ঈদকে ঘিরে লক্ষ্মীপুরে বিভিন্ন রুটে দ্বিগুন ভাড়া আদায়: দেখার কেউ নেই

যংিািজহিরুল ইসলাম শিবলু,লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :: লক্ষ্মীপুর থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন রুটে ঈদকে ঘিরে দ্বিগুন ভাড়া আদায় করা হলেও এসব দেখার কেউ নেই।

লক্ষ্মীপুর থেকে ঢাকাগামী ইকোনো, ঢাকা এক্সপ্রেস, জোনাকী, জননী সার্ভিসসহ চেয়ারকোচ ও চট্টগ্রামগামী শাহী পরিবহনের গাড়ী গুলিতে আগের চেয়ে দ্বিগুন ভাড়া আদায় করা হচ্ছে ঈদকে ঘিরে।

আগে ইকোনো ও ঢাকা এক্সপ্রেস চেয়ারকোচের ভাড়া ছিল ৩শত টাকা। এখন ঈদের পূর্বের ৮/১০দিন থেকে ঢাকা থেকে বাড়ী আসার পথে ৬শত টাকা করে আদায় করা হয়েছে।

এছাড়াও ঢাকা রুটের জোনাকী, জননী, ও গ্রামীণ পরিবহনের গাড়ী গুলোতে আগে ঢাকা থেকে লক্ষ্মীপুরের ভাড়া ছিল ২শত টাকা। ঈদের পূর্বে ৮/১০দিন থেকে ভাড়া আদায় করা হয়েছে ৪০০-৪৫০ টাকা করে।

এখন ঢাকাগামী ইকোনো, ঢাকা এক্সপ্রেস যাত্রীদের থেকে ভাড়া আদায় করছে ৫৫০-৬০০টাকা।

জোনাকী, জননী ও গ্রামীণ পরিবহন আদায় করছে ৪৫০-৫০০টাকা।

চট্টগ্রাম রুটের শাহী পরিবহনের আগে ভাড়া আদায় করা হতো ৩শ টাকা। এখন ঈদকে ঘিরে আদায় করছে ৫০০টাকা।

যাত্রীরা বলছেন এ রুটে বিকল্প কোন পরিবহন না থাকার কারনে তারা এক চেটিয়া খামখেয়ালী বাড়া আদায় করছে। যাত্রীরা বলছেন এ হলো গলাকাটা ভাড়া, যেন দেখার কেউ নেই।

অন্যান্য রুটের তুলনায় এ দুটি রুটে পরিবহন মালিকরা নিজের ইচ্ছেমত ভাড়া আদায় করছে। এছাড়াও এ দুটি রুটে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে এ অভিযোগ যাত্রীদের দির্ঘদিনের।

ঈদে ফেরত যাত্রীরা কর্মস্থলে যাবার সময় ১মাস পর্যন্ত দ্বিগুন ভাড়া আদায় করলেও কারো কিছু বলার নেই। বিগত রোজার ঈদেও আগে পরে প্রায় ১ মাস এভাবে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়েছে।

রবিবার লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা গেছে যাত্রীদের উপছে পড়া ভীড়। যাত্রীদের অভিযোগ, দ্বিগুন ভাড়া দেওয়ার সাধ্য না থাকলেও বাধ্য হয়ে তারা টিকিট ক্রয় করছেন।

অনেক যাত্রী ৰোভের সাথে বলেন, লক্ষ্মীপুরের এ রুটে এসব দেখার কেউ নেই।

ঢাকা, ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর আন্তঃ জেলা বাস মালিক সমিতির সভাপতি বিজন বর্ধন এর নিকট এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, ঢাকা থেকে লক্ষ্মীপুর রুটের সরকার নির্ধারিত ভাড়া ৪৩০ টাকা, কিন্তু আমরা অন্যসময় ৩৫০ টাকা করে আদায় করি। বর্তমানে বেশী ভাড়া আদায়ের বিষয়ে বলেন, ঢাকা থেকে আমাদের গাড়ী গুলো খালী যায়, এ কারনে আসার সময় কিছু ভাড়া বেশী আদায় করি। এভাবে কতদিন আদায় করবেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, যতদিন ফিরতি যাত্রী না পাই।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

শীর্ষ ১০০ ঋণখেলাপির তালিকা

ষ্টাফ রিপোর্টার :: দেশে বর্তমানে ঋণখেলাপির সংখ্যা ২ লাখ ৩০ হাজার ৬৫৮ ...