ব্রেকিং নিউজ

কর্মী হোক সন্তুষ্ট, দেশ হোক সমৃদ্ধ

শ্রমিক

কানিজ ফাতেমা নীপা:: আজ মহান “মে দিবস”। সারাদেশে নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে দিবসটি। সরকারি ছুটিও কাটাচ্ছেন আজ শ্রমিক কর্মীরা। সারা বছর অনুপযুক্ত কর্ম পরিবেশে, বিভিন্ন বৈষম্যের মধ্যে থেকে, বিভিন্নভাবে নিপীড়নের শিকার হয়ে আর শ্রমঘন্টার অতিরিক্ত সময় কাজ করেও এই একটা দিনকে শ্রমিকরা তাদের “নিজেদের দিন” বলে মনে করেন।

“আপন সময়” ভেবে আজকের দিনের ছুটিটা কাটান। কিন্তু, নানা আয়োজনে প্রতি বছর “মে দিবস” তথা “শ্রমিক দিবস” পালন করার মধ্যে, প্রকৃতপক্ষে শ্রমিকদের কি কোন মুক্তি আছে? মে দিবসের ঠিক পরের দিন থেকেই কী তাদের দিনগুলো সব নতুন হয়ে যাচ্ছে? বদলে যাচ্ছে কী তাঁদের কর্মপরিবেশ ইতিবাচক ভাবে? শ্রমিকদের কর্ম সময় আট ঘন্টা, মজুরির পরিমান বৃদ্ধি, শ্রমিকদের কাজের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি এবং শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য যে সকল শ্রমিকরা বুকের রক্ত ঢেলে দিয়েছিলো শিকাগোর রাজপথে।

সেই অধিকার আজও আদায় হয়নি। আজও বিভিন্ন কর্মস্থলে আট ঘন্টার উপরে কাজ করে চলেছে হাজারও শ্রমিক কর্মীরা। বিভিন্ন কলকারখানায় আজও শ্রমিকরা পায়না তাঁদের কাজের ন্যায্য মজুরি। আজও শ্রমিক কর্মীদেরকে মাস শেষে শ্রমের পাওনা আদায়ের জন্য নামতে হয় রাজপথে, সদলবলে করতে হয় ধর্মঘট, অনশন ।

আজও কর্মীরা পায়নি তাঁদের কাজের জন্য নিরাপদ ও উপযুক্ত পরিবেশ। অনিরাপদ পরিবেশে ঝুঁকির মধ্যে থেকে কাজ করতে হয় তাদের। কলকারখানাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নারী কর্মীদের জন্য নিরাপদ ও উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি হয়নি আজও। প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে কর্মস্থলে হয়রানির শিকার হয়েও কাজ করতে হচ্ছে হাজারও নারী শ্রমিক কর্মীদের। মালিক পক্ষের অসদাচরণ থেকে রক্ষা পাচ্ছেনা নারী শ্রমিক কর্মীরা । এমনকী পুরুষ শ্রমিক কর্মীরাও।

পরিবেশ বৈষম্য দূর করে নারী-পুরুষের জন্য উপযুক্ত কর্ম পরিবেশ এখনো নিশ্চিত হয়নি অনেক ক্ষেত্রেই। অধিকার মানে আজ আর শুধু শ্রমের পারিশ্রমিক নয়। অধিকারের গন্ডির মধ্যে রয়েছে সঠিক ও ন্যায্য শ্রমঘন্টা, সঠিক সময়ে শ্রমের ন্যায্য পারিশ্রমিক প্রদান, নারী পুরুষ উভয়ের জন্য বৈষম্যহীন উপযুক্ত কর্ম পরিবেশ, মালিক পক্ষের অসদাচরণ থেকে মুক্তি।

এ সকল অধিকার আদায় হলেই রক্ষা পাবে মে দিবসের মান। দিবসটি খুঁজে পাবে তার যথাযথ তাৎপর্য । সুন্দর আর সমৃদ্ধ হবে দেশ। অর্থনীতিতেও এগিয়ে যাবে আরো এক, দুই, তিন ধাপ । কেননা, উপযুক্ত কর্ম পরিবেশ আর উপযুক্ত শ্রমমূল্য পেলেই শ্রমিক কর্মীরা তাঁদের কাজের প্রতি হয়ে উঠবে আরো শ্রদ্ধাশীল আরো নিবেদিত। তাই আজ থেকে শ্রমিক দিবসের অঙ্গীকার হোক, প্রত্যেক শ্রমিক কর্মীদের জন্য তাদের কর্মস্থল হবে শুদ্ধতায় পরিপূর্ণ ।

 

লেখকের ইমেইল: nipa.fatema85@gmail.com

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ করার অধিকার নেই: বর্মী সেনাপ্রধান

ডেস্ক রিপোর্ট :: মিয়ানমারের সেনাপ্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্ণেইং বলেছেন, তার ...