মৃত ব্যক্তির জমিয়ে রাখা শুক্রাণুতেই যমজ শিশুর জন্ম

প্রথমেশের মা ও বোনের কাছে দুই শিশু

প্রথমেশের মা ও বোনের কাছে দুই শিশু

ডেস্ক নিউজ :: ক্যান্সারে মারা যাওয়া পুত্রের জমিয়ে রাখা শুক্রাণু থেকেই ভারতের এক দম্পতি ফিরে পেয়েছেন ছেলেকে। তাদেরই এক আত্মীয়ার গর্ভে সেই শুক্রাণু থেকে তৈরি ভ্রূণ প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে জন্ম নিয়েছে যমজ সন্তান, একটি পুত্র, একটি কন্যা।এ খবরটি আজ প্রকাশ করেছে বিবিসি। 

পুনে শহরের ইঞ্জিনিয়ার প্রথমেশ পাটিল জার্মানিতে পড়াশোনা করতে গিয়েছিলেন, সেখানেই তার ক্যান্সার ধরা পড়ে। ভারতে ফিসে এসে বছর তিনেকের চিকিৎসার পরে তিনি মারা যান।
প্রথমেশের মা রাজশ্রী পাটিল পেশায় স্কুল শিক্ষিকা। তিনি বলেন, চিকিৎসা শুরুর আগেই জার্মানির একটি স্পার্ম ব্যাঙ্কে জমিয়ে রাখা ছিল তার ছেলের শুক্রাণু। তা থেকেই আবারও ঘরে ফিরে এসেছে প্রিয় পুত্র।
ক্যান্সারের সঙ্গে বছর তিনেক লড়াই করার পরে যখন পুনে শহরের বাসিন্দা ২৭ বছরের যুবক প্রথমেশ পাটিল মারা যান ২০১৬ সালে, তখন যে শুধু তার বাবা-মা-বোন, বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়-স্বজন সবাই মানসিক বিপযুস্ত হয়ে পড়েছিলেন।
রাজশ্রী পাটিল বলেন, মনে করতাম ছেলে সামনেই আছে। ওর ঘরে শুধুই ছবি রেখে দিয়েছি। সবসময়ে ছেলের একটা ছবি নিজের কাছেও রাখি। এমন কি কোনও কিছু খেলেও, সামনে থাকে প্রথমেশের ছবি। হঠাৎই একদিন মনে হয় ছেলের শুক্রাণু তো জমিয়ে রাখা আছে জার্মানিতে। সেটা দিয়েই তো কৃত্রিম প্রজননের সাহায্যে আমিই ফিরিয়ে আনতে পারি প্রথমেশকে।
শুক্রাণু দেশে এনে কৃত্রিমভাবে ভ্রূণ প্রজনন ঘটিয়ে তিনি নিজের গর্ভে প্রতিস্থাপন করাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু চিকিৎসকরা তাতে সম্মতি দেন নি। তখনই তার এক সম্পর্কিত বোন এগিয়ে আসেন।
প্রথমেশের জমিয়ে রাখা শুক্রাণু থেকে ভ্রূণ তৈরি করে সেই আত্মীয়ার গর্ভে প্রতিস্থাপন করা হয়, যাকে আই ভি এফ পদ্ধতি বলা হয়। সেই আত্মীয়ার গর্ভেই থেকে ১২ই ফেব্রুয়ারি জন্ম নিয়েছে এক যমজ।
যে চিকিৎসক পুরো প্রক্রিয়াটি চালিয়েছেন ডা. সুপ্রিয়া পুরাণিক। তিনি বলেন, প্রথমে তো জার্মানি থেকে প্রথমেশের রেখে যাওয়া শুক্রাণুটা নিয়ে আসাই একটা বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। যদিও ঠিকমতো রাখলে কখনও শুক্রাণু নষ্ট হয় না। কিন্তু অনেকগুলো জটিল আইনি ব্যাপার এর মধ্যে জড়িত আছে। প্রথমেশের মার গর্ভে ওই ভ্রূণ প্রতিস্থাপন সম্ভব হত না। তার যে আত্মীয়ার গর্ভধারণ করেছেন, তিনি প্রথমবারের চেষ্টাতেই যমজ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন।
Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বছরে আত্মহত্যায় মারা যায় ৮ লাখ মানুষ

নিউজ ডেস্ক :: প্রত্যেক বছর প্রায় ৮,০০,০০০ মানুষ আত্মহত্যা করেন। । এমনটাই ...