আড়াল থেকে নির্বাচনের পথে এরশাদ!

ঢাকা: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছে একটি ধুম্রজাল। তিনি নির্বাচনে যাবেন, না যাবেন না এ নিয়ে নানা জনে নানা কথা বলছেন। নির্বাচনের আর মাত্র দিন দশেক বাকি থাকলেও এরশাদ আটক নাকি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন তাও কেউ পরিস্কার করে বলতে পারছেন না।

ইতোমধ্যেই এরশাদ নির্বাচনে যাবেন ও যাবেন না- এ দুরকম ঘোষণাই দিয়ে ফেলেছেন। নির্বাচনে যাওয়ার পেছনে তিনি যুক্তি দেখিয়েছিলেন, ‘নির্বাচনে না গেলে লোকে তাকে থুথু দেবে। অন্যদিকে নির্বাচনে না যাওয়ার পেছনে তার যুক্তি ছিল, সব দল নির্বাচনে অংশ না নিলে জাতীয় পার্টি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে না।

তবে শেষ পর্যন্ত তিনি নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্তেই অটল ছিলেন। আর এ অবস্থাতেই গত ১২ ডিসেম্বর ‘চিকিৎসার’ প্রয়োজনে তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচে) নিয়ে যায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরপর গুজবও উঠেছিল উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সিঙ্গাপুর পাঠানো হবে। তবে এখনো তিনি দেশেই আছেন।

পার্টি চেয়ারম্যান হাসপাতালে ভর্তি থাকলেও তিনি কি রোগে ভুগছেন, কত দিন তার হাসপাতালে থাকা লাগবে এসব বিষয়ে দলের পক্ষ থেকে পরিস্কার করে কিছু জানানো হয়নি।

এরশাদকে ১২ ডিসেম্বর হাসপাতালে নেয়া হলেও রওশন তাকে হাসপাতালে দেখতে যান ১৬ ডিসেম্বর বিকেলে। এ সময় তারা একান্তে আলাপ করেন। সূত্র জানায়, দলের বিভিন্ন বিষয় ও নির্বাচনে যাওয়া-না যাওয়া নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেন তারা।

তবে তারও আগে এরশাদের সঙ্গে দেখা করেন প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা গওহর রিজভী। এ সময় সেখানে রিজভীর  স্ত্রী ও মেয়েও উপস্থিত ছিলেন। জানা গেছে, এরশাদ নির্বাচনে যাবেন কি না এসব বিষয় নিয়েই বিস্তারিত আলাপ করেন তারা।

গত ১৮ ডিসেম্বর রওশন এরশাদের গুলশানের বাসার সামনে সাংবাদিকেদর সঙ্গে আলাপকালে পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ রওশন এরশাদের বরাত দিয়ে বলেন, স্যার (এরশাদ) দেশে থেকেই চিকিৎসা নেবেন।

জাতীয় পার্টির একটি সূত্র এটিও জানিয়েছে যে, হাসপাতালে নেয়ার পর থেকেই হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য নানাভাবে চাপ দেয়া হচ্ছে। তার নামে দায়েরকৃত বিভিন্ন মামলা আবারো সচল করার ভয়ও দেখানো হচ্ছে।

‘চিকিৎসার’ প্রয়োজনে এরশাদকে সিএমএইচে নেয়ার পর থেকেই জাতীয় পার্টিতে চলছে নানামুখী নাটকীয়তা। একটি পক্ষ দাবি করছে জাপা নির্বাচনে যাচ্ছে আবার অপর একটি পক্ষ বলছে, এরশাদ তার সিদ্ধান্তে অটল আছেন। তিনি নির্বাচনে যাবেন না।

এদিকে পার্টির বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা আর ধরে রাখতে পারছেন না এরশাদ। সূত্র আরো বলছে, নেহাত বিপদে পড়েই এখন চুপিসারে নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

পার্টির একটি সূত্র দাবি করছে, এরশাদকে বেশ চাপে রাখা হয়েছে। এরশাদের বিশেষ উপদেষ্টা ববি হাজ্জাজকে বিদেশ পাঠানোর ঘটনাটিকে তারা এ চাপের প্রমাণ হিসেবে দেখছেন।

এদিকে নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণায় জাতীয় পার্টিতে নতুন করে যে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে সে বিষয়েও বেশ চিন্তিত এরশাদ। এরশাদ আশঙ্কা করছেন, নির্বাচনে না গেলে তিনি একা হয়ে যাবেন। দলে আবারো বিভক্তি দেখা দেবে। এসব বিষয় বিবেচনায় এনে খুব শিগগিরই এরশাদ তার সিদ্ধান্ত পাল্টাতে পারেন।

এরশাদ অসুস্থ নন, তাকে আটক রাখা হয়েছে যাতে তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে বাধ্য হন- এমন দাবি করে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাতীয় পার্টির এক ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, স্যারকে আটক রাখা হয়েছে। তিনি যে আটক এটা তো সবাই বুঝতে পারছে কিন্তু দেশের খারাপ অবস্থার কারণে পার্টির কেউ-ই মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। তিনি নির্বাচনে যাবেন। কেননা নির্বাচনে যাওয়া ছাড়া এই মুহূর্তে তার সামনে আর কোনো পথ খোলা নেই।

পার্টির এই ভাইস চেয়ারম্যান আরো জানিয়েছেন, এরশাদকে সব কিছুই করতে দেয়া হচ্ছে এই কারণে যাতে দেশের মানুষ বোঝেন তিনি আটক নন। তাই তাকে সময় মতো খাবার দেয়া হচ্ছে, গলফ খেলতে দেয়া হচ্ছে।

জাতীয় পার্টির এই নেতা প্রশ্ন রাখেন, স্যার যদি সত্যিই অসুস্থ তবে কেন প্রধানমন্ত্রী তাকে দেখতে যান না? কেন তার সঙ্গে নেতাকর্মীদের দেখা করতে দেয়া হয় না?

পার্টির একটি সূত্র দাবি করেছে, এরশাদকে হাত করার জন্য ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে পার্টির কয়েকজন নেতাকে দায়িত্বও দেয়া হয়েছে। পার্টির চেয়ারম্যান ঠিকই সময় মতো নির্বাচনে যাবেন।

ওপর থেকে কিছু না বলার নির্দেশ থাকার কারণ দেখিয়ে এ বিষয়ে সূত্রটি বিস্তারিত কিছু বলতে রাজি হননি।

দলের ত্যাগী নেতারা মনে করছেন, নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্তে নিলে তা দলের জন্য আত্নঘাতী একটি  সিদ্ধান্ত হবে। এতে দলের কল্যাণ তো হবেই না বরং দলে ফাটল ধরবে।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

ইনজেকশন দেয়া গরু চিনবেন যেভাবে

ষ্টাফ রিপোর্টার ::ঈদুল আজহার আর মাত্র ক’দিন বাকি। ঈদুল আজহা মূলত মহান ...