মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতায় বান্দরবানের কাউসার সেরা

মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতায় বান্দরবানের কাউসার সেরাএনামুল হক কাশেমী, বান্দরবান প্রতিনিধি:: রাংগামাটির দুর্গম সুউচ্চ পবর্তমালা সাজেক থেকে বান্দরবান ২২০ কিমি পাহাড়ি পথ পেরিয়ে রাতে বিরতির পর সোমবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত টানা আরও ৮০ কিলোমিটার দুর্গম পাহাড়ি সড়ক অতিক্রম করেই থানচি উপজেলা সদরে পৌঁছেছেন বিজয় দিবসের ৪৩জন মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগী।

সুত্র জানায়,তাদের মধ্যে বান্দরবানের সন্তান কাউসার আহমেদ দ্বিতীয়স্থান অধিকার করেছেন। তিনি দুপুর ১২টা ৪০মিনিটেই বাইক চালিয়ে পৌঁছে যান গন্তব্যে থানচি উপরজলা সদরে। তিনি তার সহযোগীদের সাথে যাত্রা করেন সোমবার সকাল ৮টায় বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চত্বর থেকে এবং তিনি ৪ঘন্টা ৩৫মিনিটের মাথায় নির্বিঘ্নে পৌঁছান গন্তব্যে। বাইক প্রতিযোগীতায় জাতীয় দলের মিজানুল আজম প্রথমস্থান অধিকার করেন তিনি থানচিতে পৌঁছান সাড়ে ৪ঘন্টার মাথায় এবং তৃতীয়স্থান অধিকাররী ঢাকার আল-আমিন গন্তব্যে পৌঁছান ৪ঘন্টা ৪৫মিনিটের মাথায়।

বান্দরবান সদরের পার্বত্য জেলা পরিষদ প্রাংগন থেকে যাত্রা করেন বিজয় দিবসের মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ৫জন মেয়েসহ ৪৩জন প্রতিযোগী। পাহাড়ের পর্যটনকে উৎসাহিত করার পাশাপাশি সাইকেল চালানোর মাধ্যমে সুস্থ্য দেহ মন গড়ে তোলা এবং সাধারন মানুষকে উদ্বুদ্ব করার লক্ষ্যে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে বলে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং মাউন্টেইন অ্যাডভেঞ্চার ক্লাব সুত্র জানা গেছে।

সোমবার সকাল ৮টায় বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চত্বরে এই প্রতিযোগিতার উদ্ধোধন করেন পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক,পার্বত্য চট্রগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উপসচিব শাহিন রেজা ও সুবিনয় ভট্রাচার্য,পুলিশ সুপার সজ্ঞিত কুমার রায়,জেলা পরিষদের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মো.শহিদুল আলম,অতিরিক্ত পুুিলশ সুপার মো.কামরুজ্জামান। জেলা পরিষদ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিযোগিতায় পার্বত্য বান্দরবান,রাংগামাটি এবং খাগড়াছড়িসহ,ঢাকা ও দেশের অন্যান্য জেলার মোট ৫৩ জন প্রতিযোগী অংশ গ্রহণ করেন প্রথমে। সাজেক থেকে বান্দরবান পৌঁছা পর্যন্ত নানান কারণে ঝরে পড়েন ১০জন বাইক প্রতিযোগী। বাকি ৪৩জন প্রতিযোগী বান্দরবান জেলা সদর থেকে সোমবার বিকেলেই থানছিতে গিয়ে পোঁছান।

থানচি উপজেলা সদরে প্রতিযোগীরা পোঁছালে পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈ হ্লা এবং অন্যান্য কর্মকর্তারা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান। পরিষদ চেয়ারম্যান প্রতিযোগিতায় প্রথম,দ্বিতীয় ও তৃতীয়স্থান অধিকারীদের প্রত্যেককে ১ হাজার ইউএস ডলার করে পুরস্কার বিতরণ করেন। বিজীয় এ তিনজনকে নেপালের মাউন্টেইন বাইক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্যে পাঠানো হবে জানিয়েছেন বাংলাদেশ
মাউন্টেইন অ্যাডভেঞ্চার অ্যাসোসিয়েশন ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান।

বান্দরবান জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা জানান, পার্বত্য চট্রগ্রামের সড়কগুলো মাউন্টেইন বাইকের জন্য খুবই উপযোগী। গত বছরের মত এবারও এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এবার সাজেক থেকে থানছি পর্যন্ত প্রায় ৩’শ কিলোমিটার সড়কে প্রতিযোগিরা সাইকেল চালানোর সুযোগ পেয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বাংলাদেশিদের ‘উইপোকা’ বললেন বিজেপি সভাপতি

ডেস্ক রিপোর্ট :: ভারতীয় জনতা দল-বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ বলেছেন, ‘‘বাংলাদেশি অভিবাসীরা ...