ব্রেকিং নিউজ

পুলিশের স্থাপন করা অভিযোগ বক্সে সুফল পাচ্ছে লক্ষ্মীপুুুুরবাসী

পুলিশের স্থাপন করা অভিযোগ বক্সে সুফল পাচ্ছে লক্ষ্মীপুুুুরবাসীজহিরুল ইসলাম শিবলু, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:: সাধারণ জনগণের কথা চিন্তা করে লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার শহরের ৮টি স্থানে পুলিশের কাছে অভিযোগ জানানোর জন্য ৮টি অভিযোগ বক্স স্থাপন করেন। এই সব অভিযোগ বক্সের মাধ্যমে জন সাধারণ থানায় অথবা পুলিশের কাছে না গিয়ে অপরাধীদের বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগ সম্পর্কে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করতে পারছেন।

প্রতিদিন এই অভিযোগ বক্সে অভিযোগ জমা দেওয়া যায়। সপ্তাহের দুইদিন এই সব অভিযোগ বক্স খুলে তার শুনানী করা হয়।

অভিযোগকারী তার নাম, ঠিকানা ছাড়াও অভিযোগ বক্সে অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করতে পারছেন। এরইমধ্যে পুলিশের স্থাপন করা অভিযোগ বক্সের মাধ্যমে সুফল পেতে শুরু করেছে জন-সাধারণ।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এক শ্রেণীর মানুষ অপরাধের শিকার হয়েও পুলিশের কাছে যাওয়ার ভয়ে, অথবা সামাজিকতার কথা বিবেচনা করে তারা থানায় গিয়ে পুলিশের কাছে অপরাধীদের সম্পর্কে অভিযোগ করেন না। আবার অভিযোগ করলেও অপরাধীদের কাছে তাদের নাম, ঠিকানা প্রকাশ পেয়ে যাবে এই ভয়ে অনেকে অভিযোগ করতে চান না।

এই সব দিক বিবেচনা করে লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার আ স ম মাহাতাব উদ্দিন পুলিশের কাছে না গিয়ে অভিযোগ দায়েরের জন্য লক্ষ্মীপুর জেলা শহরের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে, ঝুমুর সিনেমা হল এলাকায়, ট্রাপিক বক্সের সামনে, আদালত প্রাঙ্গণে, উত্তর তেমুহনী এলাকায়, বাসটার্মিনাল এলাকায়, সদর থানার সামনেসহ ৮টি স্থানে পুলিশ অভিযোগ বক্স স্থাপন করেন।

এই অভিযোগ বক্সের মাধ্যমে যে কেউ সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, অস্ত্র ব্যবসায়ী, দালাল চক্র ও দূর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে অভিযোগকারীর নাম, ঠিকানা প্রকাশ না করে অভিযোগ দায়ের করতে পারছেন। আর এই সব অভিযোগের আলোকে সপ্তাহে দুই দিন শুনানীর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। পর্যায়ক্রমে জেলার প্রতিটি থানায় এমন অভিযোগ বক্স স্থাপন করা হবে।

এর আগে অপরাধ ঠেকাতে গত বছরের ২৮ নভেম্বর জেলা পুলিশের উদ্যোগে ও লক্ষ্মীপুর পৌরসভার সহযোগিতায় জেলা শহরের বিভিন্ন স্থানে ৩০টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, বিশেষ করে নারীদের বিভিন্ন সময় সমাজে নানা রকম হয়রানীর শিকার হতে হয়। নারী নির্যাতন, যৌন হয়রানী, ইভটিজিংসহ নানা ধরণের হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে নারীদের। আর এই সব বিষয়ে প্রকাশ্যে থানায় কিংবা আদালতে গিয়ে অভিযোগ করলে অপরাধীদের হুমকীর শিকার হতে হয়। হয়রানীর শিকার হতে হয় দালাল চক্রের। নির্যাতনের শিকার হয়েও মুখভূজে ঘরে বসে থাকতে হয়।

তবে বর্তমানে পুলিশের অভিযোগ বক্সের মাধ্যমে থানায় কিংবা আদালতে না গিয়ে অপরাধীদের সম্পর্কে অভিযোগ দায়ের করা সম্ভব। শুধু নারী নির্যাতন নয়, সমাজের যে কোন অপরাধীদের সম্পর্কে অভিযোগ বক্সে অভিযোগ দায়ের করা যায়। এতে নাম, ঠিকানা গোপন রেখেই সমাজে লুকিয়ে থাকা অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে। ফলে কমে এসেছে নারী নির্যাতন, ইভটিজিং ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ নানা অপরাধ।

পুলিশ সুপার আ স ম মাহাতাব উদ্দিন বলেন, কিছু মানুষ থানায় যেতে ভয় পায়, প্রভাবশালীদের প্রভাবের কারণে মুখ বূঝে থাকতে হয়। কোথাও অভিযোগ দেওয়ার ইচ্ছে তাকলেও দিতে পারেনা, বিভিন্ন চাপের কারণে। তারা যাতে প্রতারিত না হয় এবং তাদের মনের কথাটি যেন আমি শুনতে পারি। এই কারণেই অভিযোগ বক্সস্থাপন করা হয়েছে। অভিযোগকারীদের নাম, ঠিকানা ছাড়াই অভিযোগ জমা পড়ছে বক্সে। এতে করে অপরাধী, অনিয়মকারী ও দূর্নীতিবাজদের সহজে সনাক্ত করে বিচারের আওতায় আনতে পারছে পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রহিমা আক্তার মৌ

‘জল ও জীবন’

রহিমা আক্তার মৌ :: আমাদের প্রাণপ্রিয় নগরী ঢাকা বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত। অপ্রিয় ...