বিপিএলের শীর্ষ ১০ বোলার

image_171152_0বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) চতুর্থ আসরের প্লে অপ পর্বের জন্য ৪ দল ইতোমধ্যে নির্ধারিত হয়ে গিয়েছে। দলগুলো হলো- ঢাকা ডায়নামাইটস, খুলনা টাইটান্স, চিটাগাং ভাইকিংস এবং রাজশাহী কিংস।

এবারের আসরে বোলিংয়ে দেশি-বিদেশি মিলিয়ে বেশ কয়েকজন বোলারই ভালো করেছেন। তবে এদের মধ্যে এগিয়ে থেকেও ইনজুরির কারণে ছিটকে পড়েছেন ঢাকার হয়ে খেলা মোহাম্মদ শহীদ। ৮ ম্যাচে ১৫ উইকেট নিয়ে সবার ওপরে ছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটসের এই পেসার।

তবে ইনজুরির কারণে শহীদ ছিটকে পড়ায় শীর্ষ উইকেটশিকারি হওয়ার স্বপ্ন ভেঙে যায় শহীদের। তিনি ছিটকে পড়লেও এ দৌড়ে লড়াই দারুণ জমে উঠেছে। মোহাম্মদ নবী, শহীদ আফ্রিদি, ডোয়াইন ব্রাভো ও তাসকিন আহমেদ এই লড়াইয়ে দারুণভাবে লড়ছেন।

শহীদ ৮ ম্যাচে ১৫ উইকেট নেয়ার পথে ওভারপ্রতি রান দেন ৬.৮৮ করে। উইকেটপ্রতি তিনি রান খরচ করেছেন গড়ে ১২.৪৬। সেরা বোলিং ফিগার ৩/২১।

গ্রুপ পর্বের ১২ ম্যাচ শেষে আপাতত ১৮ উইকেট নিয়ে সবার ওপরে রয়েছেন আফগান অলরাউন্ডার নবী। চিটাগাং ভাইকিংসের হয়ে খেলছেন তিনি সমান ম্যাচে ১৮ উইকেট নিয়েছেন শফিউলও।

খুলনার এই পেসারও সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির দৌড়ে দারুণভাবে টিকে রয়েছেন। খুলনা শীর্ষ দুইয়ে থাকায় উইকেটসংখ্যা বাড়িয়ে নেয়ার জন্য কমপক্ষে দুটি ম্যাচ পাচ্ছেন শফিউল।

এ দৌড়ে পিছিয়ে নেই পাকিস্তানের অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদিও। তিনি ১৭ উইকেট নিয়ে তৃতীয় স্থানে থেকে সেরা পাঁচ উইকেটশিকারির দৌড়ে দারুণভাবে টিকে রয়েছেন। তবে গ্রুপ পর্ব থেকে রংপুর বিদায় নেয়ায় এখানেই থেমে যেতে হচ্ছে পাকিস্তানের ড্যাশিং অলরাউন্ডারকে।

১১ ম্যাচে ১৭ উইকেট নেয়া ডোয়াইন ব্রাভোর মন্দ কপালই বলা যায়। রোববার গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটস এই ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান অলরাউন্ডারকে বিশ্রাম দেয়। ফলে নিজের উইকেটসংখ্যা বাড়িয়ে নিতে পারেননি ব্রাভো। তবে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির দৌড়ে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে দুই থেকে তিনটি ম্যাচ পাবেন তিনি।

১২ ম্যাচে ১৬ উইকেট নিয়ে তালিকার পাঁচ নম্বরে রয়েছেন জুনায়েদ খান। খুলনা টাইটান্স প্লে-অফে জায়গা করে নেয়ায় সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হওয়ার দৌড়ে দুটি থেকে তিনটি ম্যাচ পাচ্ছেন পাকিস্তানের এই পেসার। আর শহীদ রয়েছেন ৬ নম্বরে।

১০ ম্যাচে ১৫ উইকেট নেয়া তাসকিন রয়েছেন তালিকার ৭ নম্বরে। চিটাগাং ভাইকিংসের এই পেসার সর্বোচ্চ উইকেটশিকারির দৌড়ে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে কমপক্ষে একটি ম্যাচ পাচ্ছেন। ম্যাচের সংখ্যা বেড়ে দুই কিংবা তিনেও উন্নীত হতে পারে। রুবেল হোসেনও ১২ ম্যাচে নিয়েছেন ১৫ উইকেট। চিটাগাংয়ের হয়ে তিনিও সংখ্যাটাকে বাড়িয়ে নেয়ার সুযোগ পাবেন। তাসকিন রয়েছেন সাত নম্বরে; রুবেলের অবস্থান আটে।

আরাফাত সানি ১৩ উইকেট নিয়ে ৯ নম্বরে এবং সমান উইকেট নিয়ে রশিদ খান রয়েছেন ১০ নম্বরে। তবে আসর থেকে রংপুরের বিদায় নেয়ায় সানিকে এখানেই থামতে হচ্ছে। কুমিল্লা বিদায় নেয়ায় রশিদকেও এ দৌড় থেকে ছিটকে পড়তে হয়েছে।

এ ছাড়া রাজশাহী কিংসের আবুল হাসান রাজু (১০ ম্যাচে ১২ উইকেট), চিটাগাং ভাইকিংসের ইমরান খান (৯ ম্যাচে ১১ উইকেট) এবং রাজশাহী কিংসের মেহেদী হাসান মিরাজ (১২ ম্যাচে ১১ উইকেট) নিয়ে শীর্ষে দশে ঢোকার অপেক্ষায় রয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মুশফিকের সামনে শুধুই কোহলি

ষ্টাফ রিপোর্টার ::  এশিয়া কাপ ক্রিকেটের ১৪তম আসরের প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে ...