ব্রেকিং নিউজ

পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার জরুরি

রাঙামাটির সুশীল সমাজ তিন পার্বত্য জেলার আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ পার্বত্য চুক্তির বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে এবং স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় অতি দ্রুত পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান পরিচালনা ও অবিলম্বে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশনকে কার্যকর করে পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের পূর্ণমন্ত্রী ও তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাচনের দাবী জানিয়েছেন। দু’দিনের সফরে রাঙামাটি আসলে বৃহস্পতিবার বিকেলে রাঙামাটি সার্কিট হাউসে প্রধানমন্ত্রীর আর্ন্তজাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীর সাথে পার্বত্য চট্টগ্রামের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময়কালে তিন পার্বত্য জেলার আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ এই দাবী জানান। এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব নববিক্রম কিশোর ত্রিপুরা ছাড়াও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কৈশ হ্লা মারমা, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি চিংকিউ রোয়াজা, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মতিন, রাঙামাটি সরকারী মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ বাঞ্চিতা চাকমা, রাঙামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সুনীল কান্তি দেসহ জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ ও প্রশাসনের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা।

আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ ও সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে যুগপৎভাবে অভিন্ন সুরে দাবী জানানো হয় যে দীর্ঘ দিনের পার্বত্য চট্টগ্রাম সমসার সমাধানকল্পে ১৯৯৭ সালের ২ডিসেম্বর তারিখে সম্পাদিত পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ধারাবাহিকতায় স্থানীয়ভাবে যে সমস্ত প্রতিষ্ঠান জন্মলঅভ করেছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ। কিন্তু জেলা পরিষদগুলোর চেয়ারম্যানদের পদ মর্যাদা না থাকা জেলা পরিষদগুলোর নির্বাচন দীর্ঘ দিন যাবৎ অনুষ্ঠিত না হওয়ার কারণে এ প্রতিষ্ঠানসমুহ একদিকে যেমন জনপ্রতিনিধিত্বশীলতার ইমেজ হারাচ্ছে অন্যদিকে এ সমস্ত প্রতিষ্ঠানের প্রতি মানুষের আগ্রহ ক্রমান্বয়ে শূন্যের কোটার দিকে ধাবিত হচ্ছে। তারা আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্‌িষয়ক মন্ত্রনালয়ে একজন পূর্নাঙ্গ মন্ত্রী থাকার কথা চুক্তিতে স্পষ্টভাবে উল্লেখ থাকলেও বর্তমানে একজন প্রতিমন্ত্রীই এ দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। পাশাপাশি তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানদের প্রতিমন্ত্রীর পদ মর্যাদা বিলুপ্ত করার পর তা পূঃনস্থাপিত না হওয়ায় তিন পার্বত্য জেলায় একদিকে যেমন প্রশাসনিক জটিলতা দেখা দিয়েছে তেমনিভাবে অনেক সমস্যা সমাধানে জেলা পরিষদসমূহ কার্যকর ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে।

বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব নববিক্রম কিশোর ত্রিপুরা সভায় উপস্থিত সবাইকে এই বলে অবহিত করেন যে মেডিকেল কলেজ স্থাপনের বিষয়টি অনেকদুর এগিয়ে গেছে এবং একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের বিষয়টি সরকার আন্তরিকতার সাথে বিবেচনায় রেখেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, রাঙামাটিতে স্থাপিতব্য এই বিশ্ব বিদ্যালয়টি পার্বত্য চট্টগ্রামের নৈসর্গিক সৌন্দর্য্য ও ভৌগলিক অবস্থানের বিষয়টি বিবেচনায় রেখে নির্মানের উদ্যোগ গ্রহন করা হবে। তিনি অন্যান্য দাবী-দাওয়ার বাস্তবায়নের ক্ষেত্রেও সরকার ও পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের কার্যকর ভূমিকা রয়েছে বলে দাবী করেন। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের ব্যাপারে সচিবের মন্তব্য হচ্ছে অনতিবিলম্বে এ ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মতবিনিময় সভা শেষে তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানদের সাথে বৈঠকে মিলিত হন।

এছাড়া শুক্রবার সকালে সকাল দশটায় প্রধান মন্ত্রীর আর্ন্তজাতিক উপদেষ্টা গরহর রিজভী আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমার সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন, এব্যাপাওে উপদেষ্টাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি কোনো কথা বলতে রাজি নাহয়ে তিনি বলেন সন্তু বাবু আমার অতি প্রিয় একজন ব্যক্তিত্ব তাকে আমি শুধূমাত্র শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এখানে এসেছি।

এব্যাপারে আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমা উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন এটা আমাদের নির্ধারিত কোনো বৈঠক নয় শুধুমাত্র কুশল বিনিময়।

এদিকে সন্তু লারমার সাথে বৈঠক শেষ করে সার্কিট হাউজে পৌছুলে সেখানে তার সাথে দেখা করে পার্বত্য চট্টগ্রামের বিভিন্ন বিষয়ে রুদ্রদ্ধার বৈঠক করেছে পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় নেতাদের দ্ধারা গঠিত পার্বত্য নাগরিক কমিটি।

এরপর প্রধানমন্ত্রীর আর্ন্তজাতিক বিষয়ক উপদেষ্ঠা গওহর রিজভী আঞচলিক পরিষদের চেয়ারম্যান সন্তু লারমাসহ রাঙামাটি শহর থেকে কাপ্তাই লেকের ওপারে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ডিএসও নুরুল বিন আনোয়ারের অর্থায়নে নির্মিত (যদিও সাংবাদিকদের কাছে পাঠানো চিঠিতে চির জ্যাতি চাকমা উল্লেখ আছে) স্বর্গছেড়া ইকো পার্কের উদ্ভোধনের উদ্দেশ্যে চলে যান।

এদিকে দু’দিনের সফরে রাঙামাটি এসে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিদের সাথে ঘন্টাব্যাপী বৈঠক করলেও উপদেষ্ঠা গরহর রিজভী সহ সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষই গণমাধ্যমকে একেবারে এড়িয়ে চলছেন। কোনো পক্ষই সাংবাদিকদের সাথে বৈঠকের ব্যাপারে মুখ খুলছেন না।

ইউনাইটেড নিউজ ২৪ ডট কম/আলমগীর মানিক/রাঙ্গামাটি

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

খুলে দেয়া হয়েছে ৫৮ ওয়েবসাইট: বিটিআরসি

স্টাফ রিপোর্টার :: পরিবর্তন, প্রিয়ডটকম, ঢাকাটাইমস, রাইজিংবিডি ও শীর্ষনিউজসহ দেশের ৫৮টি ওয়েবসাইট ...