বৃক্ষ মানবের শরীরে ফের গজাচ্ছে শিঁকড়

বৃক্ষ মানবের শরীরে ফের গজাচ্ছে শিঁকড়মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :: বিরল ইপিডারমোসিপন্টাসিয়া ভেরুসিফরমিস রোগে আক্রান্ত বৃক্ষ মানব হিসাবে পরিচিতি আবুল বাজনদারে শরীরে ফের গজাচ্ছে শিঁকড়। গত বছর ১৬ দফার সফল অস্ত্রপচারে সম্পূর্ণ সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফেরা আবুলের হাত-পায়ে ফের গজাতে শুরু করেছে গাছের শিকড়ের ন্যায় অদ্ভূত শ্বাসমূল বস্তু। আর এতে নতুন জীবনে ডাক্তারদের পূণর্বাসনে মাথা গোঁজার ঠাঁই পাওয়া আবুলের মনে নতুন করে নানা আশঙ্কা দানা বেঁধেছে। বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদেরকেও। ১৬ বারের সফল অস্ত্রপচারে শরীরের ৫ কেজি ওজন কমেছিল তার। পুরনো দুঃস্মৃতিকে মনে করে বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন আবুলের আশঙ্কা, হয়তোবা বিরল ব্যধি আমৃত্যু পিছু ছাড়বেনা তার। সর্বশেষ এমন পরিস্থিতিতে সন্তানের হাত ধরে স্বাভাবিক চলাফেরার অভূতপূর্ব অনুভূতি বার বার আপ্লুত করছে তাকে।

খুলনার পাইকগাছা পৌরসভায় সরল গ্রামের মানিক বাজনদারের ৪ ছেলে ও চার মেয়ের মধ্যে আবুল ৬ষ্ঠ। পারিবারিক সূত্র জানায়, ১০ বছর বয়স থেকে সে বিরল রোগ হিউম্যান পাপ্পিলোমা ভাইরাসে (এইচপিভি) আক্রান্ত হলে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে গাছের শিকড়ের ন্যায় গজাতে থাকে। এক সময় শীরের অতিরিক্ত ভারে চলাচল পর্যন্ত বন্ধ হয়ে যায় তার। স্থানীয় পর্যায়ে নানা রকম চিকিৎসা করিয়ে সহায়-সম্বল ও সর্বশেষ বসত-ভিটা পর্যন্ত বিক্রি করে একেবারে নিঃস্ব হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে স্বজনরা তাকে নিয়ে ভ্যানে করে বাজারে বাজারে ভিক্ষা করে সংসারের খরচ ও স্থায়ভাবে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন।

এমন পরিস্থিতিতে দেশের প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশে বর্তমান সরকার মানবিক দৃষ্টি কোন থেকে তার চিকিৎসার সকল দায়িত্ব নেন। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর থেকে সরকারি তত্ত্বাবধানে তাকে ভর্তি করা হয় ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে। এখনো তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। জরুরী প্রয়োজনে আনঅফিসিয়ালি মাঝে মাঝে বাড়িতে আসেন।

চিকিৎসকরা জানান, বিশ্বে ওয়ার্ট রোগে আক্রান্তের সংখ্যা এখনও পর্যন্ত চারজন। এমন বিরল রোগ সাধারণত জিনগত কারণে হয়ে থাকে বলেই মনে করেন তারা। পাপ্পিলোমা ভাইরাস মানুষের শরীরে একশ উপায়ে আক্রমণ করতে পারে। এর মধ্যে ৩০ শতাংশই যৌনাঙ্গে আক্রমণ করে থাকে। সব ধরনের এইচপিভি ভাইরাসের কারণে শরীরে আঁচিল হতে পারে। এর আগে ডিএমসিএইচর বার্ণ ইউনিটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, এ ধরনের অসুখ বাংলাদেশে এই প্রথম এবং গোটা বিশ্বে বিরল। ইতোপূর্বে ২০০৭ ও ২০০৯ সালে মাত্র দু’জন এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। এদের একজন ইন্দোনেশিয়া ও অপরজন রোমানিয়ান।

এ ধরণের রোগীকে সাধারণত ‘বৃক্ষ-মানব’ বলা হয়ে থাকে। ২০১৫ সালে যে সময় আবুলকে ঢাকায় বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয় তার সপ্তাহ খানেক পূর্বে ইন্দোনেশিয়ায় বিরল রোগে আক্রান্ত কসওয়ারা দেদে নামে একজনের মৃত্যু হয়। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে ঢাকার বার্ণ ইউনিটের (ডিএমসিএইচ) চিকিৎসকরা বাজানদারের চিকিৎসায় বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে বোডের্র সফল অস্ত্রপচারে আবুলের সুস্থ্যতা গোটা চিকিৎসা জগতের বিরল সাফল্য এনে দিয়েছিল।

এদিকে আবুল বাজনদার তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, অসুস্থ্য অবস্থায় অসহ্য যন্ত্রণা হত আক্রান্ত স্থানে। একমাত্র ঠিকানা ভ্যান গাড়িতে শুয়ে কখনও ভাবা হয়নি নতুন জীবনে ফেরা আর। তবে জীবনের খারাপ দিনগুলোতে দেশবাসীর পাশাপাশি স্ত্রীকে পাশে পেয়েছিলেন তিনি। স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়ায় উঠে আসে বিষয়টি। ফের মাথাচাড়া দিচ্ছে সেই রোগ। দুঃসহ যন্ত্রণা কি তবে ফের থাবা বসাবে তার জীবনে? নতুন করে হাত-পায়ের আঙুলগুলো কি ঢেকে যাবে অদ্ভুত শিঁকড়ে? এমন আশঙ্কায় বার বার তাড়া করে ফিরছে বৃক্ষ মানব আবুল ও তার পরিবারে।

অন্যদিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মেডিকেল টিমের অন্যতম সদস্য অধ্যাপক ডা. কবির চৌধুরী জানতে পারেন যে, আবুলের বসবাসের জন্য কোনো জায়গা নাই। এরপর তিনি জমি কিনে বাড়ি করার জন্য আবুলকে সহযোগিতা করতে এগিয়ে আসেন।

চিকিৎসকের আর্থিক সহায়তায় আবুল ২০১৬ সালের জুনে পাইকগাছা পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সরল মৌজায় শিক্ষক মাখন লাল গংদের নিকট থেকে ২টি কোবলা দলিল মূলে এস এ ৬৩০ দাগ সহ ভিন্ন দাগে প্রায় ১১ শতক জমি ক্রয় করে কোনো রকমে বসত বাড়ি নির্মাণ করে সেখানে গত ৩ মাস ধরে বসবাস শুরু করছেন তার পরিবার। তবে বাড়ির কোনো যাতায়াতের পথ না থাকায় পরিবার-পরিজনের অবরুদ্ধ হয়ে পড়ার খবরে আন অফিসিয়ালি দু’দিনের জন্য বাড়ি এসেছিলেন আবুল।

ঐসময় তিনি জানান, প্রতিবেশী নজরুল ইসলাম তার যাতায়াতের পথে একটি খুপড়ি ঘর তৈরি করায় তাদের যাতায়াতের পথটি রুদ্ধ হয়। পরে বিষয়টি পাইকগাছা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে বিষয়টি অবহিত করলে তার হস্তক্ষেপে দখলমুক্ত হয় রাস্তাটি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

১২ নভেম্বর কথা শুনলে আজও আঁতকে উঠি

১২ নভেম্বর কথা শুনলে আজও আঁতকে উঠি

এম শরীফ আহমেদ, ভোলা থেকে :: ভোলার মনপুরা উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের  ৯নং ...