দলের প্রতি আবেগ নয়, ভালোবাসা রাখুন

দলের প্রতি আবেগ নয়, ভালোবাসা রাখুনএম শরীফ আহমেদ :: খেলা শুরুর আগে দলের সাপোর্টাদের পোষ্ট- আজকে আমার দল ৫,৭টা  গোল দিবে জিতবেই।খেলা শেষে খারাপ হলে দলের সমর্থকদের পোষ্ট- বাল খেলে সালারা, খেলা বুঝে না, খেলাই দেখুম না আর, টিভি ভেঙ্গে ফেলা,জার্সি ছিড়ে ফেলা, আত্মহত্যা করা,আবার অনেক সময় দেখা যায় ঐ দলকে বাদ দিয়ে অন্য দলকে সাপোর্ট করা।এ কেমন দলের প্রতি ভালোবাসা। আসলেই এটা ভালোবাসা নয়, এটা সম্পূর্ণ আবেগ।
.
বুঝতেই পারছেন আজকের পোষ্টের টপিক কি। হ্যা আজকের টপিক রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপ আর্জেন্টিনা আবেগী প্রেমীদের নিয়ে। খেলা ভালোবাসে না এমন কম মানুষই পাওয়া যাবে। তবে আমি নিজেই একটু খেলাধুলা কম ভালোবাসি, খেলাধুলা কম দেখি।খেলাধুলা মানুষের রক্তে মিশে আছে। যা হোক, আজকের টপিক, খেলা বুঝে না এমন কিছু  সামর্থকদের নিয়ে। তারা খেলা বুঝে না:বুঝে খালি জিততে হবে।

ধরেন আপনি একটা দলকে সাপোর্ট করেন। সে দলকে মনেপ্রাণে ভালোবাসেন। তাই বলে সব ম্যাচ জিততেই হবে এমন না।আর্জেনটিনার একটু সংক্ষিপ্ত ইতিহাস না বললে নয়। আর্জেন্টিনায় ফুটবল খেলা শুরু হয় ১৮৬৭ সালে।তবে আর্জেন্টিনার প্রথম জাতীয় ফুটবল দল গঠিত হয় ১৯০১ সালে। তারা উরুগুয়ের বিপক্ষে একটি প্রীতি খেলায় প্রথম মুখোমুখি হয় যা অনুষ্ঠিত হয় ১৯০১ সালের ১৬ মে।যেখানে আর্জেন্টিনা ৩–২ ব্যবধানে জয় লাভ করে।এটি ছিল আর্জেন্টিনার প্রথম রেকর্ডকৃত ম্যাচ। অন্যান্য শিরোপার মধ্যে, তারা দুইবার ফিফা বিশ্বকাপ জিতেছে ১৯৭৮ এবং ১৯৮৬ সালে এবং ১৪ বার দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে।

এবার অনেকটা ভাগ্যের জোড়েই বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছিল আর্জেন্টিনা। বাছাই পর্বে ১৮ ম্যাচে ৭ জয়, ৭ ড্র ও ৪ হারে ২৮ পয়েন্ট নিয়ে ল্যাটিন আমেরিকা অঞ্চলে তৃতীয়স্থান পেয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট তারা। বিশ্বকাপ শুরুর তিনদিন আগেই রাশিয়ায় পৌঁছায় আর্জেন্টিনা।

গত(১৬জুন) শনিবার ফুটবল বিশ্বকাপের মিশন শুরু হয়েছিল আর্জেন্টিনার। ‘ডি’ গ্রুপে আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ছিল আইসল্যান্ড।বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হয় দুদলের লড়াই। প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের বিপক্ষে ১-১ ব্যবধানে ড্র করে খাদের কিনারায় চলে যায় মেসির দল।

সর্বশেষ (২১জুন)শুক্রবার রাত১২টায়  আর্জেনটিনার বিপক্ষে ছিলো ক্রোয়েশিয়া।
গোল করবেন মেসি, আর জয়ে ফিরবে আর্জেন্টিনা। আর্জেন্টাইন ভক্তরা এই প্রার্থনাই করছিলেন। ৮৬ মিনিটে ফ্রি-কিক থেকে গোল হতে হতে বেঁচে গেল। পোস্টের টপ কর্ণারে লেগে ফিরে এলে রাকিটিচের শট। অনায়াসেই ৩-০ গোলে ক্রোয়েশিয়ার কাছে লজ্জার হার নিয়ে মাঠ ছাড়ল আর্জেন্টিনা ।

বিশ্বকাপে শত আশা নিয়ে আসলেও টানা দুই ম্যাচ হেরে বিশ্বকাপ স্বপ্ন কার্যত শেষ হয়ে গেল মেসিদের। এখন অন্যদের উপর নির্ভর করছে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপের পরের রাউন্ডে যাওয়া।(৩-০)গোলের পরাজয়ে আর্জেন্টিনার দ্বিতীয় রাউন্ড ভাগ্য এখন সুতোয় ঝুলছে। অন্যদিকে মেসিদের হারিয়ে রাকিতিচ, মদ্রিচদের হাত ধরে আরো একবার বিশ্বকাপের নকআউট রাউন্ডে উঠলো ক্রোয়েশিয়া।

খেলা শেষ হতে না হতেই,আবেগী সমর্থকদের হরেক রকম পচানি মূলক পোষ্টে মুখরিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। তাদের অনেকেই কুরুচি পূর্ণ পোষ্ট দিয়েই তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেনি; ফেসবুক গালমন্দ,রাজাকার বলেও সম্বোধন করছে অনেকে। কেনো এইসব? এ আবার কেমন সমর্থক। যখন দল জিতবে তখন সাপোর্ট করবো আর হারলে সাপোর্টের বদলে পচানি দিবো তা তো হয় না।

আমার মনে হয় দলকে জিতার সময় সাপোর্ট না করে হারার সময় সাপোর্ট করতে হয়। কারন ঐ সময় খেলোয়াড়দের মন মানসিকতা ভালো থাকেনা। কিন্তু আমরা সেই সময় সাপোর্ট না করে,তাদের আরো বেশি কষ্ট দেই। কেনো আমরা এমন করি? আবেগ। আবেগের বশে আমরা এমন করি। যার জন্য দরকার আমাদের সাপোর্ট, ভালোবাসা। হারুক জিতুক সবসময় পাশে থাকা উচিৎ আমাদের।আবেগী ফুটবল প্রেমিদের প্রতি উপদেশ “আবেগ দিয়ে খেলা না দেখে, বাংলা নাটক দেখেন! তাহলে মাথা আর মন খারাপ হবে না। বরং মনে প্রশান্তি আসবে।

লেখক: তরুণ লেখক ও সাংবাদিক। journalistshorif@gmail.com

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

রাজীবের সুরে অনিতা-সুমন

রাজীবের সুরে অনিতা-সুমনের ‘বন্ধু হতে চাই’

স্টাফ রিপোর্টার :: রাজীব হোসাইনের সুর ও সঙ্গীতে নতুন একটি দ্বৈত গানে ...