কতদিন পর পাল্টাবেন বক্ষবন্ধনী?

অধিকাংশ নারীদের একটা বাজে স্বভাব থাকে। আর হলো যতক্ষণ না ব্রা বা বক্ষবন্ধনীটি জীর্ন হচ্ছে, ততক্ষণ সেটি ব্যবহার করেই যান।

কমবেশি সবারই বিষয়টা জানা। কিন্তু সব নারীই এটি এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। শুধু সুন্দর শরীর-গঠনের জন্যই নয়, সুস্থ থাকতেও অপরিহার্য হলো অন্তর্বাস। আর এই অন্তর্বাস নিয়েই অনেকে হেলা-ফেলা করেন।

দীর্ঘদিন ধরে একই ব্রা ব্যবহার করলে শরীরে এর অনেক প্রভাব ফেলে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

অনেক বক্ষবন্ধনীতে ইমিটেশন হুক থাকে, যার থেকে ঘামে বা অন্য কারণে এলার্জি বা চুলকানি হতে পারে। এমন মেটাল গোছের হুক দেওয়া ব্রা ব্যবহার না করাই ভালো।

অনেকেই ভাবেন, যা হোক একটা পড়লেই হয়। ভাবনাতেই গলদ। ভুল মাপের ব্রা ব্যবহার করলে এলার্জি বা চুলকানি তো হবেই, শরীরের সঙ্গে ঘষা লেগে চামড়ার উপর রক্ত বসে যেতে পারে।

এছাড়া ব্রা-এর স্ট্রাপসেরও সমস্যা থাকলে ঘাড় ও পিঠের যন্ত্রণায় ভুগতে হতে পারে।

অভিজ্ঞতায় দেখা গিয়েছে, কাপ সাইজ ব্রা বছরে ৬ বার পরিবর্তন করতে পারেন। সুতরাং আপনার শরীরের গঠন অনুযায়ী প্রতি ৩ মাস অন্তর অন্তর্বাস দেখে নিতে পারেন। খুব বেশি আঁটসাঁট হলে ব্যাকটেরিয়া ইনফেকশনের কারণে নানারকম রোগের জন্ম হতে পারে। টাইট ব্রা ব্যবহারের ফলে মহিলাদের ব্রেস্ট ক্যান্সারও হতে পারে।

যদি আপনার শরীরে এলার্জির লক্ষণ আগে থেকেই থাকে, তাহলে ব্রায়ের স্ট্রাপ আলগা করে পড়ুন। মেটাল বা ইমিটেশন দেওয়া হুকের ব্রা না পড়াই ভালো।

দু’দিন পরপর একই ব্রা পড়া বাঞ্ছনীয় নয়। তবে অন্তর্বাসকেও শ্বাস নিতে দিন। অন্তর্বাস যাতে অল্টারনেট করে পড়তে পারেন, এমন ব্যবস্থা করে রাখুন, আগে থেকেই। শরীর ও মনকে সুস্থ রাখতে সঠিক ব্যবহার কীভাবে করবেন, তা অবশ্যই জানা উচিত সব নারীদের।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

তলপেটের মেদ ঝরাবেন কীভাবে

ওপরের পেটের মেদ কমে গেলেও তলপেটের মেদ কমতে চায় না অনেকের। আর ...