শুক্রবার থেকে সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী স্টাফ রিপোর্টার :: আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা উপলক্ষে শুক্রবার থেকে দেশের সব ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে।

এছাড়া পরীক্ষা চলাকালে সীমিত সময়ের জন্য ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বন্ধ রাখা যায় কি না, এ বিষয়ে দু-একদিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এ বছর প্রথমবারের মত সব বোর্ডে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হবে।

আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ২০১৮ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার বিষয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত জাতীয় মনিটরিং কমিটির সভায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘পয়লা ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষ হবে ২৪ ফেব্রুয়ারি। পরীক্ষার সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। এবার প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে সরকার খুবই কঠোর। প্রশ্ন যাতে ফাঁস না হয় সে ব্যাপারে আমরা সবধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। সজাগ রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। প্রশ্ন ফাঁসের ব্যাপারে আমরা খুবই ডেসপারেট, খুবই অ্যাগ্রেসিভ। আগামী প্রজন্মের জন্য ডেসপারেট, অ্যাগ্রেসিভভাবে মোকাবিলা করতে না পারলে হবে না।’

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘পরীক্ষার ৩০ মিনিট আগে শিক্ষার্থীরা আসনে না বসলে তাকে অনুপস্থিত দেখানো হবে। এতোদিন ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে বা হলে উপস্থিতির বাধ্যবাধকতা থাকলেও প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ৯টা ৩০ মিনিটে সিটে বসতে হবে। সিটে না থাকলে অনুপস্থিত দেখাবেন ইনভিজিলেটর। ৩০ মিনিট আগে উপস্থিতির বিষয়টি ভালভাবে প্রচার করতে হবে, যাতে শিক্ষার্থীরা এ ব্যাপারে সচেতন হয়।

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার তিন দিন আগে কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধের সিদ্ধান্ত হলেও আমরা তা থেকে সরে এসে সাত দিন আগে থেকেই কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাই শুক্রবার থেকে কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ থাকবে।’

এদিকে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার পরও প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ পেলে সেই পরীক্ষা বাতিল করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন।

তিনি বলেন, ‘যদি এরকম ঘটনা ঘটে, প্রশ্ন আগেই আউট হয়েছে, সেক্ষেত্রে সেই পরীক্ষা বাতিল হবে। প্রয়োজনে ১০ বার সেই পরীক্ষা নেবো, তবু পরীক্ষার ফল প্রকাশ করবো না। এ বছর প্রশ্ন ফাঁসের কোনো অভিযোগ নেবো না।’

এর আগে বিভিন্ন সময় প্রশ্ন ফাঁসের যে অভিযোগ উঠেছে তা উড়িয়ে দিয়ে সোহরাব হোসাইন বলেন, ‘বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভুয়া প্রশ্ন পাওয়া গেছে। আর ফাঁস হলেও প্রশ্ন সেট বদল করে পরীক্ষা নেওয়া হবে।’

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহাজোট থেকেই নির্বাচনে অংশ নেবে জাতীয় পার্টি

স্টাফ রিপোর্টার :: আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের সঙ্গে জোট করেই নির্বাচনে অংশ ...