ব্রেকিং নিউজ

১৫৪ ট্যানারিকে ৩০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা জমা দেয়ার নির্দেশ

হাইকোর্টস্টাফ রিপোর্টার :: আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী পরিবেশের ক্ষতি হিসেবে জরিমানার অর্থ জমা না দেয়া হাজারীবাগের ১৫৪টি ট্যানারি কারখানাকে বকেয়া বাবদ ৩০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা দুই সপ্তাহের মধ্যে সরকারি কোষাগারে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার এক আদেশে হাইকোর্ট বলেছে, ওই সময়ের মধ্যে বকেয়া টাকা জমা না দিলে ট্যানারিগুলোর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের এক সম্পূরক আবেদনে বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের বেঞ্চ এই আদেশ দেয়।

আবেদনকারীপক্ষের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ আদেশের পর সাংবাদিকদের বলেন, গত ১৬ জুন হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়, হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি না সরানো পর্যন্ত পরিবেশের ক্ষতি হিসেবে ১৫৪ কারখানার মালিককে রোজ ৫০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে হবে।

পরে ট্যানারি মালিকেরা আপিল বিভাগে গেলে আপিল বিভাগ মাসিক ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা পরিশোধের নির্দেশ দেন। পরবর্তী সময়ে দেখা যায়, ট্যানারি কারখানাগুলো হাজারীবাগের আছে, তবে জরিমানার অর্থ প্রদান করছে না। এ অবস্থায় আদালত অবমাননার আবেদন করা হয়। শিল্পসচিব আদালতে হাজির হয়ে জানান, দেড়শর বেশি কারখানা রয়েছে, যাদের বকেয়ার পরিমাণ ৩০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের এক আবেদনে গত বছরের ১৬ জুন বিচারপতি সৈয়দ মোহম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি একেএম সাহিদুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ ট্যানারি মালিকদের পরিবেশের ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রতিদিন ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছিল।

পরে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ ফিনিশড লেদার, লেদার গুডস অ্যান্ড ফুটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করলে আপিল বিভাগ জরিমানার সিদ্ধান্ত ঠিক রেখে পরিমাণ কমিয়ে প্রতিদিন ১০ হাজার টাকা নির্ধারণ করে দেয়। শিল্প সচিবকে ওই অর্থ আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করতে বলা হয়।

ক্ষতিপূরণ আদায়ের ওই নির্দেশনা সঠিকভাবে প্রতিপালিত হয়নি জানিয়ে এরপর শিল্প সচিবের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ।

এরপর গত ২৫ জানুয়ারি হাইকোর্ট শিল্প সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে তলব করলে তিনি ১৩ ফেব্রুয়ারি হাজির হয়ে ক্ষতিপূরণ আদায়ের সর্বশেষ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেন।

শিল্প সচিবের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আপিল বিভাগের আদেশের পর গত আগস্ট মাসে ১৫০টি কোম্পানি ১০ হাজার টাকা করে দিলেও সেপ্টেম্বরে মাত্র চারটি এবং অক্টোবরে তিনটি কোম্পানি টাকা দিয়েছে।

এই হিসেবে এ পর্যন্ত বকেয়া পড়া ৩০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা জমা দিতেই আদালত দুই সপ্তাহ সময় দিয়েছে বলে মনজিল মোরসেদ জানান।
হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি শিল্প সরিয়ে নিতে ২০০১ সালে হাইকোর্ট রায় দেন। এরপর কয়েক দফা এই সময়সীমা বাড়ানো হয়। এরপরও হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি না সরানোয় আদালত অবমাননার অভিযোগ আনে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

হাইকোর্ট

জাতীয় নির্বাচনের তফসিল স্থগিত চেয়ে রিট

স্টাফ রিপোর্টার :: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল স্থগিত চেয়ে রিট করা ...