ব্রেকিং নিউজ

ঢাকাসহ ১৬ জেলায় ‘উপকূল দিবস’ পালিত: রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দাবি

ঢাকাসহ ১৬ জেলায় ‘উপকূল দিবস’ পালিতস্টাফ রিপোর্টার :: রাজধানী ঢাকাসহ উপকূলের ১৬ জেলায় ৫৪ স্থানে দ্বিতীয়বারের মত পালিত হয়েছে উপকূল দিবস। কর্মসূচির মধ্যে ছিল মানববন্ধন, র‌্যালী, আলোচনা সভা, দোয়া মোনাজাত, মোমবাতি প্রজ্জলন ও স্মারকলিপি পেশ। কর্মসূচি থেকে উপকূলীয় অঞ্চলের সুরক্ষা এবং সেখানকার বৃহৎ জনগোষ্ঠীর অধিকার ও নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করতে উপকূল দিবসের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবি তুলেছেন বক্তারা। তারা বলেন, উপকূলের বৃহৎ অংশকে অনুন্নত রেখে দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয়।

’৭০-এর ১২ নভেম্বরের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের দিনটিকে ১৯৭০ সাল থেকে ‘উপকূল দিবস’ হিসাবে পালিত হয়ে আসছে। উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটির আহবানে স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ের শতাধিক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান দিবস পালনে এগিয়ে এসেছে। এরমধ্যে রয়েছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, গণমাধ্যকর্মীদের সংগঠন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান, কিশোর-তরুণদের ফোরাম ইত্যাদি। এবছর শতাধিক সংগঠন এই কর্মসূচিতে অংশ নেয়।

রাজধানীর পল্টনে মুক্তি ভবনের প্রগতি হলে ১২ নভেম্বর সকালে উপকূল দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আশীষ কুমার দে। সঞ্চালনায় ছিলেন উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটির কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী ও উপকূল-সন্ধানী সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম মন্টু। উপকূল দিবসের দাবির সমর্থনে বক্তব্য বাপা’র হোসান ইউসুফ খান, উপকূলবাসী ইসমাইল গাজী, রেডিও ধারা ভাষ্যকার আনোয়ার কবীর, চিত্র শিল্পী সুজন মাহবুব, পরিবেশ কর্মী জামিল জাহাঙ্গীর, সাংবাদিক মেজবাহউদ্দিন মাননু, হরলাল রায় সাগর, শাহ আলম, ছাইফুল ইসলাম মাছুম, শিক্ষার্থী মেজবাহ হাসান প্রমূখ।

’৭০-এর প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় স্মরণে ১২ নভেম্বরকে উপকূল দিবস হিসাবে ঘোষণার দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের উপকূলে রয়েছে অফুরন্ত সম্ভাবনা। উপকূলের বিপুল জনগোষ্ঠী জাতীয় অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখছে। তা সত্বেও এ অঞ্চলের প্রায় ৫ কোটি মানুষ চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে এই ঝুঁকি দিন দিন বাড়ছে। উপকূলের বহু এলাকা অরক্ষিত থেকে যাচ্ছে যুগের পর যুগ। এ অবস’া থেকে উত্তরণের জন্যে উপকূলবাসী একটি দিবসের দাবি জানিয়েছে।

তারা বলেন, এ দিবসটি সরকারের স্বীকৃতি পেলে সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল, উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠান সংবাদ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মহলে উপকূলে গুরুত্ব বাড়বে। এর মধ্যদিয়ে উপকূলের সুরক্ষা ও সেখানকার জনগোষ্ঠীর অধিকার ও ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠিত হবে। বক্তারা অবিলম্বে দিবসটির স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

আলোচনা সভা ছাড়াও পটুয়াখালীর গলাচিপায় ১০০১টি মোমবাতি প্রজ্জনের মাধ্যমে কর্মসূচি পালিত হয়। মোমবাতি প্রজ্জলন করা হয় বরগুনার তালতলীর শুভসন্ধ্যা সমুদ্র সৈকত এবং লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের তোরারগঞ্জের কর্মসূচিতে। দিবসটি উপলক্ষে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের হরিনগরে ফটো প্রদর্শনী ও শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। অন্যান্য স্থানে শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা ও উপকূল দিবসের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির দাবিতে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হবে।

ঢাকাসহ ১৬ জেলায় ‘উপকূল দিবস’ পালিতউপকূলবর্তী ১৬ জেলার ৫৪ স্থানে দিবসটি পালিত হয়। কক্সবাজারের কক্সবাজার সদর, টেকনাফ, মহেশখালী, সেন্টমার্টিন; চট্টগ্রামের বাঁশখালী, মিরসরাই, সন্দ্বীপ; ফেনীর ফেনী সদর, সোনাগাজী, ছাগলনাইয়া; নোয়াখালীর সুবর্ণচর, হাতিয়া; লক্ষ্মীপুরের কমলনগর, রামগতি, রায়পুর; চাঁদপুরের চাঁদপুর সদর; ভোলার ভোলা সদর, যুগিরঘোল, চরফ্যাসন, তজুমদ্দিন, মনপুরা, লালমোহন, দক্ষিণ আইচা; বরিশালের বরিশাল সদর; পটুয়াখালীর পটুয়াখালী সদর, কলাপাড়া, গলাচিপা, বাউফল, দশমিনা , রাঙ্গাবালী, পাখিমারা, কুয়াকাটা, চরকাজল; বরগুনার বরগুনা সদর, পরীরখাল, বেতাগী, তালতলী, পাথরঘাটা, বামনা, শুভসন্ধ্যা সমুদ্র সৈকত; পিরোজপুরের কাউখালী, ইন্দুরকানী; ঝালকাঠির ঝালকাঠি সদর, কাঁঠালিয়া, নলছিটি; বাগেরহাটের বাগেরহাট সদর, শরণখোলা; খুলনার পাইকগাছা; সাতক্ষীরার সাতক্ষীরা সদর, তালা, শ্যামনগর, বুড়িগোয়ালিনী, হরিনগরে উপকূল দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়।

