আফগানিস্তানে বিধ্বস্ত বাংলাদেশ!

ষ্টাফ রিপোর্টার ::  লক্ষ্য ২৫৬ রান। এশিয়া কাপ ক্রিকেটে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এই রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। দলীয় ১৭ রানের মধ্যে দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে বসে।

সে ধারাবাহিকতা ছিল পুরো ইনিংসেই। তাই টেস্ট ক্রিকেটে নবীন সদস্য দেশটির কাছে ১৩৬ রানের বড় ব্যবধানে হারের লজ্জা পেতে হয়েছে লাল-সবুজের দলকে।

আজ বৃহস্পতিবার আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে আফগানিস্তান প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ২৫৫ রান গড়ে। এর জবাবে বাংলাদেশের ইনিংস গুটিয়ে যায় মাত্র ১১৯ রানে। আফগান বোলারদের দুর্দান্ত বোলিং আক্রমণের সামনে একরকম বিধ্বস্ত হয় বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন।

দলীয় ১৫ রানের মাথায় বাংলাদেশ প্রথম উইকেট হারায়। ওয়ানডেতে অভিষেক হওয়া নাজমুল হোসেন শান্ত (৭) প্রথম সাজ ঘরে ফিরেন। দুই রানের ব্যবধানে ফিরেন আরেক ওপেনার লিটন দাসও (৬)।

দীর্ঘদিন পর দলে ফিরে মুমিনুল হকও খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। তিনি মাত্র ৯ রান করে আউট হন। আগের মাচে দারুণ একটি ইনিংস খেলা মিঠুন এদিন মাত্র ২ করে আউট হয়ে যান।

তবে ষষ্ঠ উইকেটে সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ কিছুটা চেষ্টা করেও পারেননি। তাঁরা ৩৬ রানের জুটি গড়েন। সাকিব ৩২ ও মাহমুদউল্লাহ ২৭ রান করে আউট হন। শেষ দিকে সৈকত কিছুটা চেষ্টা করে হারের ব্যবধান কমিয়েছে মাত্র। তিনি ২৬ রানে অপরাজিত থাকেন।

আফগানিস্তানের হয়ে রশিদ, নাঈব ও মুজিব দুটি করে উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটিং ধস নামান।

এর আগে আফগানিস্তান অষ্টম উইকেট জুটির দৃঢ়তায় ২৫৫ রান গড়ে। গুলবদীন নাঈব ও মোহাম্মদ রশিদ অষ্টম উইকেটে করেন ৯৫ রান। নাঈব ৩৮ বলে ৪২ এবং রশিদ ৩২ বলে ৫৭ রানের দুটি ঝড়ো ইনিংস খেলেন। শেষ দিকে তাঁরা বাংলাদেশের বোলারদের ওপর একরকম চড়াও হয়ে খেলেন।

অবশ্য আফগানিস্তান দলীয় মাত্র ১০ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারিয়ে বসে। প্রথমে ইহসানউল্লাহ (৮) সাজঘরে ফিরেন। পরে রহমতও (১০) আউট হন। দুজনেই পেসার আবু হায়দার রনির শিকার হন।

এরপর আফগানিস্তান যখন ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিল তখন বোলিংয়ে এসে সাফল্য পান সাকিব আল হাসান। মোহাম্মদ শেহজাদকে আউট করেন রনির ক্যাচ বানিয়ে।

কিছুক্ষণ পর আফগানিস্তান অধিনায়ক আসগর আফগানকে (৮) সরাসরি বোল্ড করেন তিনি। বাঁহাতি অলরাউন্ডার ব্যক্তিগত তৃতীয় উইকেট তুলে নেন সামিউল্লাহ শেনওয়ারিকে ফিরিয়ে। তাঁর চতুর্থ শিকার মোহাম্মদ নবি।

সাকিব ও রনির পর পেসার রুবেল হোসেন আঘাত হেনেছেন আফগান ব্যাটিংয়ে। তিনি আফগানিস্তানের সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান হাশমতুল্লাহ শহীদীর (৫৮) উইকেট তুলে নেন।

এরপর রশিদ ও নাঈব এসে যা করলেন তা বাংলাদেশের জন্য বড় চাপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে শেষ ১০ ওভারে এক উইকেট হারিয়ে ৯৭ রান তুলেছে আফগানিস্তান।

সাকিব ৪২ রানে চারটি এবং রনি ৫০ রানে তিন উইকেট নেন। একটি উইকেট পান রুবেল।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

পাঁচ বছর পর মুশফিকের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুুরি

স্টাফ রিপোর্টার :: মুশফিকুর রহিমকে কেনো বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান বলা হয়? টি-টোয়েন্টির ...