গাজীপুর সিটি নির্বাচন পর্যবেক্ষণ বিষয়ে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে ইডব্লিউজি’র ব্যাখ্যা

EWG

স্টাফ রিপোর্টার :: গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে প্রাথমিক বিবৃতি প্রকাশের জন্য গত ২৮ জুন ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি) একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। বিবৃতিটির সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে, ‘ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি)’র পর্যবেক্ষকগণ যেসব ভোটকেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে সেগুলোর ৪৬.৫ ভাগ কেন্দ্রে ১৫৯ টি নির্বাচনি অনিয়মের ঘটনা পর্যবেক্ষণ করেছে’।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত শিরোণাম এবং প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, ইডব্লিউজি’র প্রাথমিক বিবৃতির তথ্য-পরিসংখ্যান যথাযথভাবে উপস্থাপিত হয়নি। উদাহরণস্বরূপ, শিরোণামগুলোতে বলা হয়েছে “ইডব্লিউজি ৪৬.৫% কেন্দ্রে অনিয়ম পেয়েছে”, “৪৬.৫ শতাংশ কেন্দ্রে অনিয়ম”, “৪৬.৫% কেন্দ্রে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি”, ‘Gazipur city polls not fair: EWG’। প্রকাশিত এসব শিরোণাম এবং সংবাদ যথাযথভাবে প্রকাশিত/প্রচারিত না হওয়ায় ইডব্লিউজি আজ শনিবার (৩০ জুন) গণমাধ্যমে একটি ব্যাখ্যা পাঠিয়েছে।

ইডব্লিউজি প্রেরিত ব্যাখ্যায় বলা হয়: ইডব্লিউজি ৪২৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ১২৯টি অর্থাৎ ৩০.৪% কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে এবং পর্যবেক্ষকৃত সকল তথ্য-পরিসংখ্যান শুধুমাত্র ঐসব কেন্দ্র থেকে সরাসরি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক বিবৃতি অনুযায়ী ইডব্লিউজি ৬০টি কেন্দ্রে নির্বাচনি অনিয়ম পেয়েছে – যা পর্যবেক্ষিত ১২৯টি কেন্দ্রের ৪৬.৫%।

দ্বিতীয়ত: প্রাথমিক বিবৃতির কোন লাইনে কিংবা সংবাদ সম্মেলনে ইডব্লিউজি কখনও বলেনি যে নির্বাচন “সুষ্ঠু হয়নি”। ইডব্লিউজি’র এই বিবৃতি নির্বাচন দিনে শুধুমাত্র পর্যবেক্ষিত ৩০.৪% কেন্দ্র থেকে সরাসরি পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে পাওয়া গেছে। যেসব কেন্দ্র ইডব্লিউজি পর্যবেক্ষণ করেনি সেসব কেন্দ্র সম্পর্কে ইডবিউ্লজি’র মন্তব্য করার সুযোগ নেই।

তৃতীয়ত: প্রাথমিক বিবৃতিতে বিভিন্ন রকমের “নির্বাচনি অনিয়মের” কথা বলা হয়েছে- যেগুলো ইডব্লিউজি’র পর্যবেক্ষকরা নির্বাচন দিনে পর্যবেক্ষণ করেছে। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন (নির্বাচন আচরণ) আচরণ বিধিমালা ২০১৬ অনুযায়ী ঐসব নির্বাচনী অনিয়ম শাস্তিযোগ্য অপরাধ হওয়ায় অন্যান্য বিষয়ের সাথে ইডবিউ্লজি এসব বিষয়ও পর্যবেক্ষণ করেছে।

প্রাথমিক বিবৃতিতে যে তথ্য দেওয়া হয়েছে, তাতে মোট ১৫৯টি নির্বাচনী অনিয়মের কথা বলা হয়েছে; এসব ঘটনার বেশিরভাগ ঘটনা ছিল কেন্দ্রে অননুমোদিত ব্যক্তির উপস্থিতি (৩০ টি), কেন্দ্রের ৪০০ গজ ব্যাসাধের্র মধ্যে নির্বাচনী পচ্রারণা করা (২৮টি) এবং প্রার্থী কতৃর্ক ভোটারদেরকে ভোটকেন্দ্রে আনা-নেওয়ায় যানবাহন বরবরাহ করা (২৪টি)।

জালভোটের ঘটনা পর্যবেক্ষিত হয়েছে ২১টি; এসব ঘটনা সংখ্যাগত দিক থেকে কম এবং এগুলো ঘটেছে পর্যবেক্ষিত ১১টি কেন্দ্রে যেখানে ইডব্লিউজি’র পর্যবেক্ষকরা উপস্থিত ছিল।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

আমরা নির্বাচন বয়কট করবো না: ড. কামাল

স্টাফ রিপোর্টার :: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন ...