১০ হাজার ছাত্রছাত্রীর জন্য শিক্ষক ৭২ জন

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহ জেলার ঐতিহ্যবাহী সরকারি কেশব চন্দ্র (কেসি) মহাবিদ্যালয় নানা সমস্যায় জর্জরিত।

প্রায় ১০ হাজার ছাত্রছাত্রীর জন্য শিক্ষক রয়েছে ৭২ জন। ৮৪টি পদের মধ্যে ইতিহাস, ইংরেজি, একাউন্টিং ও পদার্থ বিজ্ঞানসহ ১১টি পদ শূন্য রয়েছে।

শিক্ষক সংকটের পাশাপাশি শ্রেণী কক্ষ সংকট, কলেজ অডিটোরিয়াম, খেলার মাঠ, ক্যান্টিন ও ছাত্রাবাসসহ নানা সংকটের মধ্যে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা করছেন।

তবে এনাম কমিটির নীতিমালা অনুসারে কেসি কলেজে ২২২ জন শিক্ষক দরকার। জানা গেছে ১৯৬০ সালের ১৭ মার্চ ঝিনাইদহের বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী কেশব চন্দ্র পালের দান করা ১২ একর জমিতে তৎকালীন মহাকুমা প্রশাসক এমকে আনোয়ার কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮০ সালে কলেজটি সরকারিকরণ করা হয়।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ আব্দুল বাছিত মিঞা জানান, কেসি কলেজে ১৪টি বিষয়ে সম্মান এবং ৫টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর রয়েছে। আরো ৯টি বিষয়ে স্নাতকোত্তর শ্রেণী অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে বলে তিনি জানান।

আরো জানান, কলেজে ৬ কোটি টাকার দুইটি ভবন নির্মাণ হচ্ছে। ভবন দুটি নির্মিত হলে আপাতত শ্রেণী কক্ষের সমস্যার সমাধান হবে। তিনি বলেন, কলেজ অডিটোরিয়ামের অভাবে শিক্ষার্থীদের পড়া লেখা ব্যাহত হচ্ছে।

এছাড়া ক্যাম্পাসের ধারণ ক্ষমতা খুবই কম। স্বল্প পরিসরের ক্যাম্পাসে ১০ হাজার ছেলে মেয়ে চলাফেরা করতে পারে না বলে তিনি উল্লেখ করেন। এরপরও রয়েছে ছাত্রাবাস ও খেলার মাঠের সংকট। তবে তিনি কলেজে যে শিক্ষক আছে তাতে সমস্যা নেই বলে জানান। কলেজের লাইব্রেরীতে ১৬ হাজার ৪৯৫টি বই থাকলেও অর্থনীতিসহ বিভিন্ন বিভাগে সেমিনারে বই সংকট রয়েছে বলে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন।

সরকারি কেসি কলেজের ব্যবস্থ্‌পনা বিভাগের ছাত্র সেলিম রেজা বলেন, অন্যান্য সমস্যার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের প্রধান সমস্যা হচ্ছে ক্যান্টিন। ক্যান্টিন না থাকায় দূর-দুরান্তের শিক্ষার্থীরা প্রায় অভুক্ত থাকেন। তিনি আরো জানান, কলেজের বাথরুমগুলো ব্যবহার অনুপোযোগী। এছাড়া ছাত্র সংসদ না থাকায় ছাত্রদের সমস্যা সমাধানে কোন সংগঠন এগিয়ে আসে না।

আহমেদ নাসিম আনসারী/

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

১০ ডিসেম্বরের মধ্যে সব পরীক্ষা শেষ করতে ইসির নির্দেশ

স্টাফ রিপোর্টার :: আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে সব পরীক্ষা শেষ করতে শিক্ষা ...