জয়পুরহাটে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর: মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবী

এস এম শফিকুল ইসলাম, জয়পুরহাট

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হবার পর এই প্রথম জয়পুরহাট আসছেন শেখ হাসিনা। তাই তার শুভ আগমন উপলক্ষে জয়পুরহাট সেজেছে বর্ণিল সাজে। আগামী আগামী ২২ জানুয়রি বেলা ১১টায় জয়পুরহাট সিমেন্ট প্রকল্প এলাকায় অবসি’ত বাংলাদেশ মাইনিং মিনারেলোজি অ্যান্ড মেটালাজি’র উদ্বোধন করবেন। সাড়ে ১১টায় যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স’াপন ও বেলা ১২টায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স’াপন করবেন।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী বেলা সাড়ে ১২টায় স’ানীয় সার্কিট হাউজে জেলা পর্যায়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে জেলার সার্বিক উন্নয়ন বিষয়ে মতবিনিময় সভায় মিলিত হবেন।

একইদিন বিকাল ৩টায় প্রধানমন্ত্রী জয়পুরহাট স্টেডিয়ামে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্‌্র ও কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্বোধন করবেন। পরে স্টেডিয়াম মাঠে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তার প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে।প্রধানমন্ত্রীর আগমনে উন্নয়ন বঞ্চিত জেলাবাসী দেখছে নানান স্বপ্ন।

নির্বাচিত হবার পর এই প্রথম শেখ হাসিনা জয়পুরহাটে আসছেন। তার আগমন বার্তা জয়পুহাটের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চলছে। প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে তার কাছে জয়পুরহাটের মানুষের প্রত্যশা অনেক। এই অনেক প্রত্যাশার মধ্যে একটি প্রত্যাশা হলো জয়পুরহাটে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স’াপন। এই প্রত্যাশার যৌক্তিক কারণও রয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে মেডিকেল কলেজ স’াপনের প্রয়োজনীয় অবকাঠামো বিদ্যমান, প্রথম দুই বছর ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ক্লাস রুম, টিউটোরিয়াল রুম, এবং প্রশাসনিক অবকাঠামো রয়েছে।

৩য় বর্ষের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ক্লিনিকাল ক্লাসের জন্য প্রয়োজনীয় ২৫০ শয্যার হাসপাতাল অবকাঠামো রয়েছে।্‌ প্রথম বর্ষ হতেই ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আবাসন ব্যবস’া রয়েছে। বর্তমান ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের উত্তর ব্লকে ভাটিক্যাল এঙটেনশন করে তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম বর্ষের জন্য ক্লাশরুম টিউটোরিয়াল রুম ও পরীক্ষাগার পর্যায় ক্রমে নির্মাণ করা সম্ভব এবং কোন নতুন স’াপনা নির্মাণ করার প্রয়োজন পড়বেনা।

হাসপাতালে প্রতি ৫বেডের বিপরীতে ১জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করার বিধান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক
স্বীকৃত থাকায় এখানে ৫০জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা এই মূহুর্তে সম্ভব। একই বছরে একই কাঠামো নিয়ে স’াপিত ফেনী এবং কক্‌্রবাজার হাসপাতালকে ইতিমধ্যে মেডিকেল কলেজে রূপান্তরিত করা হয়েছে। আবার জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালকে মেডিকেল হাসপাতালে রূপান্তরিত করা হলে এই মূহুর্তে ভৌত অবকাঠামো খাতে ও জনবল নিয়োগে সরকারের অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দেরও প্রয়োজন পড়বেনা। এই হাসপাতালটি জরুরি প্রসূতি সেবার জন্য গোটা দেশের মধ্যে ৭বার প্রথম পুরস্কার পায়।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

মহিলা ও শিশু হাসপাতাল উদ্বোধন

নতুন মহিলা ও শিশু হাসপাতাল উদ্বোধন

স্টাফ রিপোর্টার :: মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি ...