ব্রেকিং নিউজ

‘রহিঙ্গা সমস্যা সমাধাণে জাতীয় ঐক্য প্রয়োজন’

াডুৃ্  ুঢাকা :: মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর হাতে নির্বিচারে গণহত্যা, নির্যাতন, ধর্ষণ ও বিতাড়নের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সমস্যা সমাধানে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক।

সর্বদলীয় সংলাপের মাধ্যমে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি ও জাতীয় সংকট মোকাবেলার করণীয় নির্ধারনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আবাসন, স্যানিটেশন, বিশুদ্ধ পানি, চিকিৎসা ও খাবার বিতরণে সবাইকে সমান সুযোগ দিয়ে সরকারকে মানবিকতা রক্ষায় পাশে থাকতে হবে।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের হলরুমে মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের হলরুমে বাংলাদেশ য়ুব কল্যাণ পার্টি’র উদ্যোগে ‘রোহিঙ্গা মানবিক বিপর্যয় ও আমাদের করণীয়’-শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ইবরাহিম বলেন, বলেন, মিয়ানমার সরকার ও  সেনাবাহিনী  সেখানকার আরাকান রাজ্যের নাগরিক রোহিঙ্গাদের হত্যা, নির্যাতন, বসত বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণ করে মানবতা বিরোধী অপরাধ করেছে।

তিনি বলেন, মিয়ানমার  থেকে প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে আসা এসব অসহায়, সহায়-সম্বলহীন মানুষ বাংলাদেশে এসেও খোলা আকাশের নিচে মানবেতর দিনাতিপাত করছে। যা প্রতিদিন মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে।

যুব কল্যাণ পার্টির সভাপতি যুবায়েরুল হক ভুইয়া নাহিদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মাহমুদুল হাসানের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, কল্যাণ পার্টির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব নুরুল কবির ভুইয়া পিন্টু, বিএফইউজে’র সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শহীদুল ইসলাম, বিশিষ্ট আইনজীবী এডভোকেট সাইফুর রহমান, কল্যাণ পার্টি ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদুর রহমান তামান্না, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব আল আমিন ভুইয়া রিপন, সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতা নাসির আল মামুন, রফিকুল ইসলাম কিরন, শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, রহিঙ্গা সমস্যা মোকাবেলায় দেশের সকল রাজনৈতিক দল, সমগ্র দেশবাসী এককাতারে শুধুমাত্র সরকার ছাড়া। তারা নিজেরাই ঐক্যের পরিবর্তে বিভেদের রাজনীতিতে লিপ্ত। ফলে সংকট আরো বেশী ঘনিভূত হচ্ছে।

তিনি বলেন, রহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতীয় ঐক্যের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করতে হবে। কিন্তু দু:খজনক হলেও সত্য সরকার তা করতে পারছে না। আর এ জন্য দায়ি সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতি। কূটনীতিতে সরকার সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ। সরকার আভ্যন্তরিনভাবে জাতীয় ঐক্য গঠনেও ব্যর্থ। ফলে সরকার বন্ধুহীন হয়ে পড়েছে।

তিনি আরো বলেন, রহিঙ্গা সমস্যাকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারের সরকারের অপকৌশল বুমেরাং হতে পারে।  মনে রাখতে হবে বর্তমান সরকারের আইনগত ও নৈতিক ভিত্তি খুবই দুর্বল। আর এই কারনেই আমরা ক্রমেই বন্ধুহীন হয়ে পড়ছি।

আলাল বলেন, রহিঙ্গা সমস্যা সমাধাণে জাতীয় ঐক্য ও সংহতি প্রতিষ্ঠা করতে ব্যর্থ হলে জাতি হিসাবে আমাদের মাসুল দিতে হতে পারে।

ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া বলেন, আমাদের ভাবতে হবে সাম্রাজ্যবাদী শক্তি এখানে আরেকটা প্যালেস্টাইন তৈরি করবার কাজ শুরু করছে কি না ? সুতরাং, রোহিঙ্গা নিয়ে কোনো রাজনীতি করতে চাই না। সরকারের উচিত এই বিষয়ে অবিলম্বে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করা। এই বিষয়ে দেশের সকল রাজনৈতিক দল এক সঙ্গে কাজ করতে প্রস্তুত বলে আমরা বিশ্বাস করি।– প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ফখরুলের গাড়ি বহরে হামলায় নির্বাচন কমিশন বিব্রত: সিইসি

স্টাফ রিপোর্টার ::  নির্বাচনী প্রচারণার প্রথমদিনেই সহিংসতা ও হামলার ঘটনায় বিশেষ করে ...