নোয়াখালীতে বাল্য বিয়ে হতে রক্ষা পেল ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রী

মুহাম্মদ রহমত উল্যাহ, নোয়াখালী থেকে

নোয়াখালীতে বাল্য বিয়ে হতে রক্ষা পেল ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রী । নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার নির্বাহী অফিসার ও ইউনিয়ন পরিষদের এক চেয়ারম্যানের হস-ক্ষেপে বিয়ের অনুষ্ঠান বন্ধ করে করা হয়েছে। উপজেলার দেউটি ইউনিয়নের দেউটি গ্রামে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে। বাল্যবিয়ের কবল থেকে রক্ষা পাওয়া কনের নাম রোকশানা আক্তার (১৩)। সে দেউটি গ্রামের দুধমিয়া মিয়াবাড়ীর জাহাঙ্গির আলম বাহারের মেয়ে। একই দিনে উক্ত উপজেলাতে আরো দু’টি বাল্য বিয়ে প্রতিহত করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসিনা বেগম জানান, বুধবার বিকালের দিকে মোবাইলে একজন জানায় বৃহস্পতিবার  দেউটি ইউনিয়নের মুহুরীগঞ্জ গালর্স হাই স্কুলের ৭ম শ্রেণীর এক ছাত্রীর বিয়ে হতে যাচ্ছে। সংবাদ পাওয়ার পরপরই তিনি দেউটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে  বিষয়টি দেখার জন্য বলেন। চেয়ারম্যান তাৎক্ষনিক ভাবে মেয়ের বাড়িতে গিয়ে সংবাদের সত্যতা পায় এবং মেয়ের বাবা জাহাঙ্গির আলমকে বিয়ের আয়োজন বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দেয়। এদিকে  মেয়ের বাবা  বৃহস্পতিবার সকালে নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে  এফিডেবিটের করে মেয়ের বয়সের প্রমান পত্র আনা হলেও জন্মনিবন্ধনের কোন সাটিফিকেট তারা দেখাতে পারেনি। পরে মেয়ের বাবা তার মেয়েকে বিয়ে দিবেনা মর্মে মৌখিক ভাবে জানায়।

দেউটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন শাকিল জানান,বৃহস্পতিবার একই  ইউনিয়নের আমিরাবাদ গ্রামের মো. মোস্তফার ছেলে সৌদি আরব প্রবাসী সুমনের সাথে দেউটি গ্রামের দুধমিয়া মিয়াবাড়ীর জাহাঙ্গির আলম বাহারের মেয়ে রোকশানা আক্তারের বিয়ের দিন ঠিক করা হয়। কিন’ আমরা যখন জানতে পারলাম বিয়ের কনে রোকশানা নাবালিকা তখন এবিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়। আর মেয়ের বাবাও তার মেয়ের বয়স প্রমানেও ব্যার্থ হয়েছে।

তবে জানা গেছে , বর কনের বিয়ে পড়ানো না হলেও উভয় পক্ষের ভোজের আয়োজন হয়েছে ঠিকই এবং ভবিষ্যতের আত্মিয়তার সম্পর্ক ধরে রাখার একমত হয়েছে উভয় পক্ষ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

খুলনা বিএল কলেজ ছাত্রী গৃহবধূ সোনালী

‘যদি মরে যাই তাহলে শুধু রবিনই দায়ী থাকবে’

মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :: খুলনার পাইকগাছায় মৃত্যুর পূর্বে খুলনা বিএল ...