‘বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ আরো সহজলভ্য করা হোক

বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীসারোয়ার মিরন :: বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবদ্দশায় লেখা ডায়েরীর ছাপার হরফে উপস্থাপন। অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটি প্রথম যে সময় প্রকাশিত হয়েছিল সে সময় বেশ কয়েকবার কেনার জন্য গিয়েছিলাম। উল্টেপাল্টে রেখে চলে আসতাম। দাম বেশি থাকায় নিতে পারিনি। সম্ভবত তখন দাম ছিল ৪৫০ টাকার মতো।

বাংলা একাডেমির এবারের অমর একুশে গ্রন্থমেলা-১৬ তে বইট যুবজাগরন নামের একটি সংগঠন ১০০ টাকা দরে বিক্রি করছে। অবশ্য বাঁধাই ও কাগজের বেলায় আগের তুলনায় অপেক্ষাকৃত বেশ নমনীয়। একই মানের বাঁধাই ও কাগজে বাহিরের অন্য প্রকাশনী গুলো বইটি বিক্রি করছে ২৫০ টাকা দামে।

প্রচলিত বাজার দরে মেলায় বইটি বিক্রিতে যুবজাগরন নামের সংগঠনটি প্রায় ১৫০ টাকা ভুর্তকি দিচ্ছে। কম দামে বিক্রির বিষয়টি অনলাইনের মাধম্যে জানতে পেরে আমি মেলায় গেলাম। প্রচন্ড ভীড় ঠেলে স্টলের সামনে লাইনে দাড়ালাম। বিশাল লাইনে আমার সামনে জনা বিশেক লোক থাকতেই স্টল থেকে বলা হলো বই শেষ। প্রায় আধা ঘন্টা লাইনে দাড়িয়েও সেদিন নিতে পারিনি বইটি। স্টল থেকে জানানো হলো আগামী দিন ঠিক পাচটায় আবার বিক্রি হবে।

আবার মেলা গেলাম। চারটা থেকে স্টলের সামনে ঠাই দাড়িয়ে থাকলাম। বিকেল পাচটা বাজতেই প্রথম ক্রেতা হিসেবে বইটি নিলাম। বইটি নেবার পর আরো কিছুক্ষন স্টলের সামনে দাঁড়ালাম। এবার মাত্র ত্রিশটি বিক্রি করার পর জানানো হলো বই শেষ। তখনো লাইনে দাড়ানো শ খানেক মানুষের মতো। সবার চিৎকার চেচামেচি। লাইনে দাড়িয়েও বই না পাওয়ার ক্ষোভ।

বঙ্গবন্ধু এমন একজন ক্ষনজন্মা মানুষ যার সম্পর্কে লেখা বা কোন মন্তব্য করা আমার পক্ষে কখনোই সম্ভব না। তবে এ কথা বলার উপায় নেই যে, তার জন্ম না হলে হয়তো আমরা বাংলাদেশ নামক ভুখন্ড পেতাম না। তিনি এমন একজন মহান নেতা তার সম্পর্কে সকল স্তরের মানুষের জানা উচিত। তিনি কতো বড় মনের মানুষ ছিলেন, তার চিন্তুা চেতনার মাত্রা ঠিক কতোটা-এসব জানতে হলে বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতের লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটি বিরাট ভুমিকা রাখবে একথা অস্বীকার করা যাবেনা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কিংবা সরকারের উচিত ছিলো জনসাধারনের নিকট বইটি বিলা মূল্যে প্রদান করা। তাহলেই কেবল সর্বস্তরের মানুষ বইটি পড়তে পারতো। জানতে পারতো বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে অনেক অজানা কিংবা নতুন তথ্য।

শুরুতে বইটির দাম বেশি থাকায় অনেকের আগ্রহ থাকার পরেও বইটি পড়তে পারেননি। অমর একুশে গ্রন্থমেলা-২০১৬ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সংগঠন যুবজাগরন কর্তৃক বইটি একশ টাকায় বিক্রি করার উদ্যোগ নেয়ায় আমার মত পাঠকরা বইটি কিনতে পারার সুযোগ পেয়েছে।

কিন্তু লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো মেলায় বইটির ব্যাপক চাহিদা থাকলেও সরবরাহ খুবই নগন্য। প্রতিদিন ৫০/৬০টি বই বিক্রি করার পর লাইনে মানুষ দাড়ানো থাকা সত্ত্বেও স্টক না থাকার ঠুনকো অজুহাতে বইটি বিক্রি করা বন্ধ করে দেয়া হয়। যা অনুচিত এবং অশোভনীয়। যে বইটি সরকার বা সংগঠনটি চাইলে বিনা মূল্যে পাঠকরা পেতে পারতো তা টাকা দিয়ে কেনার জন্য লাইনে দাড়িয়েও পাওয়া যাচ্ছে না। ব্যাপারটা কাকতালীয়। আবার দেখা যাচ্ছে কেউ কেউ একাধিক বই কিনছে বিশেষ কাউকে ম্যানেজ করে। স্টক না থাকার পরে কোথা থেকে যেন বিশেষ বিশেষ লোকের জন্য সরবরাহ করা হচ্ছে বিশেষ পন্থায়।

বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন সময়ে দেশের বহু টাকা ব্যয় হচ্ছে। আরো হবে। বঙ্গবন্ধুর স্ব-হস্তে লিখিত বইটি প্রকাশ করে বিনামূল্যে বিতরন করা হলে কতো টাকাই বা ব্যয় হবে? বইমেলায় একশ টাকা করে বিক্রি করার উদ্যোগটাও মন্দ নয়। কিন্তু কোন এক অজানা কারনে এখানে প্রতিদিন নির্দিষ্ট একটা সময়ে ৪০/৫০টি বই বিক্রি করার ব্যাপারটি সন্দেহমূলক। পাঠকের চাহিদা অনুযায়ী বইটি সরবরাহ করা হলে ক্ষতি কোথায়? বঙ্গবন্ধু আমাদের ইতিহাস। তার লেখা আমাদের সম্পদ, সম্পত্তি। তার লেখা অসমাপ্ত আত্মজীবনী বইটি পড়া সকল শ্রেনি পেশা ও সকল মতের লোকের পড়া উচিত। রাজনৈতিক দৃষ্টিকোন থেকে নয়, নিরেট সচেতন নাগরিক হিসেবে আমার অন্ত:ত তাই মনে হয়েছে।

বইটির প্রচার ও প্রসার তথা বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে সকল স্তরের মানুষের জানার সুবিধার্থে হ্রাসকৃত মূল্যে বইমেলায় বইটির সরবরাহ আরো বৃদ্ধি করা হোক। কোন পাঠকই যেন খালি হাতে ফিরতে না হয় সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আগামীতে যেন সকল স্তরের পাঠক বইটি পেতে পারেন সে জন্য বিনামূল্যে কিংবা আরো স্বল্প মূল্যে বাজারজাতকরনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট আমার আহবান থাকবে।

 

১৫.২.১৬

রামগতি, লক্ষ্মীপুর। লেখকের ইমেইল: jharapata87@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এএইচএম নোমান

সত্তর’র ভয়াল ১২ নভেম্বর: ধ্বংস থেকে সৃষ্টি

এএইচএম নোমান :: ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর গভীর রাতে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা ...