‘বাংলাদেশের যত অর্জন সব আওয়ামী লীগের হাত দিয়ে’

‘বাংলাদেশের যত অর্জন সব আওয়ামী লীগের হাত দিয়ে’তানসেন আলম, বগুড়া প্রতিনিধি :: বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য জননেতা আব্দুল মান্নান এমপি বলেছেন, উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য আওয়ামী লীগ সরকারের কোন বিকল্প নেই। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে পদ্মাসেতুর ন্যায় বৃহৎ কর্মসূচি নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়িত হয়।

এছাড়াও রূপপুর পারমাণবিক কেন্দ্র, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র ও সমুদ্র বিজয় সম্ভব হয়। প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঝড়, জলোচ্ছাস, বন্যায় মানুষ সর্বাত্মক সহায়তা পায়। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশের অর্থনীতি স্বাবলম্বী হয়। মানুষের মৌলিক অধিকারসহ সমস্ত গণতান্ত্রিক অধিকার সংরক্ষিত থাকে।

আওয়ামী লীগ এমন একটি রাজনৈতিক দল যার হাতে রক্তের কোন দাগ নেই। নির্বাচন ছাড়া আওয়ামী লীগ কখনই ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়নি। বন্দুকের নল দিয়ে যারা ক্ষমতায় এসেছিল, তারাই আজকে আমাদেরকে গণতন্ত্রের ছবক দেয়। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। বিএনপি-জামায়াত নির্বাচন ছাড়াই ক্ষমতায় যেতে চায়। এতদিন তারা নির্বাচন নির্বাচন করে পাগল হলেও এখন আবার তত্ত্বাবধায়কের আদলে সহায়ক সরকারের রূপরেখা বাস্তবায়নের কথা বলে। তারা কি চায় তা তারা নিজেরাই জানে না। রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারাবিশ্ব যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসায় পঞ্চমুখ তখন বিএনপি-জামায়াত অহেতুক সরকারের ব্যর্থতার কথা বলে। বিরোধীতা করাই তাদের মূল কাজ। সরকার মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে।

শুক্রবার জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সকাল ৮টায় র‌্যালী শেষে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলি বলেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান মজনু, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ডা. মকবুল হোসেন, তোফাজ্জল হোসেন দুলু, এ্যাড. আব্দুল মতিন, এ্যাড. মকবুল হোসেন মুকুল, এ্যাড. আমানুল্লাহ, শাহ আব্দুল খালেক, রাগেবুল আহসান রিপু, টি জামান নিকেতা, মুঞ্জরুল আলম মোহন, আসাদুর রহমান দুলু, এ্যাড. তবিবর রহমান তবি, এ্যাড. সাইফুল ইসলাম, শাহ আখতারুজ্জামান ডিউক, এ্যাড. জাকির হোসেন নবাব, এ্যাড. শফিকুল ইসলাম আক্কাস, শাহাদৎ আলম ঝুনু, আইনুল হক সোহেল, মাশরাফী হিরো, আলরাজী জুয়েল, তপন চক্রবর্তী, রফি নেওয়াজ খান রবিন, আবু সুফিয়ান সফিক, শাহাদৎ হোসেন শাহীন, আবু ওবায়দুল হাসান ববি, এডনিস বাবু তালুকদার, অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, অধ্যক্ষ খাদিজা খাতুন শেফালী, আলমগীর বাদশা, সুরাইয়া নিগার সুলতানা ডরোথী, শামসুদ্দিন শেখ হেলাল, শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, আমিনুল ইসলাম ডাবলু, এ্যাড. লাইজিন আরা লিনা, ডালিয়া নাসরিন রিক্তা, মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, নাইমুর রাজ্জাক তিতাস, অসীম কুমার রায় প্রমুখ।

এর আগে সকাল সাড়ে ৭টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করণ ও কালো পতাকা উত্তোলন ও সকাল পৌনে ৮টায় বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় ৪ নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

 

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মির্জা ফখরুলকে ক্ষমা চাইতে ছাত্রলীগের আল্টিমেটাম

স্টাফ রিপোর্টার :: বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ...