সমাজ উন্নয়নে গ্রামবাসীদের পাশে প্রত্যন্ত এলাকার শিক্ষার্থীরা

সমাজ উন্নয়নে গ্রামবাসীদের পাশে প্রত্যন্ত এলাকার শিক্ষার্থীরামিলন কর্মকার রাজু, কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :: সমাজ উন্নয়নে নতুন প্রজন্মের স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা যে জেগে উঠেছে প্রত্যন্ত এলাকায় শতশত স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন আরও একবার প্রমান করলো। প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করে তাদের হাতে হাত ধরে এ মানববন্ধনে অংশ নেয় শতশত গ্রামবাসীও।

পটুয়াখালীল কলাপাড়ার প্রত্যন্ত চাকামইয়া ইউনিয়নের কাঠাঁলপাড়া স্লুইসসহ স্কুলগামী সড়ক সংস্কারের এ দাবিতে এ মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শনিবার সকাল ১১টায় স্লুইস সংলগ্ন বিধ্বস্ত স্কুলগামী সড়কে মানববন্ধন পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নুরমোহম্মাদ মাধ্যামিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.আইউব আলী, ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম, নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী মীম ও সাগর মৃধা প্রমুখ।

কাঁঠালপাড়া ছয় ভেন্টের স্লুইসটি এখন এলাকাবাসীর কাছে আতংক। এই স্লুইস সংলগ্ন রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন নুরমোহম্মাদ মাধ্যামিক বিদ্যালয়, কাঠালপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গাজীপাড়া দাখিল মাদ্রাসার পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থীসহ অন্তত ১০ হাজার মানুষ চলাচল করে। কিন্তু চরম ঝুঁকিপূর্ণ এই স্লুইসটি মেরামতে কোন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না । এ কারনে স্লুইসটি বিধ্বস্ত হয়ে কচুপাত্রা নদীর দুই পাড়ের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাবে কলাপাড়া ও তালতলীর পাঁচটি ইউনিয়নের শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসীর।

নুর মোহাম্মদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী মীম বলেন, ছয় ভেন্টের স্লুইসটির দুই দিকের মূল পিলারের পলেস্তরা খসে খসে পড়ছে। রডগুলো জং ধরে বেরিয়ে গেছে। কপাটগুলো লোনায় নষ্ট হয়ে আছে। উপরের রেলিং ভেঙ্গে গেছে। স্লুইসটির সামনের দুই দিকের গাইড ওয়াল অনেক আগেই দেবে নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। উপরের মাটি দেবে নিচে সুরঙ্গ হয়ে গেছে। পানি ওঠানামার সময় ঝাঁকুনি অনুভূত হয়। এ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় তাদের প্রতিদিন স্কুলে যাতায়ত করতে হচ্ছে। রাস্তায় হাটলে মনে হয় এই বুজি রাস্তা ভেঙ্গে আমরা গর্তে দেবে যাচ্ছি। এভাবে ঝুঁকিনিয়ে আর কতদিন আমরা হাটবো।

একই বিদ্যালয়ের ছাত্র সাগর মৃধা বলেন, এ দুর্ভোগ আর কতদিন। হাজারো মানুষ আতংকে থাকলেও জনপ্রতিনিধিদের সেদিকে খেয়াল নেই। এই স্লুইস ভেঙ্গে পড়লে পাঁচ শতাধিক স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ হাজারো মানুষের দুর্ভোগের অন্ত থাকবে না। তাই এলাকার সকল স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা আজ এক ঘন্টা স্কুলের পাঠদার বন্ধ রেখে এই মানববন্ধনে সামিল হয়েছে এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে নুরমোহম্মাদ মাধ্যামিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.আইউব আলী বলেন, স্লুইসের জল কপাটগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ার জোয়ারে পানির তোড়ে স্কুলের পুকুর পাড়, খালের দুই পাড়ের রাস্তা অধিকাংশ ভেঙ্গে গেছে। একটি মসজিদসহ বাড়ি ঘর ভেঙ্গে পরার উপক্রেম হয়েছে। স্লুইসটির উপর দিয়ে তালতলীর সঙ্গে কলাপাড়ার সংযোগ সড়ক রয়েছে। এটি বিধ্বস্ত হলে শিক্ষার্থীদের স্কুলে আসা যাওয়া চরম দুর্ভোগের মধ্যে পরবে।

ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম বলেন, স্লুইসটির সঙ্গে রয়েছে এই বিশাল জনগোষ্ঠীর কৃষিকাজসহ জীবন-জীবিকার নিবিড় সম্পর্ক। এটি বিধ্বস্ত হলে শত শত একর কৃষি জমি লবন পানিতে তলিয়ে যাবে।

কলাপাড়া পানি উন্নয়নবোর্ড সূত্রে জানা যায়, ৪৪ পোল্ডারের চাকামইয়া ইউনিয়নের ১৯৬৫ সালে স্লুইসটি নির্মাণ করা হয়। কয়েকবার জলকপাট পাল্টানোসহ টুকিটাকি মেরামত করা হয়েছে। কিন’ ব্যাপকভাবে সংস্কার করা হয়নি।

কলাপাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল খায়ের জানান, স্লুইসটি মেরামতের জন্য প্রকল্প করে মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়েছে। বরাদ্ধ পাওয়ার পর সংস্কারে উদ্যোগ নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মেঘনা তেল ডিপোতে আগুন, নিহত ২

ষ্টাফ রিপোর্টার :: খুলনায় মেঘনা পেট্রোলিয়াম জ্বালানি তেল ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডে দুজন নিহত ...