মা ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞা প্রচার-প্রচারণা নেই প্রশাসনের

মা ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞা প্রচার-প্রচারণা নেইশিপু ফরাজী,রফ্যাসন (ভোলা) প্রতিনিধি:: মনপুরা উপকূলে মেঘনায় মা ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞার প্রচার-প্রচারণা নেই প্রশাসনের। সচেতনতা সভা ও প্রচার-প্রচারণার অভাবে অধিকাংশ জেলেই জানেনা নিষেধাজ্ঞার সময়। জেলেরা সবাই ইলিশ শিকারে মেঘনায় যাবেন বলে জানান একাধিক জেলে। তবে মৎস্য অফিস ও ইকোফিসের দূর্বল প্রচার-প্রচারণার অভাবে ইলিশ প্রজনন মৌসুমের নিষেধাজ্ঞা ভেস্তে যেতে পারে বলে আশংকা করছেন সচেতন মহল।

তবে সদ্য যোগ দেওয়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবদুল গাফ্‌ফার জানান, আমি দুই দিন হয়েছে মনপুরায় যোগদান করেছি। তবে প্রচার-প্রচারণা হয়েছে। এব্যাপারে মাইকিং করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

অপরদিকে একাধিক জেলেরা জানান, তারা কোন মাইকিং শুনেনি। এমনকি তাদের সাথে কোন সভা-সেমিনার করেনি প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, ১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত মেঘনায় সকল প্রকার মাছ ধরা, বিক্রি, পরিবহন ও মজুদ সম্পূর্ন নিষেধাজ্ঞা জারী করা হয়।

সরেজমিনে ২০টি মৎস্য ঘাটে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার ছোট-বড় ২০টি মৎস্য আড়তদের মধ্যে মাত্র চারটি মৎস্য আড়তে নাম মাত্র প্রচার করেছে উপজেলা মৎস্য অফিস ও ইকোফিস কর্মকর্তারা। অন্যদিকে ১৬ টি মৎস্য আড়তের জেলে ও আড়তদারদের সাথে কোন সভা-সেমিনার ও প্রচার-প্রচার করা হয়নি বলে জানান আড়তদার ও জেলেরা। এই সমস্ত ঘাটের হাজার হাজার জেলেরা জানেনা কবে থেকে শুরু হচ্ছে মা ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞা।

মনপুরা উপকূলে দূর্বল প্রচার-প্রচারণার কথা স্বীকার করে ইকোফিস কর্মকর্তা কামরুল আহসান জানান, চারটি ঘাটে প্রচার-প্রচারণা করা হয়েছে। অপর ১৬ টি ঘাটে এখনো প্রচার-প্রচারণা করা হয়নি।

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বুলেট ট্রেনে

বাংলাদেশ হয়ে কলকাতা পর্যন্ত বুলেট ট্রেনের পরিকল্পনা চীনের

ডেস্ক নিউজ :: সড়ক, রেল ও জলপথে প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ বাড়াতে ...