৫ লক্ষ মানুষের জন্য ৫ জন চিকিৎসক

৫লক্ষ মানুষের জন্য ৫জন চিকিৎসক মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :: খুলনার পাইকগাছায় ৫ লক্ষ মানুষের জন্য বর্তামানে ৫জন চিকিৎসক দায়িত্ব পালন করছেন। চিকিৎসক ও জনবল সংকটে স্বাস্থ্য সেবা দারুনভাবে ভেঙে পড়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২২জনের স্থলে ৫ ও ১০শয্যা কপিলমুনি সরকারি হাসপাতালে ২জনের স্থলে চিকিৎসক শূণ্য। সবমিলিয়ে উপজেলার অন্যান্য উপকেন্দ্র মিলে বর্তমানে মাত্র ৫ লাখ মানুষের চিকিৎসা সেবায় নিয়জিত আছেন ৫ জন ডাক্তার।

আর বিশাল এ জনগোষ্ঠীর চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হিমশিম খাচ্ছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। এ সংকট নিরসনে বৃহস্পতিবার (১০আগষ্ট) জেলা বিএমএর সভাপতি ডাঃ বাহারুল আলমের উপসি’তিতে গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে।

এ্যানেসথেসিয়া সার্জন না থাকায় সিজারিয়ান অপারেশনসহ অন্যান্য অপারেশন বন্ধ হওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে রোগী ও তাদের পরিবার। জানাগেছে ইতোমধ্যে হাসপাতালের কয়েকজন ডাক্তার বদলী হয়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণে যাওয়ায় এ দুরাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

ডাক্তার সংকট, এক্স-রে মেশিন অচল, প্রয়োজনীয় ফার্মাসিট, অফিস সহকারী, অফিস সহায়ক, আয়া, ওয়ার্ডবয়, পরিচ্ছন্নতা কর্মী না থাকায় স্বাস্থ্য সেবা দারুনভাবে ব্যাহতের কথা স্বীকার করে ও দিন-রাত ডাক্তারদের পরিশ্রমের কথা জানিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তা ডাঃ প্রভাত কুমার দাশ এ নিয়ে সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরে একাধিক বার চিঠি-চালাচালির পরেও কোনো সমাধান মিলছে না। তবে আগামী ১৩আগষ্ঠের বোর্ড মিটং এ বিষয়টি তুলেধরা হবে বলে জানিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে, ৫০শয্যা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স ও কপিলমুনির ১০শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসক সংকটসহ প্রয়োজনীয় জনবলের অভাব এ অভিযোগ দীর্ঘদিনের। কিন্তু বর্তমানে তা আরো প্রকট আকার ধারণ করেছে।

সূত্র জানিয়েছেন, নিয়ম অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মঞ্জুরীকৃত বিভিন্ন পদ-পদবীর প্রথম শ্রেণীর ২২জন চিকিৎসক, ২য়-২৪, ৩য়-১৬০ ও ৪র্থ শ্রেণীর ৩২জন, মোট ২৩৮ কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে মাত্র ৫জন চিকিৎসক স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তা ডাঃ প্রভাত কুমার দাশ, ডাঃ সুজন কমার মন্ডল, ডাঃ প্রশান্ত কুমার মন্ডল, ডাঃ সঞ্জয় কুমার মন্ডল, ও ডাঃ মিঠুন দেবনাথ দায়িত্ব পালন করছেন। ৮৬ শূণ্যপদসহ ১৫২ জনবল নিয়ে হাসপাতাল চলচ্ছে খুঁড়িয়ে-খুঁড়িয়ে।

কপিলমুনি ১০শয্যা বিশিষ্ঠ হাসপাতালে ২ জন মেডিকেল অফিসার থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে সেখানে চিকিৎসক শূণ্য রয়েছে। রয়েছে অন্যান্য জনবল সংকটসহ অবকাঠাম সমস্যা। এ ছাড়া আগরঘাটা, গদাইপুর, কাঠিপাড়া, চাদখালী, গড়ইখালী, বাঁকা ভবানীপুর উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ লতা, দেলুটি, গদাইপুর, রাড়ুলী ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ডাক্তার শূণ্য ও প্রয়োজনীয় জনবলের অভাব রয়েছে।

এদিকে ভূক্তভোগীদের অভিযোগ হাসপাতালে চরম চিকিৎসক সংকটের কারনে সিরাজিয়ানসহ স্বাস্থ্যসেবা প্রত্যাশীরা বিভিন্ন ক্লিনিকের দারস্থ হয়ে বেশি টাকা গুনতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে গোল টেবিল বৈঠকের কথা উল্লেখ করে, কেন্দ্রীয় বিএমএর দপ্তর সম্পাদক ডাঃ মোহাঃ শেখ শহীদ-উল্লাহ বলেন, সমস্যা-সংকট নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা হয়েছে। তারা দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে।

খুলনা জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ এ এসএম আঃ রাজ্জাক বলেন, পাইকগাছা-কপিলমুনি হাসপাতালের স্বাস্থ্য সেবার দুরাবস্থার কথা ইতোমধ্যে পরিচালককে জানানো হয়েছে। অচিরেই চিকিৎসক সংকট মিটে যাবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর তিন দফা সুপারিশ উপস্থাপন

ডেস্ক নিউজ :: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে এখানে শরণার্থী বিষয়ক বৈশ্বিক প্রভাব ...