রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র জোটের মিছিলে ছাত্র লীগ ক্যাডাদের হামলা:আহত ২০

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশের সহায়তায় ছাত্রলীগের ক্যাডাররা হামলা চালিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের মিছিলে। এ সময় কমপক্ষে ২০ জন আহত এবং ৩ ফটো সাংবাদিক ছাত্রলীগের ক্যাডারদের হাতে লাঞ্চিত হয়েছে। ছাত্রলীগের সন্ত্রাসিরা তাদের ক্যাম্পাস থেকে বিতারিত করে ব্যানারে আগুন ধরিয়ে দেয় বলে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতার অভিযোগ করেন। বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ১১টার দিকে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ব্যানারে নতুন সেশনে ভর্তি ফি বাড়ানোর প্রতিবাদে মিছিল বের করা হলে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। এসময় ছাত্রলীগের ক্যাডারার মিছিলে হামরা চালালে এই উদ্ভূত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তবে সেখানে এখনও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

আন্দোলনরত প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতারা ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১১-১২ শিক্ষা বর্ষে অনার্স প্রথম বর্ষ ভর্তি ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। এবার প্রতিটি অনুষদে ভর্র্তি ফি দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এর প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ব্যানারে ছাত্র ফ্রন্ট, ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্র মৈত্রী একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এসময় আওয়ামীলীগ সমর্থিত ছাত্রলীগ ক্যাডাররা তাদের মিছিলে সশস্ত্র হামলা চালায়। তাদের অভিযোগ পুলিশ তাদের নিবৃত করার চেষ্টা করে বরং তাদের সহযোগিতা করেছে। হামলায় বেশ কয়েকজন আহত হন। এনিয়ে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এর কিছু পর আবার ছাত্রনেতারা সংগঠিত হয়ে মিছিল বের করার চেষ্টা করেও পুলিশের ভূমিকার কারনে করতে পারেনি। তৃতীয় দফায় আবারও মিছিল বের হলে ছাত্র লীগ ক্যাডাররা তাদের ক্যাম্পাস থেকে বিতারিত করে এবং প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ব্যানারে আগুন ধরিয়ে পুড়িয়ে দেয়। এদিকে, রংপুরে কর্মরত ফটো সাংবাদিকরা মিছিলে ছাত্রলীগের হামলার ছবি ক্যামেরাবন্দি করার সময় ছাত্রলীগের নুর আলম লিটন ও অন্যান্য নেতারা তাদের ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে এবং লাঞ্চিত করে। পটো সাঙবাদিকরা হলেন যুগান্তরের শাহিদুর রহমান শাহিদ, কালের কন্ঠের নিরঞ্জন চক্রবর্তী ও মায়াবাজারের আরমান হক। এর পর উপস্থিত সাংবাদিকদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এগিয়ে এসে ছাত্রলীগ নেতাদের শান্ত করতে ব্যর্থ হয়।

ছাত্রনেতা আহসানুল আরেফিন তিতু জানান, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রায় ২ ঘন্টা ধরে ছাত্রলীগ ক্যাডারদের হামলায় কমপক্ষে ২০ জন ছাত্র আহত হয়। তারা সাংবাদিকদেরও লাঞ্চিত করে। এদের মধ্যে রয়েছেন বিশ্বাবদ্যালয় শাখা ছাত্র ফ্রন্টের উৎপল কুমার মোহন্ত, আহসান হাবিব, মনোয়ার হোসেন, বাবুল হোসেন, শাহজাহান, ফাহিম, রুবেল, ছাত্র ইউনিয়নের উজ্জ্বল রায়, কৃষ্ণ চন্দ্র, নাছির, মনিরা, সুমন কুমার।

এদিকে বেলা ২টার দিকে শহরে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে পরে জাহাজ কোম্পানী মোড়ে এক পথসভা করে। পরে রংপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সংবাদ সম্মেলন করে ছাত্রলীগ ক্যাডারদের নৃশংস হামলার বিচার দাবি করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বাসদের পলাশ কান্তি নাগ, ছাত্র ফ্রন্টের  আহসানুল আরিফ তিতু, রোকুনুজ্জামান, ছাত্র ইউনিয়নের বকুল চন্দ্র রায়, মাহমুদ হোসেন জুয়েল, এস এম শিশির প্রমূখ।

ছাত্র জোটের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সন্ত্রাসি হাদীউজ্জামান হাদী ও মেহেদী হাসান শিশির, লিটন, ইমতিয়াজ, রুবেল এর নেতৃত্বে সন্ত্রাসিরা হকিস্টিক, রাম দা ও লোহার রড দিয়ে প্রশাসনের উপস্থিতিতে তাদের উপর হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক ও পুলিশের  ভূমিকা ছিল রহস্যজনক। ছাত্রলীগ হাদীউজ্জামান হাদী ও মেহেদী হাসান শিশির হামলার কথা স্বীকার করে করে বলেন, প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ব্যানারে ছাত্র শিবির মিছিল করে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস অশান্ত করার চেষ্টা করা করছিল। তবে এই মিছিলে ছাত্র শিবিরের কারা কারা ছিল সে সম্পর্কে তারা স্পষ্ট করে কিছুই বলতে পারেননি। তারা বলেন, গরীব মেধাবী ছাত্রদের জন্য ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আমরা ভর্তি ফি বাড়াতে বলেছি। কতৃপক্ষ আমাদের কথা রেখেছে।

ফটো জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি শাকিল আহম্মেদ ও সাধারণ সম্পাদক শাহিদুর রহমান শাহিদ ফটো সাংবাদিকদের উপর ছাত্র লীগের ক্যাডারদের হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

কোতয়ালী থানার ওসি আলতাফ হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কমকে বলেন, ক্যাম্পাসে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার শাহজাহান আলী মন্ডল নতুন সেশনে ভর্তি ফি বাড়ানোর কথা স্বীকার করে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে যাতে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি না ঘটে এজন্য অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে ।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/জহুরুল ইসলাম জহির/রংপুর

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

অ্যালবার্ট আইনস্টাইন

বিখ্যাতদের দাম্পত্য জীবন- ৮: অ্যালবার্ট আইনস্টাইন

সাইদুর রহমান  :: কথায় আছে, “যার নয়নে যারে লাগে ভালো, হোক না দেহ ...