থাকায় এর সমস্ত কার্যক্রম বাস্তবায়ন যেমন দুরূহ হয়ে পড়ছে, তেমনিভাবে ভাড়া করা ভবনের ব্যয় পরিশোধ করতে সরকারকে প্রতি বছর বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করতে হয়। এজন্য প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবারশেরেবাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ১০ হাজার ৩৩১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা ব্যয়ের ৯টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়। সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান প্রকল্পগুলোর বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

সভায় ১ হাজার ৩৩৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে সারাদেশে পুকুর, খাল উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় দেশের ৫৬টি জেলায় ৯২১টি খাস খাল পুনঃখনন (২৩৭২ কি.মি.), ১৬১১টি প্রাতিষ্ঠানিক পুকুর/দীঘি (১৭০২ একর) পুনঃখনন করা হবে। পুকুর/দীঘি ও খাল উন্নয়নের মাধ্যমে ভূ-উপরিস্থ পানি সংরক্ষণ এবং তা বিভিন্ন আয়-বর্ধক ও বাণিজ্যিক কার্যক্রমে ব্যবহার করার পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, একনেক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পে নিবিড় তদারকি নির্দেশনা দেন, কেননা এ ধরনের প্রকল্পে অনিয়ম হওয়ার আশঙ্কা থাকে। প্রকল্পটি স্থানীয় সরকার বিভাগ চলতি বছর জুলাই থেকে শুরু করে ২০২৩ সালের জুন মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে।

সভায় ৬ হাজার ৯২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তির ৩য় পর্যায় প্রকল্পের ১ম সংশোধনী অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি পূর্বে ৩ হাজার ৬৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ১ কোটি ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে উপবৃদ্ধি দেওয়ার লক্ষ্য ছিল। সংশোধনীর মাধ্যমে এ প্রকল্পে ১০ লাখ বাড়তি শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে এবং প্রকল্পের মেয়াদ দুই বছর বৃদ্ধি করে ২০১৯ সাল পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়েছে।

সভায় ৯৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে ফেনী-নোয়াখালী জাতীয় মহাসড়কের বেগমগঞ্জ থেকে সোনাপুর পর্যন্ত ৪-লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ১১৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ-মিয়ানমার মৈত্রী সড়ক (বালুখালী-ঘুনধুম) বর্ডার রোড নির্মাণ প্রকল্পের ১ম সংশোধনী অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া ২৬৪ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নকলা-সিরাজগঞ্জ-সায়দাবাদ আঞ্চলিক মহাসড়কের সিরাজগঞ্জ শহর অংশ (শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ হতে কাটা ওয়াপদা মোড় পর্যন্ত) ৪ লেনে উন্নীতকরণ ও অবশিষ্ট অংশ ২ লেনে উন্নীতকরণ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

১০৬ কোটি ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে কুষ্টিয়া শহর বাইপাস সড়ক নির্মাণ (২য় সংশোধিত) প্রকল্প, ১৮২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা ব্যয়ে রাজশাহী মহানগরীর রাজশাহী-নওগাঁ প্রধান সড়ক হতে মোহনপুর রাজশাহী নাটোর সড়ক পর্যন্ত পূর্ব-পশ্চিম সড়ক নির্মাণ (১ম সংশোধিত) প্রকল্প, ১১৪ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলাধীন ধলেশ্বরী নদীর বাম তীরবর্তী গাছ-কুমুল্লী, বারপাখিয়া এবং নাগরপুর উপজেলার ঘোনাপাড়াসহ বাবুপুর-লাউহাটি এফসিডি প্রকল্প এলাকায় তীর সংরক্ষণ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ব্যারিস্টার নাজমুল হুদাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

চার বছরের কারাদণ্ড, রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ স্টাফ রিপোর্টার :: সাবেক মন্ত্রী ...