দিবস পালনের প্রধান উদ্যোক্তা হিসাবে রয়েছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান উপকূল বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন, কোস্টাল জার্নালিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ-সিজেএফবি, কোস্টাল ইয়ূথ নেটওয়ার্ক-আলোকযাত্রা। এবারের কর্মসূচিতে সহযোগী হিসাবে রয়েছে নৌ সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটি, নির্ঝর এন্টারপ্রাইজ, দৈনিক খোলা কাগজ এবং বিডিমিরর একাত্তর ডটকম।

এ প্রসঙ্গে উপকূল দিবস বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী ও উপকূল-সন্ধানী সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম মন্টু বলেন, উপকূলের দিকে গণমাধ্যম ও নীতিনির্ধারকদের নজর বাড়িয়ে উপকূলবাসীর জীবনমান উন্নয়ন ঘটানোই উপকূলের জন্য একটি দিবস প্রস্তাবের মূল লক্ষ্য। এক যুগেরও বেশি ধরে উপকূল নিয়ে নিবিড়ভাবে রিপোর্টিং করতে গিয়ে আমি উপকূল দিবসের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করি। উপকূলের জন্য একটি পৃথক দিবস থাকলে উপকূল ভাবনা সবার মাঝে দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে। সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল, সংবাদ মাধ্যম থেকে শুরু করে সকল মহলে উপকূল-ভাবনার সুযোগ বাড়বে। এর মধ্যদিয়ে উপকূল সুরক্ষা এবং সেখানকার নাগরিকেদের অধিকার নিশ্চিত করার পথ সুগম হবে।

১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বরকেই ‘উপকূল দিবস’ হিসাবে বেছে নেওয়া হয়েছে। এদিন বাংলাদেশের উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যায় সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘ভোলা সাইক্লোন’। জাতিসংঘের বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা (ডব্লিউএমও) বিশ্বের পাঁচ ধরনের ভয়াবহ প্রাণঘাতি আবহাওয়া ঘটনার শীর্ষ তালিকা প্রকাশ করে গত বছরের ১৮ মে। ওই তালিকায় বাংলাদেশের উপকূল অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বরের ঘূর্ণিঝড়টিকে পৃথিবীর সর্বকালের ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়ংকর প্রাণঘাতি ঝড় হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। অন্যদিকে উইকিপিডিয়ার সূত্র বলছে, এ পর্যন্ত রেকর্ডকৃত ঘূর্ণিঝড় সমূহের মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়াবহ ঘূর্নিঝড়।

’৭০-এর ১২ নভেম্বরের প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় স্মরণে এই দিনটিকে ‘উপকূল দিবস’ হিসাবে ঘোষণার দাবি ওঠে ২০১৭ সালে। সে বছর থেকেই দেশের সমগ্র উপকূল অঞ্চল জুড়ে উপকূল দিবস পালিত হয়ে আসছে। প্রথমবারের মত উপকূল দিবস পালনে গোটা উপকূল জুড়ে সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক সাড়া পড়ে। তারা উপকূলের জন্য একটি দিবসের দাবি তোলেন এবং ১২ নভেম্বরকে ‘উপকূল দিবস’ হিসাবে ঘোষণার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান। প্রথম বছরের বিপুল সাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে এবার দ্বিতীয় বছর আরও বৃহৎ পরিসরে উপকূল দিবস পালনের উদ্যোগ নেওয়া হলো।

প্রসঙ্গত, পূর্বে কক্সবাজারের টেকনাফের শাহপরীর এবং পশ্চিমে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের কালিঞ্চি গ্রাম পর্যন্ত সমুদ্ররেখা বরাবর উপকূলের প্রায় ৫ কোটি মানুষ প্রতিনিয়ত বহুমূখী দুর্যোগের সঙ্গে বসবাস করেন। কেবল দুর্যোগ এলেই সংবাদ মাধ্যমে এদের খবরাখবর দেখা যায়। কিন্তু স্বাভাবিক সময়েও তাদের জীবন যে কতটা অস্বাভাবিক, সে বিষয়ে খুব একটা খোঁজ রাখা হয়না। উপকূল দিবসের দাবি বাস্তবায়িত হলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলেও উপকূলের বিশেষ খবরের দিকে সংবাদ মাধ্যমের নজর পড়বে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

গুড নেইবারস বাংলাদেশ'র স্বেচ্ছাসেবক দিবস পালন

গুড নেইবারস বাংলাদেশ’র স্বেচ্ছাসেবক দিবস পালন

নীলফামারী প্রতিনিধি :: আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবক দিবস উপলক্ষে নীলফামারীতে র‌্যালি ও আলোচনা সভা ...