চন্দ্রপুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অবস্থান

চন্দ্রপুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অবস্থানখোরশেদ আলম বাবুল, শরীয়তপুর প্রতিনিধি :: শরীয়তপুর সদর উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের দড়িকান্দি গ্রামের দানেশ মিয়ার ছেলে দুবাই প্রবাসী সোহেল মিয়াার বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান নিয়েছে প্রেমিকা শান্তা আক্তার। সোমবার সকাল থেকে প্রেমিকের বাড়িতে সে অবস্থান করছে।

জানা গেছে, শরীয়তপুর সদও উপজেলার দড়িকান্দি গ্রামের দানেশ মিয়ার ছেলে দুবাই প্রবাসী সোহেল মিয়াার সাথে পাশ্ববর্তী কীর্তিনগর গ্রামের মৃত শহি চৌকিদারের মেয়ে এবং চন্দ্রপুর ইউনিয়নের রায়পুর আব্দুল খালেক তালুকদার উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী শান্তা আক্তারের সাথে তিন বছর যাবত প্রেমের সম্পর্ক।

সোমবার দুপুরে প্রেমিক সোহেলের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় মুরব্বীরা বিয়ষটি মিমাংসার চেষ্টা করছেন ।

এ সময় প্রেমিকা শান্তা বলেন, সোহেলের সাথে তিন বছর যাবত আমার প্রেমের সম্পর্ক। এই সময়ের মধ্যে আমাদের অনেক কিছ ুহয়েছে। সোহেল এখন আমাকে ছেড়ে অন্য মেয়েকে বিয়ে করছে। এটা কিছুতেই মেনেনিতে পারছিনা। তাই আমি তার বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অবস্থান করছি। সোহেল আমাকে ভালোবাসে। সে আমাকে বলেছে তার পরিবার তাকে জোরকওে অন্য জায়গায় বিয়ে দিচ্ছে।

এ সময় প্রেমিক সোহেল মিয়া বলেন, শান্তার সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পওে যখন জানতে পারলাম ও অন্য ছেলেদের সাথে সম্পর্ক করে। তাই পরিবার অন্যত্র আমার বিয়ে ঠিক করেছে।

বিষয়টি মিমাংসা করতে ব্যর্থ হয়ে মুরব্বীরা চলে যেতে বাধ্য হয়। শান্তা বর্তমানে সোহেলের বাড়িতেই অবস্থান করছে বলে জানা গেছে।

চন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াারম্যান বলেন, বিষয়টি আমাকে জানানো হয়েছিল। আমি তাদের বলে দিয়েছি স্থানীয় মুরব্বীদের নিয়ে বিষয়টি মিমাংসা করার জন্য। তারপর তারা কি করেছে সে বিষয়ে বলতে পারবো না।

এ বিষয়ে পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.মনিরুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে এখনও আমাদের জানানো হয়নি। এ বিষয়ে কেউ যদি অভিযোগ কওে বা মেয়ে যদি আইনী সহায়তা চায় তাহলে তাকে আইনী সহায়তা দেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

‘আমাকে এখনও কেন হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে না’

ষ্টাফ রিপোর্টার :: বিএনপি চেয়ারপারসন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া ৮ মাস ...