ব্রেকিং নিউজ

চাঁদে পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ স্থাপন করেছে নাসা

সাফল্যের সঙ্গে চাঁদের কক্ষপথে দুটি প্রোব বা পর্যবেক্ষণ উপগ্রহ স্থাপন করেছে নাসা। পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে উেক্ষপণের পর চাঁদের কক্ষপথে পৌঁছতে তাদের সময় লেগেছে তিন মাসের বেশি।

এখানে অবস্থানকালীন চাঁদকে প্রদক্ষিণ করার পাশাপাশি তাদের মূল কাজ হবে পৃষ্ঠদেশের বিভিন্ন স্থানে চাঁদের মাধ্যাকর্ষণের তারতম্য যাচাই করা। বিজ্ঞানীরা জানান, এর মাধ্যমে আগামীতে আমরা আরও ভালোভাবে জানতে পারব চাঁদের গাঠনিক পদ্ধতি বিষয়ে।
জোড়া প্রোবের তদন্তের মধ্য দিয়ে দীর্ঘকাল চলে আসা আরও একটি বিতর্কের নিরসন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ওই মতানুসারে, শতকোটি বছর আগে পৃথিবীর ওপর জন্ম নিয়েছিল একটি নয়, দুটি চাঁদ। বর্তমান পর্যবেক্ষণে নাটকীয় কোনো কিছু আবিষ্কার সম্ভব হতে পারে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন মিশনের প্রধান বিজ্ঞানী ড. মারিয়া জুবার।

ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির গবেষক জুবার জানান, চন্দ্রপৃষ্ঠের কেন্দ্রস্থলে বিরাজমান তথ্য উদঘাটন করাই বর্তমান অভিযানের প্রধান উদ্দেশ্য। পৃষ্ঠের বিভিন্ন স্থানে মাধ্যাকর্ষণ ক্ষমতার তারতম্য বিশ্লেষণ করে আমরা জানতে পারব ঠিক কী কী ধরনের পদার্থ দিয়ে গঠিত হয়েছে চাঁদের শরীর। নতুন পাওয়া তথ্যগুলো ইতঃপূর্বে পাওয়া তথ্যের সঙ্গে মিলিয়ে আমরা জানার চেষ্টা করব চাঁদ গঠনের প্রাথমিক দিকের দিনগুলো সম্পর্কে।

গত সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেপ ক্যানাভেরাল থেকে মহাশূন্যের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে প্রতিটি ৩০০ কেজি ওজনের দুটি প্রোব। গত সপ্তাহে ২৫ ঘণ্টার ব্যবধানে তারা চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছায়। এখান থেকেই শুরু হবে তাদের চন্দ্রকে প্রদক্ষিণের পালা। কক্ষপথে চন্দ্রপৃষ্ঠের ৫৫ কিলোমিটার ওপরে অবস্থানপূর্বক চাঁদের মান চিত্রায়নের কাজ করবে তারা। বস্তুত চন্দ্রপৃষ্ঠে এতবার অভিযান চালানোর পর আমাদের বিশ্বাস-চন্দ্র বিষয়ক রহস্যের উত্তর চন্দ্রপৃষ্ঠে নয়, তা লুকিয়ে রয়েছে তার অভ্যন্তরীণ গঠনের ভেতর-মন্তব্য বিজ্ঞানী জুবারের। টেলিগ্রাফ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এশিয়ার উদ্ভাবনী দেশের তালিকায় তলানিতে বাংলাদেশ

ডেষ্ক নিউজ :: এশিয়ার উদ্ভাবনী দেশের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে সিঙ্গাপুর। আর বাংলাদেশের ...