অব্যাহত ব্যর্থতায় মলিন সরকারের অনেক সফলতা

তিন বছর শেষ করে আজ চতুর্থ বছরে যাত্রা শুরু করলো আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার। অর্ধেকেরও বেশি সময় পার করার পর ডিজিটাল সরকারের সফলতা ও ব্যর্থতার হিসেব-নিকেশ শুরু করছে জনগণ।

ক্ষমতার গত তিন বছরে শিক্ষা, কৃষি, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ ও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে শেখ হাসিনার সরকারের অর্জন উল্লেখ করার মতো। এছাড়া যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরু এবং তথ্য-প্রযুক্তি, টেলিযোগাযোগ ও ক্রীড়া খাতে সরকারের অগ্রগতি আশাপ্রদ।

তবে দেশের সার্বিক অর্থনীতির অস্থিতিশীল অবস্থার প্রভাব পড়েছে জনগণের ওপর। দুই ডিজিটের মূল্যস্ফীতিতে বেড়েছে সার্বিক জীবন যাত্রার ব্যয়। জনগণের সাথে সম্পৃক্ত বিভিন্ন বিষয়ে অব্যাহত ব্যর্থতায় সরকারের সফলতা মলিন হয়ে যাচ্ছে।

এদিকে সরকারের রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে উত্তাপ ছড়িয়েছে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে। বিরোধী দল ও সুশীল সমাজের আপত্তি উপেক্ষা করে সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে সরকার।

এছাড়া ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) ভাগ করার সরকারি সিদ্ধান্ত সমাদৃত হয়নি কোনো মহলে। শেষ দফায় জেলা প্রশাসক হিসেবে দলীয় নেতাদের নিয়োগে অসন্তোষ জানায় সুশীল সমাজসহ প্রায় সর্বস্তরের মানুষ।

এদিকে তিন বছর পূর্তিতেও অপূর্ণ রয়ে গেছে সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের অধিকাংশ প্রতিশ্রুতি। দুর্নীতির অভিযোগে পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংক অর্থায়ন স্থগিত করলে বড় ধাক্কা খায় সরকার। দুর্নীতি দমনের কথা বলে ক্ষমতায় আসলেও এ খাতে সরকারের অর্জন তেমন নেই।

এছাড়া নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি সরকার। উপরন্তু, মূল্যস্ফীতিতে দ্রব্যমূল্য সহ সার্বিক জীবন যাত্রার ব্যয় বেড়েছে কয়েক গুণ। এরপর দফায় দফায় জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি মড়ার ওপর খাড়ার ঘাঁ অবস্থা হয়েছে।

নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেনি সরকার। এছাড়া ‘ক্রসফায়ারের’ জায়গায় গুপ্তহত্যার প্রচলন সরকারকে আরো বেকায়দায় ফেলেছে। র‌্যাবের লাগামও টেনে ধরতে পারেনি মহাজোট সরকার।

এক-এগারো পরবর্তী গণতান্ত্রিক সরকারের আচরণও গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সংরক্ষণে তেমন আশাপ্রদ নয়। বিরোধী দলের রাজনৈতিক কর্মসূচির ওপর চলছে অঘোষিত নিষেধাজ্ঞা। এছাড়া বিরোধীদলীয় নেতা সহ সরকার বিরোধীদের ওপর রয়েছে মামলার খড়গ।

সর্বোপরি, দেশের অর্থনৈতিক খাতে বিরাজ করছে চরম অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে। পুঁজিবাজার কেলেঙ্কারি এতে আগুনে ঘি ঢেলে দেয়ার মতো কাজ করেছে। পাশাপাশি রেমিট্যান্স প্রবাহ হ্রাস, রিজার্ভ ও বাজেট ঘাটতি এবং ডলারের বিপরীতে টাকার মানের রেকর্ড অবনমনে ঝুঁকির মুখে পড়েছে দেশের অর্থনীতি।

তবে মন্ত্রিসভায় রদবদল ও নীতি পরিবর্তনের মাধ্যমে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছে সরকার। এক্ষেত্রে দেশের অর্থনৈতিক দুরবস্থা থেকে উত্তরণ এবং সম্ভাব্য রাজনৈতিক সঙ্ঘাত ঠেকাতে চতুর্থ বছরে সরকারের কাছ থেকে দূরদর্শিতা আশা করে জনগণ।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/স্টাফ রিপোর্টার

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর তিন দফা সুপারিশ উপস্থাপন

ডেস্ক নিউজ :: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকালে এখানে শরণার্থী বিষয়ক বৈশ্বিক প্রভাব ...