জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার দুপুর ১২টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

 

স্টাফ রিপোর্টার :: সিলেটে বরেণ্য কথাসাহিত্যিক ও শিক্ষক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে সুশীল সমাজ।

রোববার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগ থেকে এ বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। মিছিলটি টিএসসি হয়ে পরীবাগ মোড় ঘুরে শাহবাগে এসে শেষ হয়। এরপর শাহবাগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ হয়। মিছিল ও সমাবেশে নেতৃত্ব দেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার।

ড. জাফর ইকবালে ওপর হামলার ঘটনা নতুন প্রজন্মকে পথভ্রষ্ট করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছে বলে সমাবেশে মন্তব্য করেন বক্তরা।

সমাবেশের সূচনা বক্তব্যে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, বিগত সময়ে মুক্তচিন্তার মানুষগুলোর হত্যাকারীদের বিচার না হওয়ায় হামলাকারীরা নিজেদের অনেক শক্তিশালী মনে করে। তারা আরো সুযোগ খোঁজে। বেছে বেছে মুক্তচিন্তার মানুষগুলোকে হত্যা করছে। অবিলম্বে হামলাকারীদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

গণজাগরণ মঞ্চের বেশ কয়েকজন সক্রিয় সদস্যকে হত্যার পরও খুনিরা ধরা-ছোঁয়ার বাইরে, অভিযোগ করে ইমরান এইচ সরকার বলেন, অভিজিৎ হত্যার চার্জশিট দাখিলের তারিখ ৩২ বার পিছিয়েছে। অপরাধীরা সব সময় ধরা-ছোঁয়ার বাইরে ছিল এবং থাকছে।

মানবাধিকারকর্মী সুলতানা কামাল বলেন, আমরা জানি, জাফর ইকবাল কেন জনপ্রিয়। তিনি তরুণ প্রজন্মের কাছে ভালবাসার পাত্র। তিনি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কথা বলেন। অসাম্প্রদায়িক চেতনার কথা বলেন। তার চেতনা দেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। এজন্য তরুণ সমাজকে পথভ্রষ্ট করতে তার ওপর হামলা চালনো হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, যারা মুক্তমনাদের কণ্ঠরোধ করতে চায় তাদের দ্রুত আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। শুধু একজনকে গ্রেপ্তার করলে হবে না, এর পেছনে কারা আছে তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

নাট্যকার মামুনুর রশীদ বলেন, বিচারহীনতার কারণে অধ্যাপক জাফর ইকবালের ওপর হামলা হয়েছে।

লেখক ও প্রকাশক রবিন আহসান বলেন, আমরা যখন বিচারের দাবিতে রাস্তায় নামতাম তখন আমাদের পাশে জাফর ইকবাল স্যার থাকতেন। সেই জাফর ইকবাল স্যারের ওপর পেছন থেকে হামলা করা হয়েছে। এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে বিদেশি শক্তি ও মৌলবাদি শক্তি জড়িত।

সমাবেশ থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন মানবাধিকারকর্মী খুশি কবির, ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি জিলানী শুভ প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ট্রেনের ধাক্কায় চুরমার ক্রসিংয়ের ওপর বন্ধ হওয়া যাত্রীবাহী বাস

স্টাফ রিপোর্টার :: জয়পুরহাটে বাস ও ট্রেনের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তবে অল্পের ...