দর্শকের ভূমিকায় ঝিনাইদহর পুলিশ

ঝিনাইদহ শহরের বিভিন্ন পাড়ায় পুলিশের নিস্ক্রিয়তার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে পটকাবাজী ফুটানোর উৎসব চলছে। এতে আতংকগ্রস্থ হয়ে পড়ছে শহরের লোকজন। বিশেষ করে শিশু ও হার্ট দুর্বল মানুষেরা বেপরোয়া ভাবে ফুটতে থাকা পটকাবাজীর শব্দে বেশী হয়ে পড়ছে।

অভিযোগ পাওয়া গেছে পবিত্র ঈদুল আযহার ৩/৪ দিন আগে থেকেই ঝিনাইদহ শহরের ব্যাপারীপাড়া, হামদহ, মহিলা কলেজপাড়া, কেসি কলেজপাড়া, কাঞ্চননগর, ৩ নং পানির ট্যাংক পাড়া , কলাবাগানসহ সব পাড়া মহলস্নায় একের পর এক আতশবাজী ফোটানোর উৎব চলছে। এই বেপরোয়া আতশবাজী ফুটানো আগে কোন দিন লক্ষ্য করা যায়নি বলে মহলস্নাবাসী জানান।

বিভিন্ন পাড়া-মহলস্নাবাসীর অভিযোগ, মাঝে মাঝে পুলিশের টহল দেখা গেলেও তাদের চোখের সামনেই ফুটানো হচ্ছে পটকা, আতশবাজী। এসব দেখেও তারা যেন নাদেখার ভান করছেন। ফলে তাদের নীরব ভূমিকার কারণে দুষ্ট প্রকৃতির ছেলেরা নিষিদ্ধ থাকার পরও পটকা ফুটাচ্ছে। সন্ধার পর এই প্রবণতা বেশি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কারো নিষেধ ওই সব টোকায় ছেলেরা শুনছে না। পুলিশের পক্ষ থেকে শহরে মাইকিং করা হলে এমনটি হতো না বলে জানান আদর্শপাড়ার এক অভিভাবক।

আবাসিক এলাকায় ফুটতে থাকা পটকার শব্দে মানুষের জীবন বিষিয়ে উঠছে। অসহ্য হলেও তারা নীরবে বিষয়টি মেনে নিচ্ছেন। সবচে বেশি আতংকের শিকার হচ্ছেন শিশু ও হার্ট দুর্বল লোকেরা। ভয়ংকর শব্দে কখনো কখনো শহর কেঁপে উঠছে।

এই অবৈধ পটকাবাজীর মাঝে কোন অঘটন ঘটিয়ে দুর্বৃত্তরা সহজে পার পেয়ে যেতে পারে বলেও অনেকের মনত্মব্য। আবার শহরের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে জনমনে এখন সংঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ইউনাইটেডনিউজ ২৪ ডট কম/শাহারিয়ার রহমান রকি/ঝিনাইদহ

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘আমাকে এখনও কেন হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে না’

ষ্টাফ রিপোর্টার :: বিএনপি চেয়ারপারসন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ৮ মাস ...