ব্রেকিং নিউজ

ইচ্ছা শক্তিই প্রতিরোধ: ১০ অক্টোবর স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস

স্তন ক্যান্সাররোকেয়া রুমী: বিশ্বে ১০ লাখ ৫০ হাজার এর বেশী মহিলা প্রতি বছর নতুন করে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। এর মধ্যে প্রায় ৫ লাখ ৮০ হাজার মহিলা উন্নত দেশগুলোর, বাকিরা আক্রান্ত হন উন্নয়নশীল দেশগুলোতে।

বাংলাদেশের মহিলাদের ক্যান্সার হিসাবে জরায়ুমুখের ক্যান্সারের স্থান শীর্ষে, দ্বিতীয় স্থানে স্তন ক্যান্সার-এটাই বরাবরের ধারণা। তবে হাসপাতাল ভিত্তিক ক্যান্সার রেজিষ্ট্রি থেকে সামপ্রতিক পাওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী মহিলাদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের স্থান শীর্ষে।

তবে আশার কথা হলো যদি শুরুতে রোগীরা চিকিৎসা নেন তাহলে ভালো হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। কিন্তু অসচেতনতার কারনে যথার্থ চিকিৎসা না নেওয়ার ৯০ ভাগ রোগীই মারা যান। স্তন ক্যান্সারের বিস্তার ক্রমেই বেড়ে চলেছে। শুরু থেকে ধরা পড়লে সহজেই এর ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

নিজের লড়াই থেকেই অনুপ্রেরনা পেয়ে আমি (রোকেয়া রুমি) স্তন ক্যান্সার বা অন্যান্য ক্যান্সার নিয়ে কাজ শুরু করেছি। ২০১১ সাল থেকে এডুকেশন ফর হিউম্যান রিসোর্স ডেভলপমেন্ট (ইএইচআরডি) এর আওতায় ইএইচআরডি ক্যান্সার সার্পোট সেন্টার প্রতিষ্ঠা করি। ইএইচআরডি ক্যান্সার সার্পোট সেন্টার এর মাধ্যমে সমাজে দুঃস্থ ক্যান্সার রোগীদের সাহায্যে করে যাচ্ছে।

২০১৩ সাল থেকে স্তন ক্যান্সার সচেতনতা ফোরাম গঠন করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্রেষ্ট ক্যান্সার এওয়ার্নেস ফোরাম (বিবিসিএএফ) উক্ত ফোরাম এর সদস্য ইএইচআরডি ক্যান্সার সার্পোট সেন্টার, সিসিপিআর, আইসিডিডিআরবি, জাতীয় ক্যান্সার হসপিটাল, ক্যান্সার সোসাইটি, আছানিয়া মিশন ক্যান্সার হসপিটাল, আইসিএমএইচ, অপারজিতা, ওয়াইডব্লিউসিএসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান।

এর আওতায় আক্রান্ত নারী পুরুষদের পরামর্শ ও সেবা দিয়ে যাচ্ছি। আক্রান্ত ব্যক্তি যেন মানষিক ভাবে ভেঙ্গে না পড়েন তার পরামর্শ দেন এই প্রতিষ্ঠানটি এর নেপথ্যে যে সব ব্যক্তিরা রয়েছেন এবং আর্থিক ও নানা ভাবে সাহায্যে সহযোগিতা করেছেন তাদের নাম উল্লেখ করতে নিষেধ সব প্রতিষ্ঠানের কিছু মহৎ ব্যক্তি এবং সমাজের কিছু মহৎ ব্যক্তি ও আমার এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় অংশ গ্রহন করে থাকে।

চিকিৎসা সেবা প্রদানের সহয়তা করা এই প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য। আমাদের ইএইচআরডি ক্যান্সার সার্পোট সেন্টারে ৪০ জন রোগী চিকিৎসা সেবা পেয়েছে। আমরা গনমাধ্যমে ক্যান্সার বিষয়ে সচেতনতা প্রোগাম করেছি। নিজের নির্দেশনায় তৈরী করেছি “মুক্তির অন্বেষনে” নামে একটি ডকুমেন্টরি। সেখানে ক্যান্সার বিষয়ে সচেতনতা স্তন ক্যান্সারের লক্ষন নির্নয় ও প্রতিকারের উপায় তুলে ধরা হয়েছে। এছাড়া নিজের অভিজ্ঞতা থেকে লিখেছি ক্যান্সার ও আমি শিরোনামে বই।

২০১৩ সালে ‘জেগে উঠুন জেনে নিন’এই শ্ল্লোগানে ১০ অক্টোবর স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস পালন করা হয়। বিশ্ব ক্যান্সার দিবস ২০১৪ উপলক্ষে ক্যান্সার সচেতনতার সড়কযাত্রা ও কমিউনিটি অনকোলজি নেটওয়ার্ক করা হয়েছে। সড়ক যাত্রার মাধ্যমে প্রতিটি জেলায় জেলায় সেমিনার, র‌্যালীর আয়োজন করা হয়।

এবছর অর্থ্যাৎ ২০১৪ সালে স্তন ক্যান্সার সচেতনতা দিবস বিশাল পরিষরে হতে যাচ্ছে। বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন মিলে ১০-৩১ অক্টোবর পর্যন্ত সেমিনার রোডশো গনসংযোগ করবে। ১০ অক্টোবর মিড দ্যা প্রেস, প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউন্সে, ১৮ অক্টোবর ইএইচআরডি ক্যান্সার সার্পোট সেন্টারের উদোগ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা, ২২ তারিখ বাংলাদেশ ব্রেষ্ট ক্যান্সার এওয়ার্নেস ফোরাম (বিবিসিএএফ) এর পক্ষ থেকে রোডশো হবে সারাদিন ব্যাপী।

এর মাধ্যমে আমরা স্তন ক্যান্সার যে একটি নিরব ঘাতক ব্যধি সেটি সবার মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে জানাতে চাই। ‘ইচ্ছা শক্তিই প্রতিরোধ’নিজের ইচ্ছা দ্বারা ক্যান্সার নামক ঘাতক ব্যধিকে জয় করা যায়, এটি সবারমাঝে ছড়ি পড়ুক।

 

লেখক: রোকেয়া রুমী, নির্বাহী পরিচালক, এডুকেশন ফর হিউম্যান রিসোর্স ডেভলপমেন্ট (ইএইচআরডি), মোবাইল: ০১৭১২৮৩২৫৩৪

 

 

 

 

 

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

এএইচএম নোমান

সত্তর’র ভয়াল ১২ নভেম্বর: ধ্বংস থেকে সৃষ্টি

এএইচএম নোমান :: ১৯৭০ সালের ১২ নভেম্বর গভীর রাতে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা ...