Home / এনজিও / রোহিঙ্গা শরনার্থীদের অসহায়ত্বে “এডাব” এর উদ্বেগ

রোহিঙ্গা শরনার্থীদের অসহায়ত্বে “এডাব” এর উদ্বেগ

রোহিঙ্গা শরনার্থীদের অসহায়ত্বে “এডাব” এর উদ্বেগঢাকা :: বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদী বা উগ্রপন্থা দমনের নামে সেদেশের সেনাবাহিনী কর্তৃক রোহিঙ্গাদের নির্যাতন, নির্বিচারে গুলি করে হত্যা, আগুন দিয়ে বসতবাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান জ্বালিয়ে তাদেরকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করার মত অমানবিক কার্যক্রমের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশে কর্মরত বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থাসমূহের সমন্বয়কারী সংগঠন “এডাব” গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে।

একই সাথে অবিলম্বে রাখাইন রাজ্যে চলমান নিষ্ঠুরতা বন্ধ করা এবং দ্রুত স্থিতিশীল অবস্থা সৃষ্টির জন্য সে দেশের সরকার প্রধানের প্রতি আহ্‌বান জানান হয়।

সংবাদপত্রে পাঠানো এক বিবৃতিতে এডাব চেয়ারপারসন জয়ন্ত অধিকারী বলেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের উপর নির্দয়, নির্মম ও বর্বরোচিত আক্রমণে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে প্রাণভয়ে হাজার হাজার রোহিঙ্গা শরনার্থী আশ্রয় লাভের আশায় সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশের ভূখন্ডে প্রবেশ করছে।

তিনি জানান, গত ২৫ আগষ্ট থেকে বাংলাদেশের টেকনাফ সীমান্তে প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গার আগমন ঘটেছে যা সীমান্তবর্তী টেকনাফ অঞ্চলে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়ের সৃষ্টি করেছে। অধিক জনসংখ্যার এই ছোট্ট বাংলাদেশে বহিরাগত অতিরিক্ত জনসংখ্যার ভার বহন করার ক্ষমতা নাই। তবুও মানবিক কারণে প্রাণভয়ে পালিয়ে আসা সহায় সম্বলহীন অসহায় মানুষগুলোকে সাময়িক আশ্রয় দিয়ে তাদের জীবন রক্ষা এবং পানি, খাদ্য, স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা জনিত মানবিক সহায়তা করার জন্য সরকারসহ স্থানীয় প্রশাসন, সরকারী-বেসরকারী সংগঠন ও আন্তর্জাতিক সংস্থা সমুহের প্রতি তিনি আহবান জানান।

বিবৃতিতে তিনি পালিয়ে আসা এসব শরনার্থীদেরকে সরকার নিয়ন্ত্রিত আশ্রয় কেন্দ্রে রাখার পাশাপাশি দ্রুত তাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করেন এবং এ বিষয়ে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সংস্থা সমুহের অংশগ্রহণ কামনা করেন।

তিনি আশংকা প্রকাশ করেন যে শরনার্থীদের নির্দিষ্ট স্থানে নিয়ন্ত্রিত রেখে দ্রুত প্রত্যাবাসনের ব্যবস্থা করা না গেলে সমস্যার ব্যপকতা বাড়িয়ে দেবে যা পরবর্তিতে দেশীয় ও আঞ্চলিক নানা ধরণের হুমকির কারণ হয়ে দেখা দিতে পারে।

তিনি বলেন, মানবিক কারণে আশ্রয় পাওয়া রোহিঙ্গাদের এদেশে অবস্থান যেন দীর্ঘস্থায়ী না হয় এবং তাদেরকে যথাসম্ভব স্বল্প সময়ের মধ্যে নিজ দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য মিয়ানমার সরকারের প্রতি কুটনৈতিক পর্যায়ে চাপ বৃদ্ধি এবং এ সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য জাতিসংঘসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ করেন।– প্রেস বিজ্ঞপ্তি

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

gf fdes

উপকূল ও চরাঞ্চল উন্নয়ন বোর্ড গঠনের দাবি

বরিশাল :: বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় সিডর আঘাত হানার এক দশক পূতি উপলক্ষে ...