সয়াবিনের রাজধানী লক্ষ্মীপুরে এবার সয়াবিন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি!

সয়াবিনের রাজধানী লক্ষ্মীপুরে জহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: মেঘনার উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুর। অনুকূল আবহাওয়া ও উর্বর মাটির কারণে এ অঞ্চলে সয়াবিনের বাম্পার ফলন হয়। দেশে উৎপাদিত সয়াবিনের প্রায় ৮০ থেকে ৮৫ ভাগ সয়াবিন লক্ষ্মীপুরে উৎপাদিত হয়ে থাকে।

যে কারণে এ জেলা সয়াবিনের রাজধানী হিসেবে খ্যাত। কিন’ চলতি মৌসুমে সয়াবিন আবাদের সময় জমি স্যাঁতসেঁতে থাকায় চাষিরা কাঙ্খিত জমিতে সয়াবিন আবাদ করতে পারেনি। ফলে এবার জেলার সয়াবিন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি।

গত বছর সয়াবিন আবাদ হয়েছিল ৫৩ হাজার ৫৩৮ হেক্টর জমিতে। এবার সয়াবিন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫০ হাজার ৫০৫ হেক্টর জমিতে তার মধ্যে অর্জন হয়েছে ৪১ হাজার ২৭০ হেক্টর জমিতে। তাতে গত বারের তুলনায় ১২ হাজার ২৬৮ হেক্টর জমিতে কম সযাবিন আবাদ হয়েছে। আর এবারের লক্ষ্যমাত্রা তুলনায় ৯ হাজার ২৩৫ হেক্টর জমিতে কম সয়াবিন আবাদ হয়েছে। কৃষিবিভাগ বলছে ডিসেম্বর মাসের ৯, ১০ ও ১১ তারিখে বৃষ্টি হওয়ায় জেলায় এবার সয়াবিনে আবাদ কম হয়েছে।

স্থানীয় কৃষকদের কাছে সয়াবিন শস্যটি ‘সোনা ফসল’ হিসাবে পরিচিত। এখন রবি মৌসুম। এ সময়ে সয়াবিন আবাদ হয়। তাইতো সোনা ফলাতে বিস্তির্ণ মাঠজুড়ে বীজ বুনেছেন কৃষকরা। উপকূলের বুক ঝুড়ে মাইলের পর মাইল এখন কচি সবুজ সয়াবিন গাছে বরে গেছে। বাম্পার ফলনের আশায় সারাদিন চলছে সয়াবিন খেতের পরিচর্যা। প্রয়োগ করছেন সার ও কীটনাশক। আর এভাবেই একটু একটু করে বেড়ে উঠছে সয়াবিন গাছ। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে কৃষকের স্বপ্ন।

জেলার রামগতি, কমলনগর, রায়পুর, রামগঞ্জ ও লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলায় আমন ধান কাটার পরই কৃষকরা সয়াবিন আবাদের প্রস্তুতি নেন। জমিতে রস থাকতে থাকতে চাষ দেন তারা। আইল কেটে নেন, জমির উঁচু-নিচু সমান করেন। আগাচা পরিষ্কার, জৈব ও রাসায়নিক সার ব্যবহার করেন। জমি শুকালে মই দিয়ে মাটি ঝরঝরে করা হয়। সব প্রস্তুতি শেষে সোনা ফলাতে বীজ বুনেন কৃষকরা।

ফেব্রুয়ারি প্রথম সপ্তাহে চলতি মৌসুমে সয়াবিনের বীজ বুনা শেষ হয়েছে। কৃষকরা সারিতে এবং ছিটিয়েও সয়াবিনের আবাদ করেছেন। বীজ থেকে চারা উঠতে শুরু হয়েছে। সামনে পরিচর্যার পালা, আগাছা মুক্ত রাখা, প্রয়োজনে সেচের ব্যবস্থা করা। পোকা-মাকড় দমনে কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ নেওয়া। এসব যথাযথ হলে সোনা ফলে। হয় বাম্পার ফলন। কৃষকের মুখে ফুটে সুখের হাঁসি।

