৯০০ টাকায় এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র: ব্যায় হবে কেন্দ্রের নানা খাতে

৯০০ টাকায় এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র: ব্যায় হবে কন্দ্রের নানা খাতে

জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষার প্রবেশপত্র দেওয়ার সময় পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে ব্যায়ের নানা খাত দেখিয়ে আলিম পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৯০০ টাকা এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৫০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

এভাবে একটি চক্র প্রবেশপত্র দেওয়ার নামে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে পরীক্ষার্থী, অভিভাবক ও সচেতনদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা এব্যাপারে জেলা প্রশাসকের প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

এর আগেও ২০১৬ সালে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের করা হয়। ওই সময় বিষয়টি ভিবিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হলে মাদ্রাসার পরীক্ষার্থীদের ২০০ টাকা করে ফেরত দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার থেকে উপজেলার ৫টি মাদ্রাসা ও ৩টি কলেজের পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে প্রবেশপত্র নিতে অতিরিক্ত টাকা আদায় করার খবর পাওয়া যায়। অতিরিক্ত টাকা আদায়ের কারণে বেশিরভাগ শিক্ষার্থী প্রবেশপত্র না নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছে।

জানা গেছে, হাজিরহাট হামেদিয়া ডিগ্রি মাদ্রাসা, ফরাশগঞ্জ ফয়েজে-আম আলিম মাদ্রাসা, মাতাব্বনগর দারুচ্ছুন্নাত আলিম মাদ্রাসা, জগবন্ধু ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা ও চর মার্টিন মুন্সিগঞ্জ আলিম মাদ্রাসার ১৭৫ জন শিক্ষার্থী আলিম পরীক্ষায় অংশ নিবে। অপরদিকে, হাজিরহাট উপকূল কলেজের ৫৭৬ জন, কমলনগর কলেজের ২জন ও ফজুমিয়ারহাট স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ১৩জন পরীক্ষা অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে।
শিক্ষার্থীরা জানান পরীক্ষা ফরম পূরনের সময় তাদের কাছ থেকে নির্ধারিত টাকার চেয়ে বাড়তি টাকা আদায় করা হয়েছে। এখন প্রবেশপত্র আটকিয়ে ৯০০ টাকা করে আদায় করছে।

একজন নারী অভিভাবক জানান, তার ছেলে হাজিরহাট হামেদিয়া ডিগ্রি মাদ্রাসা থেকে আলিম পরীক্ষায় অংশ নিবে। প্রবেশপত্র নিতে গেলে ৯০০ টাকা দাবি করায় তার ছেলে বাড়ি ফিরে আসে। দরিদ্র এই মায়ের পক্ষে ৯০০ টাকা দেওয়া সম্ভব না জানিয়ে টাকা আদায়কারী শিক্ষকের কাছে ফোন করে বলেন তার কাছে ২৫০ টাকা আছে। এই টাকা প্রবেশপত্র দিতে অনুরোধ করেন তিনি। কিন্তু শিক্ষক সাফ জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত টাকার চেয়ে কম নেওয়া সম্ভব না।

টাকা আদায়ের দায়িত্বে থাকা ওই মাদ্রাসার শিক্ষক মাকছুদুর রহমান জানান, কতৃপক্ষ পরীক্ষার প্রবেশপত্র দেওয়ার সময় প্রতি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৯০০ টাকা করে আদায় করতে বলেছেন। সেকারণে প্রবেশপত্র দিতে ৯০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে, কয়েকজন শিক্ষক জানান, পরীক্ষা কেন্দ্রের বেশ কিছু টাকা ব্যায় হয়ে থাকে। এছাড়াও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সন্মানি দিতে হয়, যেকারণে প্রবেশপত্র দেওয়ার সময় টাকা আদায় করা হচ্ছে।

কমলনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এফএম আবদুল ওয়াজেদ তালুকদার বলেন, পরীক্ষার প্রবেশপত্র নিতে টাকা দিতে হয় এবিষয়টি আমার জানা নেই। এব্যাপারে প্রতিষ্ঠান প্রধান ও পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়টি জানাতে মাদ্রাসা ও কলেজ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

লক্ষ্মীপুরের কমলনগর নদী ভাঙন কবলিত উপজেলা। এখানকার ৮০ ভাগ মানুষ দরিদ্র কৃষক ও জেলে। মেঘনার ভয়াবহ ভাঙনের শিকার বেশিরভাগ পরিবার। তাদের পক্ষে প্রবেশপত্র নিতে অতিরিক্ত টাকা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সচেতন মহল মনে করছেন এভাবে নানা অজুহাতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিতে থাকলে শিক্ষার ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘বাবা ছাড়া পৃথিবীটা শূন্য মনে হচ্ছে’

স্টাফ রিপোর্টার :: আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে আহনাফ তাজোয়ার বলেছেন, আমার বাবা অজানাবশত ...