‘রমজান ভাই পাবলিক ফিগার’

‘রমজান ভাই পাবলিক ফিগার’স্টাফ রিপোর্টার :: এটিএন বাংলার ঈদ অনুষ্ঠানমালায় ঈদের তৃতীয় দিন রাত ৮.৩০ মিনিটে প্রচার হবে বিশেষ নাটক ‘রমজান ভাই পাবলিক ফিগার’।

আপেল মাহ্মুদের রচনায় নাটকটি পরিচালনা করেছেন শেখ সেলিম। বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান, তানিয়া বৃষ্টি, আব্দুল্লাহ রানা, খলিলুর রহমান কাদেরী, আনন্দ খালেদ, মোশাররফ হোসেন, অরণ্য বিজয় প্রমুখ।

নাটকের গল্পে দেখা যাবে- রমজান ভাই পাড়ার বড় ভাই। কিছুটা মাস্তান টাইপের, কুকুর ছাড়া আর কাউকেই ভয় পাননা। দুলাল আর শুভ দু’জনেই তার শিষ্য। রমজান ভাইয়ের আরেকজন শিষ্য হচ্ছে সাকিব। রমজান ভাইয়ের একটা ফেসবুক আইডি আছে। আইডিটা সাকিব খুলে দিয়েছে। আইডিতে রমজান ভাইয়ের একটা বড় ভাই বড় ভাই ভাবের ছবি দেয়া আছে। সেখানে প্রায় হাজার তিনেক মানুষ তাকে ফলো করে। আইডিটা ব্যবহার করে সাকিব। রমজান ভাই ফেসবুকে যা আপডেট দেয় তা আসলে সাকিব ই পোস্ট করে। রমজান ভাই পাড়ায় সবার কাছে সমীহ পায়। ফেসবুক হোক আর পাড়ার জুনিয়রদের সমীহ থেকেই হোক রমজান ভাই নিজেকে একটা পাবলিক ফিগার মনে করে। রমজান ভাইয়ের একটাই টেনশন, নাঈমা।

নাঈমা পাড়ার সবচেয়ে সুন্দরী মেয়ে আর রমজান ভাইয়ের প্রেমিকা। প্রেমিকা মানে ওয়ান সাইডেড আরকি। রমজান ভাই এই একজনের কাছেই মোমের মত নরম হয়ে যান। নাঈমা অবশ্য রমজান ভাইকে গুরুত্ব দেননা তেমন একটা। নাঈমার একটি সাদা রঙের বিদেশী কুকুর আছে। ওটাকে কুকুর বলে ডাকলে অবশ্য নাঈমা অনেক ক্ষেপে যায়। ওটার নাম বাদশাহ। বাদশাহ রমজান ভাইয়ের শত্র“। রমজান যে কয়দিন নাঈমার সাথে কথা বলার মত সুযোগ তৈরি করেছিল তার সব কটাই ভেস্তে গেছে বাদশাহ’র কারণে। একসময় রমজান ভাই নাওয়া খাওয়া ছেড়ে দিল। আর এই তথ্য জানানোর জন্য দুলাল, শুভ আর সাকিব নাঈমার বাড়িতে গেল। কিন্তু কুত্তার দাবড়ানী খেয়ে পালিয়ে এল।

এমনাবস্থায় সাকিব হঠাৎ একদিন রমজান ভাইকে একটা খুশীর খবর জানালো। নাঈমা ভাবীর একটা ফেসবুক আইডি আছে। সাকিব রমজান ভাইয়ের অনুমতি নিয়ে নাঈমা ভাবীকে একটা ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠালো। এভাবেই মজার ঘটনার মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলে নাটকের কাহিনী।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

সোহেল মেহেদী ও উপমার ‘ভালোবাসি বলবো তোকে’

সোহেল মেহেদী ও উপমার ‘ভালোবাসি বলবো তোকে’

স্টাফ রিপোর্টার :: ‘ভালোবাসি বলবো তোকে/ দিন যায় বলি বলি করে’ এমন ...