ব্রেকিং নিউজ

শিউলীর স্বপ্ন ভেঙ্গে গেল কালবৈশাখী ঝড়ে!

শিউলীর স্বপ্ন ভেঙ্গে গেল কালবৈশাখী ঝড়েআসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট প্রতিনিধি :: ৪ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে নিজেকে স্বালম্বী করতে পল্ট্রি ফার্ম গড়ে তোলেন শিউলী রানী রায়। শুক্রবার সকালে ফার্মে তোলেন ৪ হাজার লেয়ার মুরগীর বাচ্চা। ওই সব বাচ্চা বড় হয়ে ৫ মাস পরেই ডিম দিবে। সেই ডিম বিক্রি করে ঋণের কিস্তিসহ চলবে তার সংসারের চাকা। এ স্বপ্ন দেখছিল নারী উদ্যাক্তা শিউলী রানী। শিউলীর সেই সকালে বোনা স্বপ্ন শুক্রবার দিবাগত রাতে কাল বৈশাখীর ছোবলে তছনছ হয়ে গেল।

শিউলী রানী লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের কচুমুড়া গ্রামের নিরঞ্জনের স্ত্রী। ওই এলাকার নিরঞ্জন পল্ট্রি ফার্মের মালিক।
বিকেলে যে বাচ্চা গুলো ফার্মে কিচির মিচির শব্দে খাবার খেত আর ছুটোছুটি করত। রাতের আঁধারে থেমে গেল ফার্মের সেই কিচির মিচির শব্দ। নিস্তব্দ হয়ে গেল ফার্ম। ভেঙ্গে গেলে শিউলীর স্বপ্ন।

ফার্মের টিনের ছাউনীর ফাঁকে হাত লাগিয়ে জীবিত বাচ্চা উদ্ধারের চেষ্টা করছিলো শিউলী। কিন্তু পেলেন না, সব বাচ্চাই মারা গেছে কালবৈশাখীর ছোবলে। ঝড়ে পুরো ঘরটি বাচ্চা গুলোর উপর পরায় একটিও জীবিত নেই।

শিউলী রানী বলেন, বেকারত্বের অভিশাপ মোচনে নিজেকে স্বালম্বী করে সংসারের চাকা সচল করতে গত ৫ মাস আগে ব্র্যাক থেকে ঋণ নিয়ে নিরঞ্জন পল্ট্রি ফার্মটি গড়ে তুলি। প্রথমে মুরগির মাংস উৎপাদন করে ভাল মুনাফাও পেয়ে ছিলাম। মাংসের চেয়ে মুরগীর ডিমের চাহিদা বেশি হওয়ায় লেয়ার বাচ্চা পালনের সিদ্ধান্ত নেন। সেই স্বপ্ন পুরনে ঋণের পরিমান বাড়িয়ে ৪ লাখ টাকায় প্রায় ৪ হাজার লেয়ার মুরগীর বাচ্চা ক্রয় করি শুক্রবার সকালে। সারাদিন মুরগীর বাচ্চা গুলোকে খাইয়েছি পরম যতেœ। কিন্তু বিধিবাম রাতের আঁধার নামতেই কালবৈশাখীর ছোবলে লন্ডভন্ড হয়ে গেল আমার স্বপ্ন।

শিউলী রানী আরও বলেন, স্নাতক পাশ করেও বেকার থাকব তা হতে পারে না। তাই ঋণের টাকায় পল্ট্রি ফার্মটি গড়ে তুলি। কিন্তু কালবৈশাখী ঝড় আমাকে ঋনের বোঝা মাথায় দিয়ে গেল। এখন স্বপ্নটা বড় দুঃস্বপ্ন হয়ে গেল। ঋনের কিস্তি কি করে পরিশোধ হবে।

ওই এলাকার কলেজ শিক্ষক নারায়ন চন্দ্র বলেন, শিউলী নিরঞ্জন দম্পত্তি অনেক কষ্ট করে ফার্মটি দিয়েছে সংসারে চাকা সচল রাখতে। কিন্তু ঝড়ে পুরো সংসার তাদের তছনছ হয়েছে।

শুক্রবার রাতের এ ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ  উপজেলার কয়েক হাজার ঘর বাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিপনী বিতান লন্ডভন্ড হয়ে যায়। অসংখ্য গাছপালা ও বৈদ্যুতিক খুটি উপড়ে পড়ে। এসব এলাকায় এখন পর্যন্ত বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবুল ফয়েজ মোঃ আলাউদ্দিন খাঁন বলেন, ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিরুপন করতে ইউএনওসহ সকল দফতরকে মোবাইলে বলা হয়েছে। তবে হতাহতের কোন খবর পাওয়া যায় নি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মানুষের গড় আয়ু বেশি

ভারত, পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু বেশি

স্টাফ রিপোর্টার :: স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়ন ও চিকিৎসার নানামুখী অগ্রগতির প্রভাবে দেশে ...