তফসিল ঘোষণার পর রাজধানীতে হামলা, ভাঙচুর বিস্ফোরণে নিহত ১

ঢাকা: তফসিল ঘোষণার পর পরই রাজধানীজুড়ে ব্যাপক সংখ্যক ককটেল বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙ্গচুর করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮দলীয় জোটের কর্মী সমর্থকরা।

তারা রাজধানীর বিভিন্নস্থানে  গাড়িতে আগুন, ভাংচুর ও  ককটেল ফাটিয়ে  জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। রাজধানীর বাড্ডায় এক রিক্শা চালক নিহত হয়েছে।

বাড্ডা: রাজধানীর বাড্ডা ককটেল বিস্ফোরণে এক রিক্সচালক নিহত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তার পরিচয় জানা যায়নি।

এ ছাড়া বাড্ডার লিংক রোডে রাত সাড়ে ৮ টার দিকে ১০/১২ টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। বাড্ডা থানার ওসি ইকবাল হোসেন ককটেল হামলার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন। ওই এলাকার বিভিন্নস্থানে সাতটি গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে।

ফার্মগেট : রাজধানীর ফার্মগেট এলাকায়  রাত সোয়া ৯টার দিকে ফার্মগেট পুলিশ বক্সের সামনের রাস্তায় পুলিশের একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এতে পুরো গাড়িটি পুড়ে গেছে।

ঢাবি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মোড়ে সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে হরতাল হরতাল স্লোগান দিয়ে ৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

গ্রিনরোড: রাজধানীর গ্রীনরোড এলাকায় ১৮ দলের ৪৮ ঘণ্টা অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণার পরপরই রাজধানীর গ্রীনরোড এলাকায় ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে অবরোধ সমর্থকরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সোমবার রাত সোয়া ৯টার দিকে কলাবাগান থানার গ্রিনরোড সরকারি স্টাফ কোয়ার্টারের সামনে পরপর ৪টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। এসময় পথচারীদেরকে ছুটোছুটি করতে দেখা যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে চারদিকে তল্লাশি শুরু করে। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

নয়াপল্টন: নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে  পুলিশের একটি গাড়ি লক্ষ্য করে ককটেল হামলা চালানো হয়। রাত সোয়া ৮টার দিকে বিএনপি নয়াপল্টন অফিসের সামনে দুটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় দুর্বৃত্তরা। এতে আহত হন আব্দুল মালেক নামের এক প্রাইভেট কারচালক।

আজিমপুর: আজিমপুর কবরস্থান গেটের সামনেও ৪টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

সবুজবাগ: সবুজবাগ থানার বাসাবো এলাকায় নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করার পর ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল বের করলে মিছিলে হামলা করে শিবির। এ সময় তারা ৪টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায়। সবুজবাগ থানার ওসি বাবুল মিয়া জানান, আনন্দ মিছিল করার সময় ককটেল নিক্ষেপ করা হয়।

জবি: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রশিবির নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর মিছিল থেকে দশটি গাড়ি ভাংচুর এবং দুটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। সোমাবর রাত সাড়ে আটটায় বিশ্ববিদ্যালয় গেট থেকে বাংলাবাজারের দিকে মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর পর কিছু লোককে সেখানে জড়ো হতে দেয়া যায় এ এলাকায়। কিছু সময় পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক খালিদ মাহমুদের নেতৃত্বে মিছিলটি বের করে ছাত্র শিবির। মিছিলে প্রায় ৬০/৭০ জন নেতাকর্মী অংশ নেয় বলে জানা যায়।

জবি ছাত্রশিবির মিছিল বের করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া দিয়ে ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশের সাথে ছাত্রশিবিরের সংঘর্ষ বেধে যায়। তবে ঘটনাস্থল থেকে কাউকে পুলিশ আটক করতে পারিনি। ওই এলাকায় এখন বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শিবগঞ্জের জঙ্গি আস্তানা

শিবগঞ্জের জঙ্গি আস্তানা থেকে চারজনের মরদেহ উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার :: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবপুর উপজেলার শিবনগর গ্রামে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে একটি ...