Home / শিক্ষা ও সাহিত্য / দৃক গ্যালারীতে ‘পানি অধিকার’ বিষয়ে ডরপ’র ছবি প্রদর্শণী সমাপ্ত

দৃক গ্যালারীতে ‘পানি অধিকার’ বিষয়ে ডরপ’র ছবি প্রদর্শণী সমাপ্ত

ডরপডরপষ্টাফ রিপোর্টার :: পানি অধিকারবিষয়ে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ দৃক গ্যালারীতে বেসরকারী সংস্থা ডরপ এর আয়োজনে ও অ্যাডভান্স অ্যান্ড প্রফেশনাল ফটোগ্রাফারস বাংলাদেশের সহযোগীতায় আয়োজিত তিন দিন ব্যাপী ছবি প্রদর্শণী শেষ হয়েছে।

 ২৫-২৭ অক্টোবর প্রদর্শণীতে পানি অধিকারবিষয়ে ২৪ জন আলোকচিত্রীর দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগ্রহীত ৮০টি ছবি স্থান পেয়েছে। আলোকচিত্রীরা হচ্ছেন- আ হ ম ফয়সল, আবু ওয়াহেদ নূরুল আমীন তালুকদার, আল হাসান অপু, আলভীন জুয়েল হাজরা, ফারদিন, মো: আমীর খসরু, মো: বশিরুল ইসলাম, ফারুক আহমেদ, ফয়জুল এম চৌধুরী নীশান, মীর মাইনুল ইসলাম, মামুনুর রশীদ, মাউন সরোয়ার, নাবীলা ওবায়েদ, সাগর, রাজিউল হুদা দিপ্ত, সাফিনাজ জাহান মিথিলা, সাইফুল ইসলাম, শফিকুল আলম শাকিল, শোভন রহমানী, সুমন জামান, শুশান্ত অরিন্দ, শামছুল হক সুজা, হেলাল রহমান এবং হাফিজুর রহমান খান।

প্রদর্শণীর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান তথ্য কমিশনার রাষ্ট্রদূত (অবঃ) মোহাম্মদ ফারুক। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, বাংলাদেশ ওয়াশ এ্যালায়েন্সের কান্ট্রি কো-অর্ডিনেটর অলক কুমার মজুমদার।

ডরপর প্রতিষ্ঠাতা ও দেশের প্রথম গুসি আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার বিজয়ী এএইচএম নোমানের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অ্যাডভান্স অ্যান্ড প্রফেশনাল ফটোগ্রাফারস বাংলাদেশের অ্যাডমিন শামছুল হক সুজা, আলোকচিত্রী সাইফুল ইসলাম, ফায়জুল এম চৌধুরী নিষান, সাকিল প্রমূখ। অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার ও আলোকচিত্রীদের হাতে সার্টিফিকেট তুলে দেন প্রধান অতিথি।

রবিবার বিকালে প্রদর্শণীর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নেদারল্যান্ড দূতাবাসের প্রথম সচিব ও পানি বিশেষজ্ঞ কার্ল ডি গ্রুট, বিশিষ্ট আলোকচিত্রী আনোয়ার হোসেন।

প্রদর্শণীতে জানানো হয়, গ্রামের ৯৮ ভাগ মানুষ পানি সুবিধার আওতায় থাকলেও বর্তমানে দেশের প্রায় ২০শতাংশ টিউবয়েলে আর্সেনিক বিদ্যমান এবং প্রকৃত নিরাপদ পানির আওতায় দেশের ৭৮ শতাংশ মানুষ। সুপেয় বা নিরাপদ পানি প্রাপ্যতা এখনও দেশের কোথাও কোথাও মরিচীকা। পানির অধিকার ও এ সেক্টরের বাজেট বরাদ্দের তেমন কোন উন্নতি লক্ষ করা যায়নি। পানিকে সম্পদ হিসাবে ঘোষনা করে এর উন্নয়নে সরকারী বাজেটে বিপুল পরিমান বরাদ্দ বাড়াতে হবে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

kzmostak@gmail.com

কাজী জুবেরী মোস্তাক’র কবিতা ‘ভুলিনি আজো’

ভুলিনি আজো -কাজী জুবেরী মোস্তাক গুটিগুটি পায়ে আমি হেঁটে চলেছি মৃত্যুর খুব ...