খালেদার জন্ম তারিখ: যখন যেখানে যেভাবে প্রযোজ্য (শেষ)

লেখক: নাসির উদ্দিন আহমেদ

(পূর্ব প্রকাশিত পর)

রাষ্ট্রের কর্ণধার হিসেবে খালেদা জিয়াকে ইতোপূর্বে কয়েকবার শপথ নিতে হয়েছে। আর স্বামীর সাথে বিদেশ গমনে পাসপোর্ট ব্যবহার করতেও একটা ঘোষণা তাকে দিতে হয়েছে। সর্বপ্রথম যে পাসপোর্টে তিনি বিদেশ গমন করেছেন তাতে যদি তার জন্ম তারিখ ১৫ আগষ্ট বা অন্য কোন তারিখ থাকে বা একাডেমিক তারিখটি ব্যবহার যোগ্য করা যায় তবে সবকিছুর বেড়াজালে একটি জন্ম তারিখ আইনি প্রক্রিয়ায় ঘোষণা করলে অন্তত রাস্তাঘাটে মানুষের মুখফেনা করার অযথা তর্কবিতর্কের কিছুটা অবসান হতো। কাউকে জ্ঞান দানের জন্য এ লেখা নয়।

সমাজে সব ধরণের ভাবাদর্শের লোকজনের সাথে আমাদের চলতে গিয়ে এসবের প্রয়োজন বোধ করি। বর্তমানের প্রেক্ষাপটে জনবিচ্ছিন্ন হতে পারলে যে কোন দলের নেতার কাতারে আমাদের মত ছা-পোষা মানুষের নামও যোগ হতো। জনগণের কাতারে থাকতে মানসিক ভাবে অভ্যস্ত হবার কারণে ঐ চাঁদাবাজ তৈরীর কারখানাগুলিতে যে কোন পদে আমাদের মত লোকজন জন্মগতভাবেই ‘আনফিট’। তবে জনগণের মাঝে থাকাতে তাদের চেয়ে মানসিক প্রশান্তি যে আমাদের বেশী তা অনুমান করতে পারি।

রাষ্ট্রাচার রাষ্ট্রের সকল নাগরিকের অবশ্য পালনীয়, যেমন রাষ্ট্রের প্রতি অনুগত থাকা, পতাকাকে সম্মান দেখানো, বিশেষ দিবস গুলিতে রাষ্ট্রীয় কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ ইত্যাদি। বিশেষ দিবসগুলির অনুষ্ঠানে দলীয় নেতৃবৃন্দদেরকে রাষ্ট্রীয় ভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয়ে থাকে । তেমনি ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালন দলীয় ও রাষ্ট্রীয় ভাবে পালন করা হয়। আচার আচরনে এ দিবস পালনে একটি পক্ষ দৃশ্যমান অনীহা প্রকাশ না করলেও কোন কর্মসূচীতে অংশ গ্রহণ করেনা।

বরং অন্য কোন একটি অনুষ্ঠানের ছুতায় মানসিক প্রশান্তি লাভের ব্যর্থ চেষ্টা করে।

১৫ আগষ্ট জন্ম গ্রহণ কারীরা ১৫ আগষ্টেই তাদের জন্ম দিবস পালন করবেন এবং এটাই স্বাভাবিক। তবে কেউ ১৫ আগষ্টে জন্ম গ্রহণ করে যদি দিবসটির প্রতি সন্মান দেখিয়ে পরবর্তী একটি দিনে তা পালন বা ঐ দিনেই তা পালনের আনুষ্ঠানিকতায় শোক দিবসের সন্মান দেখায় তবে তা আরো বেশী গ্রহণ যোগ্য হবে বলে মনে করা যায়।

আগষ্ট মাস বাঙালি জাতির জন্য শোক আর অন্তহীন বেদনার মাস। আর এ মাসে ঘটা করে কোন আনন্দ অনুষ্ঠান বেমানান মনে হয়। কেউ কেউ আবার বলতে শুরু করেছেন, ২১ আগষ্ট তারেক আর ১৭ আগষ্টকে আরাফাত কোকুর জন্মদিবস হিসেবে প্রচার করার বিষয় বিএনপি ভেবে দেখছে। এ কথাগুলো অর্বাচীনদের  হলেও তর্কবিতর্কের সূত্রপাত করে।

মাসটিতে যদি অনাকাঙ্খিত আরো ২/৪টি  মর্মন’দ ঘটনা ঘটে তবে কি দিবস পালনের জন্য আরো কয়েকটি সন্তান দেশকে উপহার দিয়ে যেতে পারবেন খালেদা জিয়া? সে সুযোগ কি তার আছে, নিশ্চয়ই নয়। তাই তর্ক নয়, দেশে নিশ্চয়ই একদিন সুস্থ ধারার রাজনীতি ফিরে আসবে আর তার সন্তানরা হয়তোবা দেশের কর্ণধার হবে। আর সুস্থ ধারা ফিরিয়ে আনতে তাকে বা তার দলকেই অতীতের ন্যায় ভুমিকা পালন করতে হবে।

তাই এখন উচিৎ হবে তার ও তার সন্তানদের জন্ম তারিখ জাতির প্রয়োজনে গ্রহণযোগ্য ভাবে প্রকাশ করা। অন্যথায় এ নিয়ে বিতর্কেই রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত হয়ে অহেতুক রাজনৈতিক  নানা জটিলতার সূত্রপাত ঘটাবে।

 

লেখক: নাসির উদ্দিন আহম্মেদ, নির্বাহী সম্পাদক, দৈনিক আজকের বাংলাদেশ, ৩৩ ছোট বাজার, ময়মনসিংহ মোবাইল-০১৭৪০৯১৪০৬৯

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বন্ধুময় জীবনে বন্ধু নির্বাচনে দৃষ্টি নিয়োগ

বন্ধুময় জীবনে বন্ধু নির্বাচনে দৃষ্টি নিয়োগ

সুলতান মাহমুদ আরিফ :: বন্ধু বলতেই হৃদয়ের মনিকোঠায় দক্ষিণের শিতল বাতাসের এক ...