আ’লীগ এমপিকে দেয়া ঘুষের টাকা ফেরত নিতে রাস্তায় চাকরিপ্রার্থীরা

স্টাফ রিপোর্টার :: আসনের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এমপি কাজী আবদুল ওয়াদুদ দারাকে দেয়া ঘুষের টাকা ফেরত নেয়ার জন্য প্রায় আড়াই ঘণ্টা রাস্তায় অবস্থান করেছেন চাকরিপ্রার্থীরা। তাদের অভিযোগ, চাকরির জন্য তারা এমপিকে দুই থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত দিয়েছেন। কিন্তু এমপি তাদের চাকরি দেননি, টাকাও ফেরত দেননি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে পুঠিয়া উপজেলার প্রায় দুই শতাধিক যুবক রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কের ঝলমলিয়া এলাকায় অবস্থান নিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ দারা এমপির জন্য অপেক্ষা করতে থাকেন। এ সময় তারা এমপির বিরুদ্ধে নানা স্লোগানও দেন।

পরে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পুঠিয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু বকর সিদ্দিক, সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রহিম কনক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক আবুল ফজল প্রামাণিকসহ স্থানীয় নেতারা গিয়ে তাদের অনুরোধ করে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন।

রাজশাহী জেলা পরিষদের সদস্য আবুল ফজল প্রামাণিক এ সময় চাকরিপ্রার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ২০০৯ সালে তিনি নিজেই সহকারী শিক্ষক পদে তার ভাইয়ের চাকরির জন্য এমপিকে দুই লাখ টাকা দিয়েছেন। এমপি তার ভাইকে চাকরি দেননি, টাকাও ফেরত দেননি। তিনি নিজেই ভুক্তভোগী। নির্বাচনের পর তারা আবদুল ওয়াদুদ দারাকে যেখানে পাবেন, সেখানেই সবার টাকা আদায় করবেন।

নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিটে এমপি নির্বাচিত হন ব্যবসায়ী আবদুল ওয়াদুদ দারা। দশম সংসদ নির্বাচনেও তিনি দলের মনোনয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হন।

এই ১০ বছরে এমপি দারা দুই উপজেলার বহু যুবকের কাছ থেকে চাকরি দেয়ার নামে টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগ আছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনে এমপি দারা দলের মনোনয়ন পাননি।

এমপির অপেক্ষায় চাকরিপ্রার্থীদের রাস্তায় অবস্থান নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা পরিষদের সদস্য আবুল ফজল প্রামাণিক বলেন, বৃহস্পতিবার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে শুক্রবার এমপি আবদুল ওয়াদুদ দারার এলাকায় আসার খবর প্রচার করেন। তাই চাকরিপ্রার্থীরা তাদের টাকা আদায়ে এমপিকে আটকানোর জন্য সড়কে অবস্থান নিয়েছিলেন।

আবুল ফজল বলেন, চাকরিপ্রার্থীরা রাস্তায় অবস্থান নিলে আমাকে থানা থেকে ফোন করা হয়। বলা হয়, ‘সামনে নির্বাচন, এতে আপনাদের দলের ক্ষতি হবে। বিক্ষুব্ধদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন।’

তিনি বলেন, তাই আমরা গিয়ে চাকরিপ্রার্থীদের বুঝিয়ে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেই। তাদের আশ্বাস দিয়েছি, ৩০ ডিসেম্বরের পর আবদুল ওয়াদুদ দারাকে যেখানে পাওয়া যাবে সেখানেই তার কাছ থেকে টাকা আদায় করা হবে।

এ বিষয়ে পুঠিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মহিনুল ইসলাম বলেন, টাকা দিয়ে চাকরি পাননি এমন কিছু লোক রাস্তা অবরোধ করেছিলেন। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের সরিয়ে দেয়। বিকালে নিজ এলাকায় এমপি দারা ফিরেছেন বলে জানিয়েছেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে কয়েক দফা এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে বন্ধ পাওয়া যায়। এসএমএস দিয়েও সাড়া না পাওয়ায় এসব অভিযোগের বিষয়ে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

প্রধান নির্বাচন কমিশনার

ভোট কক্ষ থেকে লাইভ সম্প্রচার করা যাবে না: প্রধান নির্বাচন কমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার :: ভোট কক্ষের ভেতরে ছবি তোলা যাবে। কিন্তু সেখান থেকে ...