জেলার সয়াবিন চাষিদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বৃষ্টির কারনে বীজ বপনের সময় জমি স্যাঁতসেঁতে ছিল। তাই অধিকাংশ জমিতে সয়াবিন আবাদ করতে পারেনি তারা। এ ছাড়াও গত কয়েক বছরের লোকসানের ফলেও অনেক চাষি সয়াবিন আবাদ করেনি।

তারপরেও সয়াবিন চাষে রোগ ও পোকার আক্রমণ কম হয়। চাষাবাদ পদ্ধতি সহজ। সয়াবিনে ধানের চেয়ে বেশি দাম পাওয়া যায়। বিক্রি করলে আর্থিকভাবে লাভবান হয় কৃষক। যে কারণে কৃষকদের সয়াবিন চাষে আগ্রহ বেশি। বর্তমানে চাষিরা সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত মাঠে সয়াবিন খেত পরিচর্যা করছে ভালো ফলনের প্রত্যাশায়। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে অন্যান্য বছরের ক্ষতি কিছুটা পুসিয়ে নিতে পারবেন তারা।

জেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আবুল হোসেন জানান, সয়াবিন বছরের সব সময় চাষ করা যায়। তবে রবি মৌসুমে ফলন বেশি হয়। যে কারণে রবি মৌসুমে সয়াবিনের আবাদ হয়ে থাকে। ৯৫ থেকে ১১৫ দিনের মধ্যে ফসল সংগ্রহ করা যায়। হেক্টর প্রতি ২ থেকে ২.৫ টন উৎপাদন হয়ে থাকে। সয়াবিনের পাতাসহ অন্যান্য অংশ এবং শিকড় অল্প সময়ের মধ্যে পচে-গলে মাটিতে জৈব সার তৈরি করে। এর ফলে মাটির স্বাস্থ্য ও পরিবেশ অনেক উন্নত হয়। মাটি হয় পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। সয়াবিন চাষের ফলে জমির উর্বরতা বৃদ্ধি পায়। এর ফলে পরবর্তী ফসল চাষে সারের ব্যবহার অর্ধেকে নেমে আসে। উৎপাদন খরচ কমে যায়। ফলনও ভালো হয়।

কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর খামার বাড়ি লক্ষ্মীপুর অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে লক্ষ্মীপুর জেলার ৫ উপজেলায় ৪১ হাজার ২৭০ হেক্টর জমিতে সয়াবিন আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে রামগতিতে ১৬ হাজার ৫০০ হেক্টর, কমলনগরে ১৩ হাজার ৫০০ হেক্টর, সদরে ৫ হাজার ৯৫০ হেক্টর, রায়পুরে ৫ হাজার ৫৪০ হেক্টর ও রামগঞ্জ উপজেলায় ৮১ হেক্টর । উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র ধরা হয়েছে ৯৫ হাজার ৪৫৪ মেট্রিক টন।

লক্ষ্মীপুর কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বেলাল হোসেন খান জানান, বীজ বপনের সময় বৃষ্টি হয়েছিল। ফলে দীর্ঘদিন জমি স্যাঁতসেঁতে ছিল। তাই চাষিরা অধিকাংশ জমিতে সয়াবিন আবাদ করতে পারেনি। যার ফলে আমাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়নি। তবে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার লক্ষ্মীপুরে সয়াবিনের বাম্পার ফলন হবে। ভালো ফলন পেতে কৃষি অফিস ও উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠে গিয়ে কৃষকদের প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে আসছেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

আগামী বছর কারওয়ান বাজার স্থানান্তর করা হবে

ষ্টাফ রিপোর্টার :: রাজধানী ঢাকার যানজট নিরসনে কারওয়ান বাজারের কাঁচাবাজারসহ তিনটি চিকেন ...